শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ অপরাহ্ন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন যা মনে করেন !

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ১৪১ বার পঠিত

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দাবি করছেন, তার দেশে সোভিয়েত ইউনিয়ন আমলে এমন সংবিধান ছিল যে, তার ধীরগতির মনোভাব দেশকে ধ্বংসের দিকে ফেলে দিয়েছিল। সোভিয়েত ইউনিয়নের দুঃখজনক পরিণতির কারণ ছিল এটাই। আর তা আটকাতেই সংবিধান সংশোধন করা হলো। এই পরিবর্তন সঠিক। সম্প্রতি রাশিয়ার সরকারি এক নম্বর টিভি চ্যানেলকে দেওয়া তার সাক্ষাৎকারে তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের প্রসঙ্গ তুলে এমন কথা বলেছেন। পুতিনের বক্তব্য, গণতন্ত্র রক্ষার জন্য সংবিধানের এই পরিবর্তন জরুরি ছিল। যে সংবিধান বিশেষ একটি শ্রেণিকে তাদের নিজেদের ও কমিউনিস্টদের ভাগ্যকে গোটা জাতির ভাগ্যের সঙ্গে জুড়ে দেওয়ার অনুমতি দেয় তা বিলম্বিত মনোভাব ছাড়া আর কিছু নয়। কাজেই তার থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য সংবিধান সংশোধন ছাড়া অন্য কোনো উপায় ছিল না।
সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট পুতিন রাশিয়ার সংবিধান পরিবর্তনে গণভোট শেষ করেছেন। সেই পরিবর্তনে কারণেই এখন ২০৩৬ সাল পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় থাকতে পারবেন। সংবিধানের পরিবর্তনের ওপর অনুষ্ঠিত গণভোটে জনগণ পুতিনের অনুকূলে ভোট দিয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, ভ্লাদিমির পুতিন এ সংশোধনীর মাধ্যমে মূলত আজীবন ক্ষমতায় থাকার ব্যবস্থা পাকাপোক্ত করেছেন। অবশ্য রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট এই বিষয়টিকে ব্যক্তিগত স্বার্থক্ষার হাতিয়ার হিসেবে দেখতে নারাজ। তিনি সাক্ষাৎকারে উল্লেখ করেছেন, ১৯৭৭ সালের সংবিধানে সরকারের সব কাজ কমিউনিস্ট পার্টির নিয়ন্ত্রণে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল এবং পার্টির হাত থেকে অন্য কারও কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের কোনো সুযোগ ছিল না। তার জেরে কমিউনিস্টরা তাদের ভাগ্যকে জাতির ভাগ্যের সঙ্গে জুড়ে দিয়েছিল।
প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এর বয়স এখন ৬৭, তিনি ২০ বছর যাবৎ ক্ষমতায় আছেন । এবার আরও ১২ বছর ক্ষমতায় থাকার দলিলে ৩ জুলাই সই করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com