বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

রাজধানীর বনানী কবরস্থানে সমাহিত হলেন কবরী

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৫০ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক।- চলচ্চিত্রের সোনালি যুগ ষাট ও সত্তরের দশকের অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা কবরী করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৬ এপ্রিল/২১ খ্রি: শুক্রবার রাত ১২টা ২০ মিনিটে মহাখালীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। ১৭ এপ্রিল/২১ খ্রি: শানিবার বাদ জোহর তাঁর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। তাকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হয়েছে। এর আগে কবরস্থান প্রাঙ্গণে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয় এবং মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা রাখায় তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। কবরীর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে শোক প্রকাশ করেছেন, জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদের, মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, শোক প্রকাশ করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র মজুমদারসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। জানা যায়, খুসখুসে কাশি আর জ্বরে ভুগলে তাঁর করোনা পরীক্ষায় ৫ এপ্রিল পজিটিভ ধরা পড়ে। ওই দিন রাতেই তিনি কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি হন। এরপর ৭ এপ্রিল অবস্থার অবনতি ঘটলে চিকিৎসকরা আইসিইউর প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন।কিন্তু কুর্মিটোলায় আইসিইউ না পেয়ে মহাখালীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়।৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার থেকে ১৪ এপ্রিল বুধবার পর্যন্ত তিনি হাসপাতালটির আইসিইউতে ছিলেন। দ্রুত অবস্থার অবনতি হওয়ার পর ১৫ এপ্রিল তাঁকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। আর সে অবস্থাতেই শুক্রবার রাত ১২টা ২০ মিনিটে তিনি মারা যান। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। উল্লেখ্য কবরী ১৯৫০ সালের ১৯ জুলাই চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর শৈশব, কৈশোর ও বেড়ে ওঠা চট্টগ্রাম মহানগরে। তার পারিবারিক নাম মিনা পাল। বাবা কৃষ্ণদাস পাল এবং মা লাবণ্যপ্রভা পাল। ১৯৬৩ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে তিনি নৃত্যশিল্পী হিসেবে মঞ্চে কাজ শুরু করেন। আর ১৯৬৪ সালে ১৪ বছর বয়সে সুভাষ দত্তের ‘সুতরাং’ ছবির মধ্য দিয়ে সিনেমার জগতে তাঁর পথচলা শুরু। এরপর উর্দু ভাষার ‘বাহানা’ ও ‘সোয়ে নদিয়া জাগে পানি’তে অভিনয়ের পর ’৬৮ সালে ‘সাত ভাই চম্পা’র সফলতায় তাঁকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। ওই বছরই ‘আবির্ভাব’ চলচ্চিত্রে নায়করাজ রাজ্জাকের সঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে অভিনয় শুরু করেন। ময়নামতি (১৯৬৯), নীল আকাশের নিচে (১৯৬৯), ক খ গ ঘ ঙ (১৯৭০), দর্পচূর্ণ (১৯৭০), কাচ কাটা হীরে (১৯৭০), দীপ নেভে নাই (১৯৭০), স্মৃতিটুকু থাক (১৯৭১), রংবাজ (১৯৭৩) ইত্যাদি চলচ্চিত্রের ধারাবাহিক সফলতায় দর্শকপ্রিয় জুটির তকমা পায় রাজ্জাক-কবরী জুটি। পরে ফারুকের সঙ্গে ‘সুজন সখী’ (১৯৭৫) ও ‘সারেং বৌ’ (১৯৭৮) ছবির সফলতায় এ দেশের চলচ্চিত্রে অনন্য ইতিহাস সৃষ্টি করেন কবরী। আর সেই থেকেই কবরী-ফারুক জুটি সিনেমার রুপালি পর্দায় একটি অনন্য ও জনপ্রিয় জুটির কাতারে উন্নীত হয়। তিনি ষাট ও সত্তরের দশকে অন্যতম জনপ্রিয় নায়িকা ছিলেন।কবরী অভিনিত ‘সুতরাং’ চলচ্চিত্রটি তাশখন্দ চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয় এবং ’৬৫ সালে ফ্রাঙ্কফুর্ট চলচ্চিত্র উৎসবে দ্বিতীয় শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে পুরস্কৃত হয়। অভিনয়ে বিশেষ অবদানের তিনি বহু পুরস্কার অর্জন করেছেন। তাঁকে ২০১৯ সালে বাংলাদেশ প্রতিদিন আজীবন সম্মাননা দেয়। ‘লালন ফকির’, চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ১৯৭২ সালে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে বাচসাস পুরস্কার অর্জন করেন তিনি। এরপর সাহিত্যনির্ভর ‘তিতাস একটি নদীর নাম’-এর রাজার ঝি চরিত্রে ১৯৭৩ সালে এবং ‘সারেং বৌ’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ১৯৭৮ সালে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও বাচসাস পুরস্কার অর্জন করেন। এ ছাড়া ‘সুজন সখী’ (১৯৭৫) ও ‘দুই জীবন’ (১৯৮৮) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য আরও দুটি বাচসাস পুরস্কার অর্জন করেন। তাঁর অভিনীত ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ ও ‘সাত ভাই চম্পা’ চলচ্চিত্র দুটি ব্রিটিশ ফিল্ম ইনস্টিটিউটের সেরা ১০ বাংলাদেশি চলচ্চিত্র তালিকায় যথাক্রমে প্রথম ও দশম স্থান লাভ করে।এদিকে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামে চলে যান কবরী। এরপর কলকাতায় গিয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত সৃষ্টি করতে বিভিন্ন সভা-সমিতি ও অনুষ্ঠানে বক্তৃতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি রাজনীতিতেও সক্রিয় ছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে ২০০৮ সালে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে কবরী জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০১৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৭ সালের অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হয় তাঁর আত্মজীবনীমূলক বই ‘স্মৃতিটুকু থাক’। কবরী প্রথম বিয়ে করেন চিত্ত চৌধুরীকে। সে বিয়ের বিচ্ছেদের পর ১৯৭৮ সালে সফিউদ্দীন সরোয়ারকে বিয়ে করেন। ২০০৮ সালে সে বিয়েও ভেঙে যায়। কবরী পাঁচ সন্তানের মা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com