শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন

রংপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম অব্যাহত

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৯৬ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ সোহেল, রংপুর।- রংপুর মহানগরীতে সড়কে নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য কাজ করছে ট্রাফিক পুলিশ। গাড়ী চালক, যাত্রী ও পথচারীদের সচেতন করার লক্ষে লিফলেট বিতরণ, মতবিনিময়সহ নানা রকম প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও সাম্প্রতিক বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসে সচেতনতা মূলক লিফলেট বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছে ট্রাফিক পুলিশ।
রংপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশকে উত্তর ও দক্ষিণ নামে দুইটি ইউনিটকে ভাগ করা হয়েছে। নগরীর ১৪টি পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশ চেকপোষ্ট বসিয়ে চালকের বৈধতা, গাড়ীর লাইসেন্স, হেলমেট, ইন্স্যুরেন্স ও নম্বরবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে আসছে।
ই-ট্রাফিকিং এর মাধ্যমে গত জুলাই থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত এক বছরে ২ কোটি ১০ লক্ষ ৫৫ হাজার ৪শত ৪৪ টাকা জরিমানা আদায় ও ৬০ হাজার ৯৪২ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও ১ হাজার ৬ শত ৫৭ টি যানবাহন আটক ও ৮২টি মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।
এদিকে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের দুই বছর পুর্তিতে ট্রাফিক পুলিশের এমন সাফল্যে তাদের সাধুবাদ জানিয়েছে নগরবাসী।
জানা গেছে, নগরীতে যানজট নিরসন, হেলমেট ব্যবহার, ফুটপাত দখলমুক্ত, জেব্রা ক্রসিং, ওভারব্রীজ দিয়ে পথচারীদের দিয়ে চলাচল, সড়কে চলার সময় মোবাইলে কথা না বলা, মেডিকেল মোড়ের অবৈধ বাসষ্ট্র্যান্ড উচ্ছেদ, সিটি বাজার, জাহাজ কোম্পানী মোড়ের ফুটপাতে অবৈধস্থাপনা উচ্ছেদ, সিএনজি স্ট্যান্ড উচ্ছেদ, নো পার্কিং বোর্ড স্থাপন, লিফলেট বিতরণ, বৃক্ষরোপন, ভাঙ্গা সড়ক মেরামত, সড়কে চাঁদাবাজি বন্ধসহ নানা রকম কাজ করছে রংপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশ।
ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১ বছরে কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আব্দুল আলীম মাহমুদের কাছ থেকে বিভিন্ন পুরুস্কার অর্জন করেন। ফলে সীমিত জনবল ও নানা সীমাবদ্ধতার মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলেছে ট্রাফিক পুলিশ।
এ ব্যাপারে আরপিএমপির ট্রাফিক ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন বলেন, সড়কে চালকগণ নিজের এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানো বন্ধ করতে হবে। তিনি আরোও বলেন, ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আব্দুল আলীম মাহমুদ আমাদের কাজের মূল অনুপ্রেরণা।
রংপুর মেট্রোপলিন পুলিশের উপ- কমিশনার (ট্রাফিক) মো: মেনহাজুল আলম বলেন, মোট ৯৮ জন জনবল ও নানা সীমাবদ্ধতার মধ্য দিয়ে ট্রাফিক পুলিশ এগিয়ে চলছে। সড়কে নিরাপত্তা, চেকপোষ্ট বসিয়ে চালকের বৈধতা, গাড়ীর লাইসেন্স, হেলমেট, ইন্স্যুরেন্স ও নম্বরবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে অভিযান ও নগরীতে যানজট নিরসনের কাজ করছে। যা অব্যাহত রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com