মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মিলনপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা ঘোড়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন  বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল সাপাহারে জাতীয় শোক দিবস পালন জিয়া-মোস্তাকরা এখন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে-হুইপ ইকবালুর রহিম পার্বতীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে- বানিজ্যমন্ত্রী রংপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত বিরামপুরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭-তম শাহাদত বার্ষিকী বঙ্গবন্ধুর  জন্ম না হলে   বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না – মেয়র  সরোয়ার

যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস: রিভিউর রায় ১ ডিসেম্বর

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ৬৪ বার পঠিত

বজ্রকথা রিপোর্ট ।- যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস এমন অভিমত দিয়ে আপিল বিভাগের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে করা আবেদনের ওপর ১ ডিসেম্বর রায়ের তারিখ ধার্য করেছেন সুপ্রিম কোটের্র আপিল বিভাগ।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এক হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের দেয়া ‘যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাবাস’ রায়টি পুনর্বিবেচনা চেয়ে করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষে রায়ের জন্য এই তারিখ ধার্য করা হয়। আদালতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

আসামিপক্ষে শুনানিতে ছিলেন খন্দকার মাহবুব হোসেন। গত বছরের ১১ জুলাই প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চে শুনানি শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রেখেছিলেন। তখন রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রয়াত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আর বর্তমান অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন অ্যামিকাস কিউরি ছিলেন। গত বছরের ১১ এপ্রিল এ মামলায় চারজন অ্যামিকাস কিউরি নিয়োগ দিয়েছিলেন আপিল বিভাগ। তারা তাদের মতামত তুলে ধরেন। অ্যামিকাস কিউরিরা হলেন-ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ, এএফ হাসান আরিফ, আব্দুর রেজাক খান ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন। তখন শুনানিতে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, যাবজ্জীবন সাজার একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকতে হবে। আমাদের আইনে যাবজ্জীবন কারাদন্ড হিসেবে ৩০ বছর বলা আছে। যা রেয়াত পাওয়ার পর সাড়ে ২২ বছর হয়। উন্নত বিশ্বেও সাজার মেয়াদ বলে দেয়া হয়। সেখানে প্যারোল ব্যবস্থাও রয়েছে। ফলে দীর্ঘমেয়াদে কারাদন্ড প্রাপ্তদের দীর্ঘদিন কারাগারে থাকতে হয় না। কিন্তু আমাদের দেশে সে ব্যবস্থা নেই। তাই যাবজ্জীবন হিসেবে আমৃত্যু কারাদন্ড দেয়া হলে কারাগারগুলো বৃদ্ধাশ্রম হয়ে যাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com