রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন

লেখক পরিচিতি

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৬৭ বার পঠিত

আজকের লেখকঃ মুহাম্মদ ইমদাদ হোসেন

কনক আচার্য । – এই সময়ে অনলাইন অফলাইনে অতি পরিচিত মুখ, নন্দিত ছড়াকার কবি গল্পকার, অনলাইন এবং প্রিন্ট পত্রিকায় যিনি নিয়মিত লিখছেন,তিনি মুহাম্মদ ইমাদদ হোসেন।জাতীয় এবং আঞ্চলিক পত্রিকা-ম্যাগাজিনে যার এক বা একাদিক লেখা প্রকাশিত হয় প্রায় প্রতিদিন । তার সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিতে চাই আজকে। মুহাম্মদ ইমাদদ হোসেন, জলজ্যোৎস্নার শহর খ্যাত হাওর বিল নদী বেষ্টিত প্রাকৃতিক লীলাভভূমি ভাটির জনপদ সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলাধীন পশ্চিম পাগলা উইনিয়নে মহাসিং নদী তীরে “রায়পুর” গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ০৮ জুন/১৯৭৭ খ্রিষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম:- মোঃ আসকর আলি, মাতার নাম:- মৃতঃ- শরিফুন নেছা। তিন ভাই ও চার বোনের মাঝে তিনি ষষ্ট।
মুহাম্মদ ইমদাদ হোসেন ছোট বেলায় খুব দুরন্ত এবং স্কুলের লেখাপড়ায় একদম অমনোযোগি থাকলেও মাদ্রাসায় ভর্তি হওয়ার পর লেখাপড়ায় খুব মনোযোগি হোন, এবং অত্যন্ত সুনাম এবং কৃতিত্বের সাথে মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেন। একজন আলেম হওয়ার স্বপ্ন লালন করে লেখাপড়া করতে থাকলেও ভাগ্যের নির্মম পরিহাস সে আশা পুরণ হয়নি তার। কওমি মাদ্রাসায় দ্বাদশ শ্রেনীতে লেখাপড়াকালীন ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দে অনাকাংখিত কারণে পড়ালেখার সমাপ্তি ঘটে। তার লেখায় ফুটে উঠে ধর্মের কথা, সমাজ জাতি এবং দেশের কথা, ফুটে উঠে আর্তমানবতার কথা। সহজ এবং শালীন ভাষায় যিনি ছড়া কবিতা গল্প প্রবন্ধ নিবন্ধ সহ শিক্ষনীয় অনেক কিছু লিখেন। লিখেন প্রেম-বিরহ প্রতিবাদ এবং দ্রোহের লেখাও। লিখেন সমসাময়ীক অনেক কিছু।
লেখালেখি শুরু সেই ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দ থেকে। দৈনিক সাপ্তাহিক মাসিক পত্রিকা- ম্যাগাজিনের সাহিত্য বিভাগে লেখা পাঠান নিয়মিত। প্রকাশও হয় প্রায়ই। প্রথম লেখা প্রকাশিত হয় “মাসিক তৌহিদী পরিক্রমা” জানুয়ারি/১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দ সংখ্যায়। পরবর্তিতে অন্যান্য পত্রিকা-ম্যাগাজিনে লেখা প্রকাশিত হয় প্রায় নিয়মিত। লেখালেখির পাশাপাশি ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দে গঠন করেন “কলমি বন্ধু সাহিত্য সংসদ” নামে একটি সাহিত্য সংগঠন। সংগঠনের ব্যানারে নিজের সম্পাদনায় বের করেন চেতনা, প্রেরণা, আনন্দ, আলোড়ন ইত্যাদি নামে কয়েকটি সাহিত্য সাময়িকি। নিয়মিত চলে লেখালেখি, সাধ্য মতো সাহিত্য চর্চা। সম্পৃক্ত হোন সাহিত্য সংস্কৃতি এবং সামাজিক উন্নয়ন মূলক নানা কাজে। ২০০১ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত হয় তার প্রথম একটি কবিতার ছোট বই (পকেট সাইজ বই) “মেঘ এসে ছোঁয়ে ছোঁয়ে যায়”।লেখালেখি ছাড়াও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং উন্নয়ন মুলক কাজে তার রয়েছে সরব উপস্থিতি। বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার সাথে রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক, এবং পরিচালনার সাথে রয়েছেন সম্পৃক্ত। কিন্তু প্রয়োজনের তাগিদে কর্মজীবনের ব্যস্ততার কারণে ২০০২ খ্রিষ্টাব্দে লেখালেখি থেকে ছিঁটকে পড়েন। দূরে চলে যান সাহিত্য জগত থেকে। থমকে যায় কলম। সময় চলে যায়, কেটে যায় একটি যুগ। তারপর ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ফেসবুক জগতে আসার পর আবার শুরু হয় লেখালেখি। ধীরেধীরে ফের মনোযোগি হোন লেখালেখিতে। নিয়মিত নিজের ওয়াল, বিভিন্ন গ্রুপ, এবং পেইজ, দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক জাতীয় এবং আঞ্চলিক প্রিন্ট এবং অনলাইন পত্রিকা-ম্যাগাজিনে লেখালেখি চলে পুরোদমে, আর প্রকাশিত হতে থাকে নিয়মিত প্রায় প্রতিদিন এক বা একাদিক লেখা বিভিন্ন পত্রিকা-ম্যাগাজিনে। ইতোমধ্যে কয়েকটি যৌথ গ্রন্থ সহ ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত হয় ২য় একক গ্রন্থ (ছড়ার প্রথম বই)
“ছড়ার আলো ছড়াক আলো”।
কর্মজীবনে এই লেখক প্রথমে ব্যবসা করেন কয়েক বছর। তারপর ২০০৪ খ্রিঢটাব্দ থেকে একটি বেসরকারি প্রতিষ্টানে মাঠকর্মি হিসাবে চাকরি করছেন । পাশাপাশি করে চলেছেন সাধ্যমতো সাহিত্য চর্চা, সামাজিক সাংস্কৃতিক কাজে অংশগ্রহণ সহ অন্যান্য কাজ।
পারিবারিক জীবনে তিনি ৩ সন্তানের জনক। বিয়ে করেন ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দে জানুয়ারিতে। স্ত্রী-সন্তান পিতা এবং একবোন নিয়ে তার ছোট্ট পরিবার।

মুহাম্মদ ইমদাদ হোসেনের সর্বোচ্চ প্রিয়ব্যক্তিত্ব প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মাদ (সা:), তারপর পিতা-মাতা। প্রিয় রঙ সাদা, নিল। প্রিয় ফুল গোলাপ। প্রিয় শখ লেখালেখি।ম্হুাম্মদ ইমদাদ হোসেনের আগামির স্বপ্ন নিজের লেখাগুলোর মাধ্যমে মানবতার সেবা করা।দেশ জাতি এবং সমাজকে ভালো কিছু উপহার দেয়া। নিজের লেখাগুলোর মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে একটা স্থান করে মানুষের মাঝেই বেঁচে থাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com