বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন

রংপুর অঞ্চলে আলুর বাম্পার ফলন দামে খুশি চাষিরা  রপ্তানি হচ্ছে বিদেশে 

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল, ২০২৪
  • ২৭ বার পঠিত

রংপুর থেকে হারুন উর রশিদ।- রংপুর নগরীসহ অঞ্চলের ৫ জেলায় প্রত্যাশিত দামের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। জমিতেই চড়া পেয়ে খুশি আলু চাষিরা বেজায় খুশি। আলু তুলেই লাভের মুখ দেখতে পাওয়ায় স্বস্তির ঢেকুর তুলছেন তারা। এবার ভালো দাম ও হিমাগারে ভাড়া বৃদ্ধির আশংকায় জমিতেই আলু বিক্রি করে দিচ্ছেন চাষিরা এমনটাই জানাগেছে বিভিন্ন সূত্রে। তবে হিমাগারে রাখার পর শেষ পর্যন্ত আলুর দাম কেমন মিলবে তা নিয়ে শঙ্কাও প্রকাশ করেছেন আলু চাষি ও ব্যবসায়ীরা।
এদিকে রংপুর নগরীসহ রংপুর অঞ্চলের ৫ জেলায় স্থানীয় চাহিদা পূরণের জন্য আলু জন্য আলু চাষ করতেন চাষিরা। চাহিদার তুলনায় উৎপাদন বেশী হওয়ায় বিপাকে পড়তেন সেসময় চাষিরা। তবে বর্তমানে সেই সমস্যা নেই। আর লোকসানের শঙ্কা নেই। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় উৎপাদন যেমন বাড়ছে, ঠিক তেমনই দামও ভাল পাচ্ছেন চাষিরা। বর্তমানে রংপুরসহ বিভাগের আট জেলার আলু স্থানীয় চাহিদা পূরণের পাশাপাশি রপ্তানি হচ্ছে বিদেশে। আলুর বর্তমানে বড় বাজার তৈরি হয়েছে সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, হংকং, নেপালসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। আরও কয়েকটি দেশে রপ্তানির প্রক্রিয়া শীঘ্রই শুরু হবে বলে জানিয়েছেন ব্যাবসায়ীরা।
সরেজমিনে রংপুর নগরীর তামপাট, দর্শনা, মাহিগঞ্জ, সাতমাথা, বীরভদ্র বালাটারি, কলাবাড়ি, তপোধন, পশুরাম, কেরানিরহাটসহ সদরের জানকি ধাপেরহাট, পালিচড়া, পানবাড়ি, রামজীবন, শ্যামপুর, চন্দনপাট ও তিস্তা নদীবেষ্টিত রংপুরের পীরগাছার ছাওলা, শিবদেব, গাবুড়ার চর, কাউনিয়ার হারাগাছ, টেপামধুপুর, আজমখা, বুড়িরহাট, ভায়ারহাট, গঙ্গাচড়া উপজেলার বিভিন্ন চর ঘুরে দেখা গেছে, কৃষকেরা আলু তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। নারী-পুরুষ ও শিশুসহ দলবেঁধে মনের আনন্দে জমি থেকে আলু তুলছেন। পাইকারেরা ক্ষেত থেকে আলু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। আবার স্থানীয় বাজারে কৃষক নিজে পাইকারি ও খুচরা দুইভাবেই আলু বিক্রি করছেন।চাষিরা বলছেন, চলতি বছর আলুর ফলন বাম্পার হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় রোগবালাই কম হয়েছে। আলুর স্বাস্থ্য, মান ও আকার অনেক ভালো। তবে কিছু স্থানে উৎপাদন কিছুটা কম হলেও চাহিদা ভালো। জমিতেই রকমভেদে প্রতি কেজি আলু ২৮ টাকা থেকে ৩২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রত্যাশিত দামের চেয়ে কয়েকগুণবেশি দাম পাওয়ায় এবার খুশি রংপুর অঞ্চলের আলু চাষিরা।
রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, রংপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও নীলফামারী জেলায় চলতি বছর এক লাখ ৬০২ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। গতবারের চেয়ে এবার তিন হাজার ২৭৫ হেক্টর বেশি জমিতে স্থানীয় ও উফশী জাতের আলুর চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে তিস্তার চরাঞ্চলসহ রংপুর জেলাতেই আলু চাষ হয়েছে প্রায় ৫৪ হাজার হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৬ লাখ ১১ হাজার ৩৫৪ টন। তবে আশানুরূপ দাম ও চাহিদা থাকায় অনেক চাষি পরিপক্ক হওয়ার আগে খেতেই আলু বিক্রি করে দিয়েছেন। ইতোমধ্যে ৬০ ভাগ জমির আলু উত্তোলন হয়েছে বলে সূত্র জানায়।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর অঞ্চলিক উপ-পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, গত বছর রংপুর অঞ্চলের পাঁচ জেলায় আলুর মোট উৎপাদন হয়েছিলো ২৭ লাখ ৩২ হাজার ১৫৪ মেট্রিক টন। এবার এর চেয়ে বেশি আলু উৎপাদন হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
নগরীর তামপাট এলাকার চাষি নুর ইসলাম ও ইছার আলী বলেন, গত কয়েক বছর থেকে আলুর উৎপাদন ভালো হচ্ছে। তবে এবার প্রত্যাশিত দামের চেয়ে চড়া দামে আলু জমিতে বিক্রি হচ্ছে। সেই সাথে সৌদি আরব, মালোশিয়া, নেপাল, হংকং সহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হওয়ায় তারা স্বস্তিতে রয়েছেন। লোকসানের সম্ভাবনা এবার নেই। তবে হিমাগারে রাখার পর শেষ পর্যন্ত আলুর দাম কেমন মিলবে তা নিয়ে শঙ্কাও রয়েছে। তাই জমিতেই আলু বিক্রি করে দিচ্ছেন।
পীরগাছা উপজেলার পারুল এলাকার মনজু আহমেদ ও ফুল মিয়া নামের দুই চাষি বলেন, গত বছরের তুলনায় সার ও ডিজেলের দাম বেশি ছিল। সেই সাথে শ্রমিকের মজুরিও বেড়েছে অনেক। তবে এবার জমিতেই আলুর দাম ভালো পাওয়ায় তারা খুশি।
এবিষয়ে রংপুর জেলা হিমাগার মালিক সমিতির সভাপতি মোছদ্দেক হোসেন বাবলু জানিয়েছেন, রংপুর নগরী জেলায় ৩৯টি হিমাগার রয়েছে। প্রত্যেক বছর আলু উত্তোলন শুরু হবার পরেই হিমাগারে আলু সংরক্ষণ হয়। কিন্তু এবার ব্যতিক্রম। চলতি মৌসুমে চাহিদার কারণে আগাম ও অপরিপক্ব আলু জমিতেই বিক্রি হওয়া করেছেন অনেক চাষিরা। এর ফলে হিমাগারগুলো খালি থাকার আশঙ্কা রয়েছে বলে তিনি মনে করেন ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com