বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

সংকট নিরসনে ‘সহনশীলতা ও মধ্যমপন্থা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৪ বার পঠিত
আজগারুল ইসলাম।-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারা দেশে বর্তমানে যে চেতনাগত সংকট চলছে আমার কাছে তার অন্যতম প্রধান কারণ বলে মনে হয় চিন্তাগত সংকীর্ণতা এবং সহনশীলতার অভাবকে।সবখানেই আমরা একটা আলাদা সত্ত্বার আবির্ভাব ঘটাতে চাই। কোনো কিছুকেই যেন আমরা সর্বজনীন হিসাবে কল্পনা করতে পারিনা।
ছোট্ট দুয়েকটি উদাহরণ দেই, রজনীকান্তের একটি গান আছে “তুমি নির্মল করো,মঙ্গল করে” শিরোনামে। গানটি একটি প্রার্থনামূলক গান। কিন্তু আমাদের মুসলিম সম্প্রদায় গানটি হিন্দুদের জন্য খাস করে দিয়েছেন । যদি কোনো মুসলিমের সামনে এটি গাওয়া হয় তো সাথে সাথে একথা শুনতে দেরি হয় না যে, ছি! ছি! এগুলো কি?  যদি প্রশ্ন করা হয় কেন এটাতে সমস্যা কোথায়?তো বলা হয় এটির মধ্যে হিন্দুয়ানী শব্দ রয়েছে।  তো আমার কথা হলো শব্দ আবার হিন্দুয়ানী,মুসলমানি হয় কেমনে? আল্লাহ কুরআনে বলেছেন, “আল্লামাহুল বায়ান” অর্থাৎ আল্লাহ তার বান্দাকে ভাষা শিখিয়েছেন। সবাইকে ভাষা তো আল্লাহই শিখিয়েছেন তাহলে ভাষা আবার হিন্দুয়ানী হয় কেমনে? আবার বলা হয় যে এটির মধ্যে “শ্রী-চরণ” কথাটি আছে এটি দ্বারা শ্রীকৃষ্ণের চরণকে বোঝানো হচ্ছে। আরে ভাই, হিন্দুরা যদি শ্রীচরণ দ্বারা কৃষ্ণের চরণকে বোঝেন তবে আমি শ্রীচরণ দ্বারা আমার আল্লাহর চরণকে কল্পনা করতে দোষ কোথায়?
নজরুলের “খেলিছো এ বিশ্বলয়ে” গানটিকে আমরা হিন্দুদের জন্য নির্দিষ্ট করে দিয়েছি। তারা ঠিকই সেটাকে প্রার্থনা হিসাবে গ্রহণ করতে পেরেছেন কিন্তু আমরা তা পারি নাই।
আমরা সর্বদা বিভেদে বিশ্বাসী। আমরা একমন, একপ্রাণ হতে পারি না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনে বটতলায় কুরআন তেলাওয়াত প্রোগাম হলে কি সমস্যা? সেখানে পূজা হলে কি সমস্যা? যেখানে কুরআন তেলাওয়াত হবে একই সাথে সেই জায়গাতেই গীতাপাঠ করা হবে, সেখানেই ত্রিপিটক পাঠ হবে,সেখানেই জেন্দাবেস্তা পাঠ হবে। মসজিদ, মন্দির,গীর্জা,প্যাগোডা একটার গায়ের সাথে আরেকটা লেগে থাকবে এবং সেখানে যে যার মতো করে স্ব স্ব ধর্ম পালন করবে।
ইফতার মাহফিলে কেন হামলা করা হবে? কেন মন্দিরে হামলা হবে? কেন মসজিদের মীনারে হাঁতুড়ি চালানো হবে?
হাদীসে রাসুল সা: মধ্যমপন্থা গ্রহণের উপর জোর দিয়েছেন যার আরবি পরিভাষা হচ্ছে ‘উসতাহ’। কোনো বিষয়েই কট্টরপন্থা অবলম্বন করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এমনকি গৌতমবুদ্ধও মানবের নির্বাণ লাভের জন্য যে কয়টি পন্থা অনুসরণের প্রতি জোর দিয়েছেন ‘মঝ্ঝিম’ বা মধ্যমপন্থা অবলম্বন তার মধ্যে অন্যতম।
তাহলে কেন আমরা যেকোনো বিষয়ে একজন সহনশীলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে পারি না? আমার বন্ধু নাস্তিক কিন্তু আমি মনে প্রাণে সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাস করি তাই বলে কি আমরা বন্ধুত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারি না? আমাদের মধ্যে কি সুদীর্ঘ আলাপন চলতে পারে না?
সুতরাং আমাদেরকে নিজ নিজ স্থানে সহনশীলতার পরিচয় দেওয়া একান্ত আবশ্যক। তবে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে যে আমাদের ইফতার মাহফিল যেন অন্যকে কোনোভাবে আঘাত না করে। আমাদের পূজা যেন
কোনোভাবে সাম্প্রদায়িক উস্কানির কারণ না হয়।
আমার দেশে আমরা প্রধান দুটি ধর্মীয় সম্প্রদায় বসবাস করি। যুগে যুগে এ প্রার্থনার বাণী উচ্ছ্বসিত হতে থাক,
“বাঙালির পণ, বাঙালির আশা, বাঙালির কাজ, বাঙালির ভাষা–
সত্য হউক, সত্য হউক, সত্য হউক”, হে প্রভু!!
“বাঙালির প্রাণ, বাঙালির মন,   বাঙালির ঘরে যত ভাই বোন–
এক হউক, এক হউক, এক হউক”,হে প্রভু!!
আমরা এই বাণী ধারণ করি,
“মোরা একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু-মুসলমান,
 মুসলিম তার নয়নমণি হিন্দু তাহার প্রাণ।”
(লেখক- আজগারুল ইসলাম,ইতিহাস বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।সদস্য বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরাম,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com