বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন

রসিক নির্বাচনঃ সরগরম নির্বাচনী মাঠ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৫৬ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ।- রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণায় মাঠ সরগরম হয়ে উঠেছে। মেয়র, সংরক্ষিত ও সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীরা চষে বেড়াচ্ছেন ভোটের মাঠ। পোস্টার ছেঁড়া ও অপসারণ, আচরণবিধি লঙ্ঘনের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে। তবে ভোটের মাঠে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তা ও ম্যাজিস্টেট থাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।
এবারের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী অংশ না নেয়ায় বিএনপি-জামায়াতের ভোট, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়সহ নতুন ভোটারদের ভোট ও বর্ধিত এলাকার উন্নয়ন ও অটো রিকশার লাইসেন্স দেয়া না দেয়া নিয়ে চাপা ক্ষোভ রয়েছে। একারণে তাদের ভোট কার পক্ষে যাচ্ছে তা অনুমান করা যাচ্ছে। জাতীয় পার্টির প্রার্থী সদ্য সাবেক মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা এগিয়ে থাকলেও বেশ বেকায়দায় রয়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এ্যাড. হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া। কারণ হিসাবে বলা হচ্ছে, দলের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল, প্রার্থীর পক্ষে নেতাকর্মীদের গা-ছাড়া ভাব ও বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় এমনটা লক্ষ্য করা গেছে। তবে সব মিলিয়ে নির্বাচনের দিন যতই আসছে ততই সরগরম হয়ে উঠেছে নির্বাচনী মাঠ। প্রার্থী ও ভোটাররা করছে ভোটের নানা হিসেব নিকেষ বিশ্লেষণ।
কর্মসংস্থান না থাকলে যানজট নিরসন হবে কিভাবে প্রশ্ন মোস্তফার: জাতীয় পার্টির লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী ও সদ্য বিদায়ী মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেছেন,রংপুরে বিকল্প কোন কর্মসংস্থানের সুযোগ না থাকায় মানুষ একটা রিকশা বা ভ্যান চালিয়ে সংসার চালায়। তাই যানজটকে হঠাৎ করে রোধ করার কোন সুযোগ নেই।গতকাল রোববার দুপুরে যানজট ও জলাবদ্ধতা নিরসনে তার নেয়া উদ্যোগ নিয়ে সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের উত্তরে তিনি এসব কথা বলেন। মোস্তফা বলেন,’ যানজট একটা জাতীয় সমস্যা। এটা নিরসনে হুট করে আকাক্সক্ষার লেভেল ছোঁয়া যাবেনা।যানজট রিলেশন করতে হলে আপনাকে বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। আমি যতই বলি না কেন, পেটে খিদা থাকলে বা বাচ্চা কানের কাছে কান্নাকাটি করলে জীবন বাঁচার তাকিদে কেউ একটা রিক্সা বা অটোর হ্যান্ডেল ধরে। আমাদের এখানে গ্যাস সংযোজন হচ্ছে তখন কলকারখানা, ইন্ডাস্ট্রি হবে তখন বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হলে যানজট অটোমেটিক্যালি কমে যাবে।তিনি বলেন, একটা রিংরোডের মধ্য দিয়ে রংপুর শহরের যোগাযোগ ব্যবস্থা। একটি রিং রোডের মধ্য দিয়ে বিভাগীয় শহরের যোগাযোগ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে গিয়ে যানজট নিরসন করা খুবই কঠিন কাজ। এরপরেও বিভিন্ন বাইপাস সড়ক নির্মাণ করে যানজট নিরসনে পরিকল্পনা রয়েছে।ল²ী সিনেমা হলের পাশ দিয়ে একটি বাইপাস সড়ক নির্মান ও শ্যামা সুন্দরী খালের উপর দিয়ে ওভারপাস বা ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হলে রংপুর শহরের যানজট অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসবে বলেও জানান তিনি। এসময় রংপুর সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভার জমি বিক্রি করে খাওয়ার যে ইতিহাস ছিল তা থেকে বেরিয়ে এসেছি বলে মন্তব্য করেছেন সিটি কর্পোরেশনের সদ্য বিদায় মেয়র ও লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান ও মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির,সিনিয়র সহ-সভাপতি লোকমান হোসেন,সহ-সভাপতি জাহেদুল ইসলাম, জেলা জাপার সদস্য সচিব হাজী আব্দুর রাজ্জাক,নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আইন সম্পাদক এডভোকেট সৈয়দ ফারুক আলম,মহানগর ছাত্রসমাজের সভাপতি ইয়াসিন আরাফাত আসিফ,জেলা আহবায়ক আরিফুল ইসলামসহ জাতীয় পার্টি নেতৃবৃন্দ। এর আগে নগরীর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন।
নৌকা মার্কা বিজয়ী হলে প্রত্যাশিত উন্নয়ন সম্ভব হবে: রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নৌকার পাল তুলতে কেন্দ্রীয় ৩ নেতা রংপুরে অবস্থান করছেন। নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিতে তারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন। আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাদের সাথে নিয়ে তারা নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছেন। কেন্দ্রীয় নেতারা মনে করছেন এবার রংপুরবাসি মেয়র হিসেবে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করবেন। প্রচারণা কালে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী সারাদেশের মতো রংপুরেও উন্নয়ন করেছেন। উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় রংপুর বিভাগ, সিটি করপোরেশন, বিশ্ববিদ্যালয়, ছয় লেন সড়ক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগসহ সবখাতেই উন্নয়ন করেছেন। শুধু রংপুর সিটি করপোরেশনে নৌকার প্রতিনিধি না থাকায় কাঙ্খিত উন্নয়ন হয়নি। এবার নৌকা মার্কা বিজয়ী হলে প্রত্যাশিত উন্নয়ন সম্ভব হবে। আশা করি জনগণ এবার নৌকা মার্কাকে বিজয়ী করবেন।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, নৌকা মার্কা প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগে অংশ নিতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, সাখওয়াত হোসেন শফিক, ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত কুমার নন্দি শনিবার থেকে রংপুরে অবস্থান করছেন। তারা আরও ৩/৪ থাকবেন। গত শনিবার রাতে তারা নগরীর ১৬,১৭ ও ৮ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় নৌকা মার্কার পক্ষে প্রচারণা চালান। গতকাল রোববার মেডিকেল পাকারমাথা এলাকাসহ বিভিন্নস্থানে গণসংযোগ করেন।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রসিক নির্বাচনকে সামনে রেখে মেয়র পদে মনোনয়ন পাওয়ার প্রত্যাশায় আওয়ামী লীগের ৬/৭ জন মনোনয়ন প্রত্যাশি দীর্ঘদিন থেকে মাঠে প্রচারণা চালিয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশিরা বিভিন্ন সভা সমাবেশ করে জনগণের কাছে নিজেকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে তুলে ধরেছেন। এসব নেতাদের সকলেরই আশা ছিল তাদের মধ্যে কেউ মনোনয়ন পাবেন। কিন্তু দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে অ্যাড হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়াকে মনোনয়ন দেন। ফলে মনোনয়ন বঞ্চিতদের অনেকেরই মাঝে গাছাড়াভাব লক্ষ্য করা যায়। এসব নেতাদের মনবল চাঙ্গা ও কর্মীদের মাঠ পর্যায়ে কাজে নামানোর অনুপ্রেরণা দিতেই কেন্দ্রীয় নেতারা রংপুরে এসেছেন।
পোস্টার ছেঁড়া ও অপসারণের অভিযোগ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মিলনের: রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে পোস্টার ছেঁড়া ও অপসারণের অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার লতিফুর রহমান মিলন। তিনি গতকাল রোববার দুপুরে তার নির্বাচনি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে লাঙল প্রতীকের মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, কৃষিভিত্তিক আধুনিক নগরী গড়তে পরিবর্তনের অঙ্গিকার নিয়ে হাতি প্রতিকে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। তাতে ব্যাপক সাড়া দিচ্ছে নগরবাসী। কয়েকদিন ধরে রাতের বেলা তার পোস্টার এবং পোস্টারের মালার সুতলি কেটে দিচ্ছে। অপসারণ করা হচ্ছে। এতে প্রায় ১০ হাজার পোস্টার নষ্ট হয়েছে। এ বিষয়ে অভিযোগের তীর তার নির্বাচনে প্রধান প্রতিপক্ষ লাঙ্গল প্রতিকের বিরুদ্ধে। লাঙ্গল প্রতিকের মেয়র প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা এ কাজটি করতে পারেন বলে ধারণা তার। তিনি আরো বলেন, এ বিষয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। অভিযোগের পর এখনও দৃশ্যমান কোন একশন নেয়া হয় নাই। তবে নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে উদ্যোগ নিবেন এবং সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পুন্ন হবে প্রত্যাশাও করেন তিনি।
এদিকে জাতীয় পার্টি মনোনিত মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, লতিফুর রহমান মিলনকে কাউন্ট করার সময় আছে। কি দরকার অন্যের পোষ্টার ছেঁড়া কিংবা অপসারণের। এটি ভিত্তিহীন মিথ্যা অভিযোগ। এ বিষয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন জানান, আমরা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সুনির্দিষ্ট কারো নামে অভিযোগ নেই। তবে বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে দেখছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com