1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০:৪৯ অপরাহ্ন

সাদুল্লাপুরে ৯ ইউপি সদস্যকে ইউএনও’র শোকজ: পাল্টাপাল্টি দোষারোপ

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৮ বার পঠিত

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা।- গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ২ নম্বর নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের ৯ সদস্যকে (মেম্বার) কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। আগে কয়েকবার নোটিশ পেয়েও পরিষদের একাধিক সভায় অনুপস্থিত, উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে বাধা সৃষ্টি ও রাষ্ট্রীয় স্বার্থবিরোধী কাজে জড়িতসহ অসদচারণের অভিযোগে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যদের বিরুদ্ধে এই নোটিশ পাঠানো হয়। তবে ইউপি সদস্যরা এর জন্য চেয়ারম্যানকে দায়ী করছেন।

বুধবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে সাদুল্লাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নবীনেওয়াজ নোটিশ পাঠানোর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে রবিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে অভিযুক্ত সংরক্ষিত আসনের দুই নারী সদস্য ও সাত ইউপি সদস্যকে এই নোটিশ দেন ইউএনও। নোটিশে অভিযুক্তদের কেন সদস্য পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত ও অপসারণ করা হবে না, তা সাত দিনের মধ্যে লিখিতভাবে জানাতে বলা হয়েছে।ইউএনও স্বাক্ষরিত নোটিশে উল্লেখ করা হয়, নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গত ২০ জুলাই থেকে ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত ইউপি চেয়ারম্যান স্বাক্ষরিত পত্রে চার বার সভা আহ্বান করা হয়। এসব সভার নোটিশ গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে প্রত্যেক সদস্যদের অবগত করা হয়। তবে সভায় অনুপস্থিত থাকেন সদস্যরা। এর ফলে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব না হওয়ায় পরিষদের উন্নয়নমূলক ও জনগুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম পরিচালনা ব্যাহত হয়। এছাড়া সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের নির্দেশক্রমে গত ১২ নভেম্বর পরিষদ হল রুমে জরুরি সভার জন্য নোটিশ দেওয়া হলেও সদস্যরা উপস্থিত হয়নি। পরপর তিনটি সভায় বিনা অনুমতিতে ইউপি সদস্যদের অনুপস্থিতি অসদাচরণের শামিল।

ইউপি সদস্যদের সংঘটিত কর্মকাণ্ড পরিষদ ও রাষ্ট্রের উন্নয়নমূলক কাজে বাধা সৃষ্টি, স্বীয় দায়িত্ব পালনে অনিহা ও অস্বীকার করা ইউপি পরিষদ আইন-২০০৯, ৩৪ ধারার উপধারা (৪) পরিপন্থী। এমন পরিস্থিতিতে কেন তাদের সদস্য পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত ও অপসারণসহ বিধিগত ব্যবস্থা গ্রহণে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর চিঠি পাঠানো হবে না, তা জানাতে অভিযুক্ত ইউপি সদস্যদের শোকজ করা হলো। অন্যথায় বিধিগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে, অভিযুক্ত ইউপি সদস্যদের পক্ষে ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. জয়নুল আবেদীন মোবাইল ফোনে বলেন, ‘নানা অনিয়ম-দুর্নীতি ও অপকর্মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়াসহ চেয়ারম্যানের অপসারণ চেয়ে গত ৮ জুলাই জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অনাস্থা প্রস্তাব করি পরিষদের ৯ জন সদস্য। পরে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি স্থানীয় সরকার বিভাগে গত ৩১ আগস্ট অনাস্থা প্রস্তাবের কাগজপত্র পাঠায়। তবে তারা তদন্ত সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেনি। পরবর্তীতে তদন্ত প্রতিবেদন চেয়ে গত ১৪ অক্টোবর জেলা প্রশাসককে পত্র মাধ্যমে নির্দেশ দেয় স্থানীয় সরকার বিভাগ। অথচ অজ্ঞাত কারণে সেই নির্দেশনা আমলেই নেয়নি তদন্ত কমিটি ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের আড়াই মাসেও কোনও ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। উল্টো হুমকি-ধামকিসহ নানাভাবে আমাদের হয়রানির চেষ্টা করা হচ্ছে।’ ইউএনও’র পাঠানো শোকজ নোটিশকে চেয়ারম্যানের ‘চক্রান্ত’ বলেও দাবি করেন তিনি।

তবে এ বিষয়ে নলডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তরিকুল ইসলাম নয়ন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরেই পরিষদের সার্বিক কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা হচ্ছে। পাশাপাশি আমার জনপ্রিয়তা ও সম্মান ক্ষুণ্নের জন্য নানা ষড়যন্ত্র চলছে। স্থানীয় প্রতিদ্বন্দ্বী ও প্রতিপক্ষ একটি কুচক্রী মহল ইন্ধন দিয়ে ইউপি সদস্যদের খেপিয়ে তুলেছে। ফলে কিছু সদস্য আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে অনাস্থা প্রস্তাব দিয়ে হেয় করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com