বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০৪ পূর্বাহ্ন

শেরপুরে ভেজাল খাদ্যের কারখানার সন্ধান: চমকপ্রদ মোড়কে সরবরাহ হচ্ছে ভেজাল খাদ্য

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৬ নভেম্বর, ২০২০
  • ১১৫ বার পঠিত

উত্তম সরকার, বগুড়া প্রতিনিধি।- নেই কোন বিএসটিআইয়ের নিবন্ধন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র। নেই কোন অগ্নিনির্বাপকের সনদ ও ট্রায়াল ব্যাসেজে খাদ্য প্রস্তুতে বিসিক নিবন্ধন এবং মাননিয়ন্ত্রনের নূন্যতম ব্যব¯’া। নোংরা-অস্বা¯’্যকর পরিবেশে তৈরী হচ্ছে তাল মিশ্রি, সুজি, আটা, চাল, জুস ও বিভিন্ন ভেজালযুক্ত শিশু খাদ্যসহ প্রায় অর্ধ শতাধিক পণ্য। এসব পণ্য বাজারজাতকরণে দেশের সুনামধন্য প্রতিষ্ঠানের সাথে তাল মিলিয়ে ব্যবহার করা হচ্ছে চমকপ্রদ ও লোভনীয় মোড়ক। এমন এক অবৈধ ভেজাল খাদ্য তৈরীর কারখানার সন্ধান মিলেছে বগুড়ার শেরপুরের খন্দকারটোলা এলাকায়। রুদ্র ফাউন্ডেশন নামের সামাজিক প্রতিষ্ঠানের আদলে ফুড প্রোডাক্টস নামের ওই অবৈধ কারখানায় উৎপাদিত খাদ্য এবং মোড়কজাত শিশু খাদ্য প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হচ্ছে। এসব পণ্য খেয়ে নানারকম রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বেশিরভাগ শিশু ও বৃদ্ধসহ নানা বয়সী মানুষ হচ্ছে বলে দাবী করেছে চিকিৎসকরা। তবে উপজেলা প্রশাসন ও বিএসটিআই সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের পক্ষ থেকে উল্লেখযোগ্য ব্যবস্থাপনা নেওয়ায় এ কারখানার মতো বিভিন্ন লুক্কায়িত স্থানে নামে-বেনামের অবৈধ কারখানা গড়ে উঠেছে, ভেজাল খাদ্যে শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সাধারণ মানুষ এবং অবৈধভাবে অর্থ কামিয়ে রাতারাতি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের মালিকরা কোটিপতি বনে যাচ্ছে বলে দাবী করেছেন সচেতন মহল।

সরেজমিনে উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নের খন্দকার টোলা মাজারের উত্তর পার্শ্বে লুকায়িত স্থানে রুদ্র ফুড প্রোডাক্টস এর কারখানায় গিয়ে এসব চিত্র দেখা গেছে। নেই কোন সাইনবোর্ড, তবে বাহিরে থেকে বোঝার উপায় না থাকলেও টিনের বেড়ার আড়ালে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে গড়ে তুলেছে অবৈধ ভেজাল পণ্য তৈরীর কারখানা। কারখানার ভেতরে প্রবেশেই চোখে পড়ে নোংরা একটি গাদযুক্ত গামলার ভেতরে রাখা মিশ্রি(তালমিশ্রি) মোড়কজাত করা হচ্ছে। পাশেই পরে আছে জাল দেয়া চিনির গাদ থেকে দুর্গন্ধযুক্ত ছড়াচ্ছে। অন্য কক্ষে চলছে নোংরা চাল, আটা ও সুজি চমকপ্রদ মোড়কজাতকরন। কারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের হাতে নেই গ্লাভস  ও মুখে নেই মাস্ক। ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকা ভেজাল পণ্য তৈরীর কাজে ব্যবহৃত কাঁচামালগুলোর মধ্যে(চিনি, মিশ্রি, চানাচুর, চাল, সুজি উপর দিয়ে খালিপায়ে চলাচল করছে নিয়োজিত শ্রমিকরা। অন্যদিকে শিশু শ্রম আইনের প্রতি তোয়াক্বা না করেই – রহমত আলী (৯) একাধিক শিশুদের দিয়েও কাজ করানো হচ্ছে এই কারখানায়। কারখানায় নোংরা-ময়লা নি¤œমানের মিশ্রি, চানাচুর, সরিষার তেল, জান্নাত ফ্রুটো জুস, চাল, সুজিতে মানহীন কেমিক্যাল ব্যবহার করে প্রতিদিন প্যাকেটজাত করা হচ্ছে শতশত মন খাদ্য সামগ্রী। এসব পণ্যের প্যাকেটে বা মোড়কে যাতে ইচ্ছেমত লাগানো উৎপাদন ও মেয়াদ উত্তীর্ন তারিখ। আর প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে এভাবেই সরবরাহ করা হচ্ছে সারা বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায়।

এসব বিষয়ে প্রতিবেশিরা জানান, কাশমিরি চিনিগুড়া নামক চাল, সুজি, মিশ্রি মোড়কজাতের সময় এখানে কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয় এবং এই কোম্পানির আরেকটি কারখানার কিছু কেমিক্যালও এখানে আনা-নেওয়া করতে দেখা যায়। যখন কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয় তখন আশেপাশে গন্ধ ছড়িয়ে পরে এবং খাদ্যে ব্যবহিত বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যালগুলো তালা লাগানো ওই ঘরেই রাখা হয়।

কারখানা কাছের প্রতিবেশি আয়নাল হক জানান, আমার বাড়ির ভেতরে আগে কেমিক্যাল মেশানো পানি গড়ে আসত এবং খুব দুর্গন্ধ সৃষ্টি হতো, পরবর্তীতে কারখানায় অনেকবার অভিযোগ জানানোর পর অন্য দিক দিয়ে পানি গড়ানো হয়।

ওই রুদ্র ফুড প্রোডাক্টের কোম্পানির আরেকটি কারখানা একই ইউনিয়নের খন্দকারটোলা দক্ষিণ পাড়া এলাকায়। সেখানেও একই ভাবে নোংরা পরিবেশে অনুমোদন ছাড়াই তৈরী ও প্যাকেটজাত করা হচ্ছে বিভিন্ন নামীয় ভেজাল সরিষার তেল, “জান্নাত ফ্রুটো নামক ভেজাল জুস, চানাচুর, লাচ্চা-সেমাই, মরিচগুড়া, হলুদগুড়া, বিভিন্ন মুখরোচক খাবারসহ সর্বমোট ৫১ টি আইটেম। নি¤œমানের ডালডা আর পোড়া তেল দিয়ে তৈরী হচ্ছে শিশু খাদ্য ও অন্যান্য মুখরোচক খাদ্য। আর নি¤œমানের রং ও কেমিক্যাল মিশিয়ে তৈরী হচ্ছে হুবহু প্রাণ ফ্রুটোর মতো জান্নাত ফ্রুটো জুস। তবে ওই কারখানায় প্রবেশের ব্যাপারে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। দীর্ঘদিন যাবৎ এই ধরনের কারখানাগুলোতে নাম মাত্র ভেজাল বিরোধী অভিযান করায় যত্রতত্র গড়ে ওঠা কোম্পানির মালিকরা এভাবে বেপরোয়াভাবে মানহীন খাবার তৈরী করে বাজারে সরবরাহ করছে।

এসব বিষয়ে রুদ্র ফাউন্ডেশন ও রুদ্র ফুড প্রোডাক্টস এর মালিক মোঃ রঞ্জু সরকারের সাথে কথা বললে তিনি জানান, মিশ্রি, ভেজাল জুস, সরিষার তেল ও অন্যান্য বাচ্চাদের মুখরোচক খাদ্য তৈরী এবং মোড়কজাত করা হয় যার কোনো অনুমোদনের প্রয়োজন নেই। তবে লাচ্চা-সেমাই, সরিষার তেল, চানাচুর, ঝালমুড়ি ও অন্যান্য খাদ্য সামগ্রী যা নাকি বিএসটিআই অনুমোদিত বলে দাবী করলেও তার স্বপক্ষে তেমন কোনো কাগজপত্র ডকুমেন্ট দেখাতে পারেননি ওই প্রতিষ্ঠানের মালিক। তাছাড়া এসব পণ্য আমি গত দের বছর যাবৎ ট্রায়াল ব্যাসেজে তৈরী ও মোড়কজাত করা হচ্ছে। একপর্যায়ে শেরপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির বড় ভাই পরিচয় দিয়ে তিনি আরো বলেন, আমার প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের বিভিন্ন কর্তা ব্যক্তিরাই অবগত রয়েছেন।

ভেজাল খাদ্যে মানবদেহে ক্ষতিকর প্রতিক্রিয়া জানতে বগুড়া “শজিমেক” হাসপাতালের ইর্মাজেন্সি মেডিকেল অফিসার এস.এম. জাহিদুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এই ধরনের নোংরা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরী হওয়া ভেজাল ও নি¤œমানের কেমিক্যাল ব্যবহৃত খাদ্য খেয়ে প্রথমত বাচ্চাদের কিডনির সমস্যা দেখা দিতে পারে। এছাড়াও সব বয়সী মানুষের ডায়রিয়া, ক্যান্সার সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

এ প্রসঙ্গে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: লিয়াকত আলী সেখের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করলেও, তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com