রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:৪০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মলিনমলো গাইবান্ধা সদরে আশ্রয়ণের ঘর পেয়েও থাকেন ভাড়া বাসায় রংপুরে লেখক পাঠক মিলন মেলা ২০২২ সাদুল্লাপুরে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১২ হাজার ৪০ হেক্টর

সুখেই আছেন এই ছকিনা সেই ছকিনা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২২
  • ৩৬ বার পঠিত

রংপুর থেকে সোহেল রশিদ।-ছিলেন রাস্তার ধারে, পুরনো টিনের বেড়া দিয়ে ঘেরা একটি মাত্র খুপরি ঘরে। সেখানেই থাকতেন। খেয়ে না খেয়ে চলত জীবন। শীতকালে কনকনে ঠান্ডা ও হিমেল হাওয়ায় দুর্বিষহ হয়ে উঠেছিল জীবনযাত্রা। বর্ষায় পানি পড়ত চালের ফুঠো দিয়ে। রাত জেগে থাকতে হতো তাঁকে। কেউ খোঁজ রাখেনি তাঁর। এভাবেই প্রায় দেড় যুগ ধরে নিদারুন কষ্টে ছিলেন বৃদ্ধা ছকিনা বেওয়া (৯০)। কিন্তু তিন মাসেই বদলে গেছে তাঁর জীবনমান। সরকারীভাবে তাঁকে দেওয়া হয়েছে মুজিববর্ষের পাকা বাড়ি ও দু’শতক জমি। প্রতিবন্ধি  নাতি চেংটু মিয়াকে সাথে নিয়ে ওই বাড়িতে থাকছেন তিনি। রংপুর জেলা প্রশাসক ও মিঠাপুকুর ইউএনও প্রচেষ্টায় স্বল্প সময়ের মধ্যে পাকা বাড়ি পেয়ে বেজায় খুশি ছকিনা বেওয়া।
ছকিনা বেওয়া রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার নিভৃতপল্লী বালারহাট ইউনিয়নের কয়েরমারী গ্রামের ছয়ির উদ্দিনের স্ত্রী। তিনি মারা গেছেন প্রায় ৩০ বছর হলো। ২ ছেলে ও ১ মেয়েও মৃত্যুবরণ করেছেন অনেক আগেই। দেখার কেউ নেই ছকিনা বেওয়ার। নিদারুন কষ্টে চলছিল তাঁর জীবন। একের পর এক স্থানীয় জন প্রতিনিধি বদল হয়েছে কিন্তু ভাগ্যের বদল হয়নি তাঁর। ছকিনা বেওয়াকে নিয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও অনলাইনে পত্রিকায় একটি স্বচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ হলে নজরে আসে রংপুর জেলা ও মিঠাপুকুর উপজেলা প্রশাসনের। অবশেষে মুজিববর্ষের পাকা বাড়ি ও জমি পেয়েছেন তিনি।
সরেজমিনে কয়েরমারী গ্রামের গিয়ে দেখা গেছে, রাস্তার ধারে পুরনো জায়গায় ঘরটি নেই। ফাঁকা পড়ে রয়েছে স্থানটি। ক’দিন আগে ঘরটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। সেখান হতে কিছুটা সামনে এগুলেই গ্রামের ভিতরের দিকে নতুন সরকারী বাড়িতে থাকেন ছকিনা বেওয়া। সরকারীভাবে তাঁকে দেওয়া হয়েছে দু’শতক জায়গা, একটি নলকুপও। বাড়ির উঠানে নলকুপটি স্থাপন করা হয়েছে। বাড়িটিতে রয়েছে দুটি থাকার ঘর। ঘর লাগোয়া একটি রান্নাঘর ও একটি বাথরুম। বেশ ভাল আছেন তিনি।
কয়েরমারী গ্রামের বাসিন্দা দুলা মিয়া বলেন, ‘আল্লাহ্ রহমতে ছকিনা বেওয়া এখন ভালই থাকবেন। তাঁর বয়স হয়েছে, কবে মরে ঠিক নাই। অন্তত. মরার আগে কয়দিন শান্তিমত বাচঁতে পারবেন। ধন্যবাদ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, ধন্যবাদ প্রশাসনকে।’
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুহুল আমিন বলেন, ‘ছকিনা বেওয়ার বাড়িটি করতে গিয়ে প্রথমে সমস্যা দেখা দেয় জমি বিষয়ে। কেউ জমি দিতে চাচ্ছিলনা। পরে ওই গ্রামে বে-দখলে থাকা একটি জমি উদ্ধার করে দ্রæত সময়ের মধ্যে বাড়িটি নির্মাণ করা হয়েছে। রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান স্যার ও ইউএনও ফাতেমাতুজ জোহরা স্যার গিয়ে বাড়িটি উদ্বোধন করেছেন।’
মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহি অফিসার ফাতেমাতুজ জোহরা বলেন, ‘ছকিনা বেওয়ার বিষয়টি পত্রিকা মাধ্যমে জানতে পারি। সাথে সাথেই জেলা প্রশাসক স্যারের নির্দেশে আমি ও এসিল্যান্ড সরেজমিনে পরিদর্শন করি। আমরা দেখেছি তার মানবেতর জীবন যাপন। ছকিনা বেওয়ার যাতে কষ্ট না হয়, সেজন্য সেখান হতে একটু সামনে দিকে একটি খাস জমি উদ্ধার করে দ্রæত সময়ের মধ্যে বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘যেসময় আমরা জানতে পারি, ওই সময় মুজিববর্ষের ঘরগুলো বরাদ্দ ছিলোনা। জেলা প্রশাসক স্যার সমাজসেবা থেকে একটি ঘরের অনুমোদন নিয়ে বাড়িটি নির্মাণ করা দেওয়া হয়েছে।’

রংপুর জেলা প্রশাসক মো: আসিব আহসান বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন কেউ ভূমিহীন ও গৃহহীন থাকবেনা। যারা প্রকৃত ভূমিহীন ও গৃহহীন হবেন, তাদেরকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রতিশ্রুতি অনুয়ারী গৃহ নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। এখানে শুধু ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছেনা, দুই শতক জমিও দেওয়া হচ্ছে। যিনি ঘরে উঠছেন দু’দিন আগেও তাঁর কিছুই ছিলোনা, এখন তিনি দুই শতক জমি ও ঘরের মালিক। এটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com