বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০১:০৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী   পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইসচেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা বন্যার পানিতে সাঁতরে বন্যার্তদের ত্রাণ সংগ্রহ পার্বতীপুর পৌরসভায় মৌসুমি ফল উৎসব বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানববন্ধন পার্বতীপুর পৌরসভায়  ড্রেন নির্মান কাজের উদ্বোধন দিনাজপুর-বিরামপুর -ঘোড়াঘাট সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে

যুদ্ধ নয় শান্তি চাই -সুলতান আহমেদ সোনা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ মে, ২০২১
  • ২০২ বার পঠিত

এক সময় বিশ্ব মোড়লদের শীর্ষে ছিল যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়ন। কিন্তু সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাবার পর যুক্তরাষ্ট্র একক ভাবে বিশ্ব মাতবর হিসেবে সারা বিশ্বে ছড়ি ঘুড়িয়েছে । যুক্তরাষ্ট্র যখন যা মনে করেছে তখন তাই করেছে। অনেকের মতে যুক্তরাষ্ট্র এখনো এক নম্বর শক্তিধর দেশ এবং একক মাতব্বর! যে কারনে মধ্যপ্রচ্যে যুদ্ধ সংঘাতে মুসলিমদেশগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফিলিস্তিনীরা ইসরাইলের হাতে মার খাচ্ছে। আফগানিস্তানে তালেবানদের সাথে এখনো লড়ে যাচ্ছে। চীনকে আক্কেল দিতে আঞ্চলিক শক্তি ও মিত্রদের সাথে গাইটছড়া বেধে এখন মাঠে রয়েছেন। অন্যকোন শক্তিধরদেশ পাত্তাই পাচ্ছে না যুক্তরাষ্ট্রের কাছে। তবে বর্তমান রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন অবশ্য সেটা মনে করেন না। তার মতে একক ভাবে মাতবরি করার ক্ষমতা এখন আমেরিকার নেই। এটা বলার অবশ্য অনেক কারণ রয়েছে। বলতে বাধা নেই,রাশিয়া তাদের দূর্বলতা অনেকটা কাটিয়ে উঠেছে। তাদের মিত্রের সংখ্যাও বেড়েছে। আর্থিক অবস্থা অনেকটা মজবুত। আমেরিকাকে চ্যালেঞ্জ জানাবার মত সামর্থ তার রয়েছে। যার প্রমাণ দিতে পেরেছে মধ্যপ্রচ্যে। চীন, রাশিয়ার ভালোবন্ধু, তুরস্কের সাথে সম্পর্কটাও মন্দ নয়,সিরিয়ায় ঘাটি গেড়ে বসতে পেরেছে রাশিয়া, ইরানের সাথে সম্পর্কটা যেন আমে দুধে ,দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মিত্রশক্তি উত্তর কোরিয়াও ভালোই খেলা দেখাচ্ছে। আর একটি বিষয় লক্ষ্য করার মত তা হচ্ছে, সারা বিশ্বেই করোনাসহ নানা ইসুতে উত্তেজনা, অস্থিরতা, সংকট বিরাজ করছে; বিরোধ বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রভাবশালী রাষ্ট্রগুলোর অদৃশ্য ইঙ্গিতে শক্তিবৃদ্ধিতে মনযোগ দিয়েছে প্রায় সবদেশই। অস্ত্র তৈরী, অস্ত্র প্রদর্শন, নতুন নতুন অস্ত্রের ক্ষমতা পরীক্ষা করা এবং অস্ত্রের কার্যকারিতা প্রমাণে অনেক দেশই সক্রিয় রয়েছে। ইরানকে নানা ভাবে নাজেহাল করতে যুক্তরাষ্ট্র তৎপর রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো শান্তিকামী দেশ হলেও বর্তমানে সংঘাতের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। অস্ত্র ক্রয়ের দিকে মনযোগ দিয়েছে। এই অঞ্চলের দেশ মিয়ানমার রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান না করে নানা ছলছুতায় প্রতিবেশীদের সাথে সংঘর্ষ বাঁধাবার চেষ্টা করছে। লাদখ নিয়ে চীন – ভারত মুখোমুখি এখনও। কাশ্মিরকে সামনে রেখে পাকিস্তান কক ফাইট করে যাচ্ছে। কৃষ্ণসাগরে তেল গ্যাস অনুসন্ধান নিয়ে তুরস্ক,গ্রীস, মিসর,দ্বন্দ্বে লিপ্ত হয়েছে। ইরানপন্থি হুতি আর সৌদি আরব সমর্থিত ইয়ামেনীরা দীর্ঘসময় ধরে আত্মঘাতি যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে। অপর দিকে ইউরোপের দেশ ফ্রান্স এর প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ইসলাম বিরোধী কথা বলে মুসলিম বিশ্বে প্রতিবাদের ঝড় তুলে দিয়েছেন। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর ব্যাঙ্গচিত্র প্রদর্শনকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার যে কসরত তারা করেছে, তাতে ক্ষব্ধ হয়েছে সারা দুনিয়ার মুসলমান। ককেশাস অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান নাগোর্নো-কারাবাখ নিয়ে যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিল। তাতে জয় পেয়েছে আজারবাইজান। এই জয়ের পিছনে তুরস্কের সমর্থন ছিল বলেই এটা সম্ভব হয়েছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। আর্মেনিয়ার যুদ্ধ ক্ষেত্রে তুরস্কের যুদ্ধাস্ত্রের সক্ষমতা পরীক্ষা ও সাফল্য মুসলিম দেশগুলোকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলেছে। হয়তো সে কারনেই আজকে ইসরাইলের বিরুদ্ধে নতুন করে মাথা তুলে দাড়াবার সাহস দেখিয়েছে হামাস। এখন আর পাথর ছুড়ে নয়, বুলেটের জবাবে বুলেট, বোমার জবাবে ক্ষেপনাস্ত্র,অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, বিমান হামলার বিরুদ্ধে রক্তের স্রোত বইয়ে দেবার ক্ষমতা অর্জন করেছে ফিলিস্তিন।ফিলিস্তিনি যোদ্ধারা আগের অবস্থানে নেই। ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামীদের অবাধ্যতাই পারবে তাদেরকে স্বাধীনতা এনেদিতে। ফিলিস্তিনীরা বুঝে গেছে শুধু মাত্র পাথর ছুড়ে অধিকার আদায় হবে না।তীর ধনুকের যুগ শেষ, তলোয়ার দিয়ে যুদ্ধ করে স্বাধীনতার লড়াইয়ে জয়লাভ সম্ভব নয়। এখন প্রয়োজন ভয়ঙ্কর সব অস্ত্র! অস্বীকার করার উপায় নেই সারা দুনিয়ায় মুসলমানরা মার খাচ্ছে। বর্ণবাদের শিকার হচ্ছে। মুসলমানদের অধীকার খর্ব করা হচ্ছে। তাদেরকে ভুমি থেকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে ।ধর্মপালনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। মুসলমানরা গণহত্যার শিকার হচ্ছে। বিশ্ব মোড়লরা মুসলমানদের বিরুদ্ধে মুসলমানদের লেলিয়ে দিয়ে সংঘাতে জড়িয়ে শক্তিহীন, সম্পদহীন জাতিতে পরিণতকরার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যে ইহুদির দিয়ে খেলছে বিশ্ব মোড়ল। মধ্যপ্রচ্যের বিষফোঁড়া ইসরাইল। ফিলিস্তিনদের ভুমি দখল করে অবৈধভাবে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাকারী ইসরাইল সারা দুনিয়ার শান্তি কেড়ে নিয়েছে। তাদের কারনেই মধ্যপ্রচ্যের শান্তি বিনষ্ট হয়েছে। মুসলমানরা অশান্তির মধ্যে রয়েছে, অসস্তির মধ্যে রয়েছে। আমরা সকলে জানি এবং মানি যুদ্ধ শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে পারে না! আমরা শান্তির পক্ষে, আমরা সারা দুনিয়ায় শান্তি চাই।একটি বিষয় স্পষ্ট, সারা দুনিয়ায় শান্তি স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে, যদি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বিশ্বনেতারা এই বিষয়টিকে পাত্তা না দিলে কেউ শান্তিতে ঘুমাতে পারবে না। ইহুদিরাও না। আমরা চাইবো ইসরাইল গাজায় বিমান হামলা বন্ধ করবে। মানুষ হত্যা বন্ধ করবে,অধিকৃত পশ্চিমতীর থেকে সরে যাবে। তাদের দখলে থাকা প্রতিবেশীদের ভুমি ছেড়ে দেবে। শুধু তাই নয় স্বাধীন ফিলিস্তিন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এগিয়ে আসবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com