শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১১:০০ পূর্বাহ্ন

সুফিবাদ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ২১৯ বার পঠিত

মাওঃ মোঃ রুহুল আমিন
অধ্যক্ষ, পীরগঞ্জ সিনিয়র মাদ্রাসা

(পূর্ব প্রকাশের পর)

সুফিবাদ,,পর্ব ৭, তাওহীদ বিষয়ক(توحيد) আলোচনা, একত্ববাদ ،আল্লা তায়া’লার একত্বের উপর বিশ্বাস স্হাপন করা,তাওহিদের মুল ভিত্তি,।আল্লাহ বলেন,আল্লহ এক অদ্বিতীয় قل هو الله احد،،، তাওহীদের ৪ টি স্তর، ১, যে মানুষ শুধু মুখে لا اله الا الله আল্লাহ ভিন্ন আর কেহই উপাস্য নহে’বলিয়া থাকে।কিন্তু অন্তরের সহিত কালেমাটির অর্থের প্রতি বিশ্বাস রাখে না,তাওহীদের মুখোশে আবৃত , ইহা মুনাফিকের তাওহীদ,।বাহিরের আবরণে তাওহীদি, অন্তরে নাই।পরকালে কোন কাজে আসিবে না।ان المنفقين في درك الاسفال من النارদোযোখের গভীর গহ্বরে হবে মুনাফিকদের অবস্থান। ২,যে মানুষ কোনো ধর্মপরায়ন লোকের মুখে শুনিয়াلا اله الا الله কালেমার অর্থ অন্তরের সহিত মানিয়া লয়এবং বিশ্বাস করে। ইহা সাধারণ মানুষের তাওহীদ।অন্তরে বিশ্বাসের সাথে যুক্তি প্রমানের দ্বারাও বিশ্বাস অর্জনের চেস্টা করিয়া থাকে।ইহা নিম্নমানের সাধারণের ঈমান। ৩,মানুষ মুশাহাদাহ বা প্রত্যক্ষ দর্শনের সাহায্যে দেখিতে পাওয়া যাবতীয় পদার্থের মুলে এক আল্লাহ ব্যতীত অন্য কিছুই নহে বলিয়া ইয়াক্কীনঅর্জন হয় এবং ,لا اله الا الله সমস্ত কার্যের কর্তা একমাত্র আল্লাহ তায়ালা ভিন্ন আর কেহই নাই বলিয়া জ্ঞান অর্জন করে।এ-ই জ্ঞানই নূর বা জ্যোতি,অন্তরে উৎপন্ন হয়,আল্লাহ তায়ালা বলেন اللَّهُ وَلِيُّ الَّذِينَ آمَنُوا يُخْرِجُهُم مِّنَ الظُّلُمَاتِ إِلَى النُّورِ ۖ وَالَّذِينَ كَفَرُوا أَوْلِيَاؤُهُمُ الطَّاغُوتُ يُخْرِجُونَهُم مِّنَ النُّورِ إِلَى الظُّلُمَاتِ ۗ أُولَـٰئِكَ أَصْحَابُ النار،هم فيها خالدون، (আল বাকারা – ২৫৭) যারা ঈমান এনেছে, আল্লাহ তাদের অভিভাবক। তাদেরকে তিনি বের করে আনেন অন্ধকার থেকে আলোর দিকে। আর যারা কুফরী করে তাদের অভিভাবক হচ্ছে তাগুত। তারা তাদেরকে আলো থেকে বের করে অন্ধকারের দিকে নিয়ে যায়। এরাই হলো দোযখের অধিবাসী, চিরকাল তারা সেখানেই থাকবে। ঐ নূর অন্তরের পর্দা উম্মুক্ত করিয়া দেয় এবং সকল পদার্থের মুলে এক আল্লাহর অস্তিত্ব খুঁজে পায়।এই তাওহীদ এর নুরের المومن ينظر بنور الله সাহায্যে সে দৃশ্যমান বস্তু ছাড়াওঅদৃশ্য বস্তু, স্হান অবলোকন করিতে পারেন।সাহাবায়ে কেরাম ও আউলিয়া কেরামগনের জীবনে অনেক নজীর রহিয়াছে। ২য় ও ৩য় প্রকারের ঈমান পরকালীন মুক্তির পাথেয় হইবে। যেহেতু মূল ঈমানকে বাসীত, بسيطবলা হয়। আমলের আধিক্যতার কারনে ঈমানের বৃদ্ধি বলা হয়।واذا تلبت عليهم اياته زادته ايمانا তাহাদের সম্মুখে কোরআন এর আয়াত পঠিত হলে ঈমান বৃদ্ধি হয়।আরো একাধিক আয়াতে ঈমান বৃদ্ধি হয় বলিয়া উল্লেখ আছে।মর্মঃ-দৃঢ়, মজবুত, অটল।সাহাবায়ে কেরামগনের ঈমান পাহাড় সম মজবুত। আমল ছেড়ে দিলে মূল ঈমান টুকু রয়ে যায়,যাহা দুর্বল ঈমান اضعاف الايمان হিসাবে বিবেচিত।যেমন,من كان في قلبه خردل من الايمان،فدخل الجنة،যার অন্তরের মধ্যে কণা পরিমান ঈমান আছে, সেও জান্নাতে প্রবেশ করিবে। ৪র্থ প্রকারের তাওহীদ এর বর্ণনা করা কঠিন, একমাত্র নাবী ও রাসুল গনের ঈমান,যাহা অন্য কাহারোর সাথে তুলনা হইতে পারে না।আল্লাহ তায়ালা সরাসরি বা অহি মাধ্যম কথাবার্তা,দর্শন ও বাস্তব রূপে সৃষ্টি নিদর্শনাবলী নবী রাসুল গনকে অবলোকন করাইয়াছেন। ফলে সাধারণের সাথে তাওহীদের তুলনা হইতে পারে না। অনেকের জানা আছে। একটা উদাহরণ দেওয়া যাইতে পারেঃ- যেমন নারিকেল, ইহার ৪টি স্তর আছে। ১ম ছোবড়া বা আবরণ, ২য় খুলী বা ছোবড়ার নিম্নের আবরণ, ৩য় শক্ত আবরণের মধ্যস্হিত মগজ বা শাষ,ওপানি, ৪ র্থ উক্ত শাষের ভিতরস্থ সার পদার্থ, বা তৈল। ১ নং মুনাফিক,তাহাদের ঈমান ছোবড়া তূল্য,যতনে জমা করিয়া রাখিলে আবর্জনা ছাড়া কোন কাজে আসিবে না। ২ নং খূলীর প্রয়োজন আছে,যাহা মগজ ও পানিকে সংরক্ষণ করিয়াছে,যদিও খূলি কাজে আসে না। ৩নং শাষ বা মগজ উপকারী উপভোগ্য,ও কাম্য বস্তু। ৪ র্থ, তাওহিদের চূড়ান্ত পরিনতি আল্লাহতে বিলীন হওয়া,যেমন নারিকেল শাষ অস্তিত্ব কে হারিয়ে তৈলরুপ ধারন করিয়াছে, তেমনি নিজের অস্তিত্ব কে হারিয়ে আল্লহর রংধারণ করাই চরম লক্ষ্য।আল্লাহ বলেন,صبغة الله ومن احسن من الله صبغة আল্লাহর রং এর চেয়ে আর কার রং উত্তম। প্রিয় রাসুল মুহাম্মাদ সঃ সাধারনের দৃষ্টিতে بشر হলেও তৈল সাদৃশ্য, نور من نور الله

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com