রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০৫ অপরাহ্ন

রংপুরে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে আরো দুই ধর্ষক আটক

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০
  • ৭৪ বার পঠিত

রংপুর প্রতিবেদক।- রংপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে গণ ধর্ষণের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সদ্য চাকরি থেকে বরখাস্ত এএসআই রায়হানকে এখনো গ্রেফতার দেখানো হয়নি। ধর্ষণের এই মামলাটির তদন্তভার পিআইবি’র কাছে থাকলেও রায়হানকে পুলিশি হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পিআইবি।
এদিকে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় আরও দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার ভোরে লালমনিরহাট থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা হল, লালমনিরহাট সদরের পূর্ব মাজাপাড়া এলাকার করি মাহমুদের ছেলে বাবুল হোসেন (৩৮) এবং পূর্ব থানা পাড়ার মৃত কাচু মিয়াার ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৪০)।
পিবিআই জানায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ধর্ষণের সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছে। এর আগে ধর্ষণে সহায়তার অভিযোগে সুমাইয়া আক্তার মেঘলা, সুরভি আক্তার সমাপ্তি নামে দুই নারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তারা এখন পিআইবি’র হেফাজতে রয়েছে। রোববার সকালে আরপিএমপি হারাগাছ থানা এলাকার কেদারের পুলি নামকস্থানে একটি ভাড়া বাসায় নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে ওই মামলয় গ্রেফতার মেঘলা ও সমাপ্তি নামের দুই নারীকে রংপুর চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়েছে।

পিবিআই ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, রংপুর মেট্রোপলিটন এলাকার ময়নাকুঠি কচুটারিতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের এএসআই রায়হানুল ইসলাম। পরিচয়ের সময় রায়হানুল তার ডাক নাম রাজু বলে জানান, ওই ছাত্রীকে। প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে গত ২৩ অক্টোবর শুক্রবার সকালে ওই ছাত্রীকে বেড়াতে নিয়ে যায় রায়হানুল। পরে পূর্ব পরিচিত নগরীর বাহারকাছনা ক্যাদারের পুল এলাকার শহিদুল্লাহ মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া সুমাইয়া পারভীন মেঘলার (২৭) বাড়িতে ডেকে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। পরে ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রী সন্ধ্যায় নিজ বাড়িতে ফিরে এলে তার মা তাকে দেরি করে বাড়িতে ফেরার জন্য গালমন্দ করে তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। এ নিয়ে অভিমান করে ওই ছাত্রী রাত ৯টায় বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পুনরায় সুমাইয়া পারভীন মেঘলার বাসায় এসে আশ্রয় চায়। সেখানে রাত্রীযাপন করে। পরের দিন ২৪ অক্টোবর শনিবার রাতে ওই বাসায় মেঘলা তার বান্ধবি সুরভি আখতার সমাপ্তির সহযোগিতায় দু’জন যুবককে ডেকে এনে টাকার বিনিময়ে ওই ছাত্রীকে তাদের হাতে তুলে দেয়। সেখানে সে গণধর্ষণের শিকার হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে পরদিন ২৫ অক্টোবর রোববার ওই নির্যাতিতা ছাত্রী রায়হানুলকে খুঁজতে শহরে আসে। রায়হানুলকে না পেয়ে সে ভিতসন্ত্র হয়ে রংপুর চিড়িয়াখানায় ঘুরতে থাকে। তাকে দেখে টহল পুলিশের সন্দেহ হলে পুলিশ ওই ছাত্রীকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে তার ওপর নির্যাতনের ঘটনা পুলিশকে জানায়। পুলিশ তাঁকে রোববার অনুমান রাত ১২টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। পরে পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে থানায় মামলা রেকর্ড করেন। পুলিশ রোববার রাত ৮টায় ভাড়াটিয়া বাসা থেকে সুমাইয়া পারভীন মেঘলাকে গ্রেফতার করে। এর পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে গণধর্ষণে সহযোগিতা করার অভিযোগে সুরভি আখতার সমাপ্তিকে সোমবার দুপুরে গ্রেফতার করে। আজ মঙ্গলবার ভোরে লালমনিরহাট থেকে অপর দুই আসামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
সূত্র জানায়, গ্রেফতারকৃত বাবুল হোসেন ও আবুল কালাম আজাদকে রমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধিন ওই ছাত্রীর মুখোমুখি করা হলে ওই ছাত্রী দুই ধর্ষককে শনাক্ত করেছে।
এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পুলিশ সদস্য রায়হানুল ইসলাম ওরফে রাজুসহ দু’জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে হারাগাছ থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। সোমবার মামলাটি হারাগাছ থানা থেকে রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) হস্তান্তর করা হয়।
রংপুর পিবিআই পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন জানান, অধিকতর তদন্তের স্বার্থে রায়হান এখনো পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। তাই তাকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার দেখানো হয়নি। তিনি আরো জানায়, ধর্ষণের ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি না দিলে তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদের প্রস্তুতি চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com