1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:২৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
দিনাজপুরে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী বগুড়ায় চাঁদা দাবীর অভিযোগে দুই পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার বিএনপি’র রাজনৈতিক আদর্শ লাশ বিহীন কবর জিয়ারতের মতো – গোপাল এমপি ৩৩৩-এ কল করে খাদ্য সহায়তা পেল সাদুল্লাপুরের ৬০ কর্মহীন পরিবার সাদুল্লাপুরে স্ত্রীর মরদেহ হাসপাতালে রেখে পালালেন স্বামী সুন্দরগঞ্জে স্বামীকে হত্যার দ্বায় স্বীকার করেছে স্ত্রী বগুড়ার শেরপুরে কুলি শ্রমিক ইউনিয়নের অবৈধ কমিটি বাতিলে সংবাদ সম্মেলন শেরপুরে ভাতিজিকে উত্যক্ত প্রতিবাদ করায় চাচাকে ছুরিকাঘাত গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপৎসীমার ওপরে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত রংপুরে স্মৃতিতে রণাঙ্গন এর মোড়ক উন্মোচন

সুফিবাদ

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০২০
  • ৮০ বার পঠিত

-মাওলানা রুহুল আমিন

নিয়ত نية ( সংকল্প) এখলাছ,اخلاص(বিশুদ্ধতা) ধর্ম সংক্রান্ত এলেম, শিক্ষা করিয়া শরীয়তের বিধান অনুযায়ী এবাদত না করিলে ঐ এবাদত কোন কাজে আসে না; বরং এলেম অনুযায়ী কর্ম সম্পাদনের জন্য নিয়তের বিশুদ্ধতা থাকা একান্ত প্রয়োজন। পক্ষান্তরে নিয়তে অবিশুদ্ধতা ও কপটতার কারণে ধর্ম পথের অত্যন্ত বিপদসংকুল ক্ষতি ও বিনাশ হইতে মুক্ত থাকিতে পারিবে না। নিয়তের বিশুদ্ধতা ও অকপটতার মধ্যে বিন্দুমাত্র ত্রুটির কারনে ধর্ম পথের যাবতীয় পরিশ্রম ক্লেশ ব্যর্থ হয়। তদাভাবে কোনও কল্যাণ সাধিত হয় না।সুতরাং দেখা যায়, নিয়ত ও এখলাছ পরস্পরে বিজড়িত। যেহেতু এবাদত মাত্রই নিয়তের উপর নির্ভরশীল।একমাত্র নিয়তই সর্ববিধএবাদত বা সদানুস্ঠানের প্রাণস্বরুপ।মহান আল্লাহ তায়ালা মানুষের কার্যাবলীর মধ্য কেবল মাত্র নিয়তের প্রতি লক্ষ্য করিয়া ফলাফল মীমাংসা করিবেন। এই কারণে রাসুলে করিম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিয়াছেন,আল্লাহ তায়ালা তোমাদের কার্যাবলীর প্রতি লক্ষ্য করেন না,তিনি কেবল তোমাদের অন্তঃকরনের প্রতি লক্ষ্য করিয়া থাকেন। কারণ অন্তঃকরণ হইল নিয়তের স্হান,অন্তঃরেই নিয়তের উৎপত্তি হইয়া থাকে। ফলে প্রথমেই নিয়তের ফযিলত ও শ্রেষ্ঠত্ব সমন্ধে পরিজ্ঞাত হওয়া উচিত। حدثناالْحُمَيْدِيُّ عَبْدُ اللَّهِ بْنُ الزُّبَيْرِ، قَالَ حَدَّثَنَا سُفْيَانُ، قَالَ حَدَّثَنَا يَحْيَى بْنُ سَعِيدٍ الأَنْصَارِيُّ، قَالَ أَخْبَرَنِي مُحَمَّدُ بْنُ إِبْرَاهِيمَ التَّيْمِيُّ، أَنَّهُ سَمِعَ عَلْقَمَةَ بْنَ وَقَّاصٍ اللَّيْثِيَّ، يَقُولُ سَمِعْتُ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ ـ رضى الله عنه ـ عَلَى الْمِنْبَرِ قَالَ سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَقُولُ ‏ “‏ إِنَّمَا الأَعْمَالُ بِالنِّيَّاتِ، وَإِنَّمَا لِكُلِّ امْرِئٍ مَا نَوَى، فَمَنْ كَانَتْ هِجْرَتُهُ إِلَى دُنْيَا يُصِيبُهَا أَوْ إِلَى امْرَأَةٍ يَنْكِحُهَا فَهِجْرَتُهُ إِلَى مَا هَاجَرَ إِلَيْهِ ‘হযরত আলক্বামাহ ইব্নু ওয়াক্কাস আল-লায়সী (রহঃ, উমর ইব্নুল খাত্তাব (রাঃ)-কে মিম্বারের উপর দাঁড়িয়ে বলতে শুনিয়াছেন,তিনি আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)কে বলিতে শুনেছেন, মানুষের যাবতীয় কার্যাবলী নিয়তের সাথে সংশ্লিষ্ট। আর মানুষ তার নিয়ত অনুযায়ী প্রতিফল পাইবে। তাই যাহার হিজরত হইবে ইহকাল লাভের অথবা কোন মহিলাকে বিবাহ করার উদ্দেশ্যে- তবে তাহার হিজরত সে উদ্দেশ্যেই হবে, যে জন্যে,সে হিজরত করেছে। আল্লাহ তায়ালার সমীপে কোনই বিনিময় প্রাপ্য হইবে না। হুজুরে আকরাম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিয়াছেন,মানুষ এমন বহু নেক কার্য করিয়া থাকে,যাহা ফেরেস্তা গন উর্ধ জগতে আল্লাহ তায়ালার সমীপে উপস্থিত করিবে।আল্লাহ তায়ালা ঐ কার্যগুলি দেখিয়া ফেরেস্তা গনকে নির্দেশ প্রদান করিবেন, এই কার্যগুলি এই ব্যাক্তির আমলনামা হইতে কাটিয়া ফেল।এগুলি আমার উদ্যেশে করা হয় নাই। তাহার আমলনামায় বরং অমুক কার্য লিপিবদ্ধ করিয়া লও।ফেরেস্তা গন আল্লাহ তায়ালা সমীপে নিবেদন করিবেন, ইয়া আল্লাহ, এই ব্যক্তি ত তদ্রুপ কার্য করে নাই। মহান আল্লাহ তায়ালা বলিবেন,কার্য ক্ষেত্রে দেখা না গেলেও লোকটি এই কার্যগুলির নিয়ত করিয়া ছিল। ،وان تبدوا ما في انفسكم او تخفوه يحاسبكم به الله তোমাদের হৃদয়ে যে কল্পনার উদয় হইয়া থাকে, তাহা তোমরা প্রকাশ কর কিংবা গোপন রাখ,আল্লাহ তায়ালা উহার উহার হিসাব লইবেন। ان السمع والبصر والفؤاد كل اولئك كان عنه مسئولا নিশ্চয়ই কর্ণ,চক্ষু,এবং অন্তর ইহাদের সকলেই আল্লাহ তায়ালার নিকট জিজ্ঞাসিত হইবে। . , والله عليم بذات الصدور আল্লাহ তায়ালা অন্তরের নিয়ত,উৎপন্ন কল্পনা সম্পর্কে অবহিত। একথা দৃঢ় ভাবে বুঝিতে হইবে যে, অহংকার, কপটতা, আত্মম্ভরিতা, সাধুতা প্রদর্শন,ঈর্ষা, ভালো ও মন্দ সমুদয় অন্তরের কার্য বলিয়া ব্যক্তি দায়ী ও দন্ডনীয় হইয়া থাকে। যেমন, لا يواءخذكم الله باللغو في ايمانكم ولكن يؤاخذكم بما عقدتم الايمان তোমাদের উদ্দেশ্যবিহীন পরিহাস মূলক শপথের জন্য আল্লাহ তায়ালা তোমাদিগকে দায়ী করিবেন না,বরং স্বেচ্ছায় দৃঢ়রুপে যে শপথ করিয়া থাক তজ্জন্য তিনি অবশ্যই তোমাদিগকে দায়ী করিবেন, ফলকথা,,অন্তরের নিয়তকার্যের উপর সবকিছুর ফয়সালা হইবে। نية الموءمن خيرمن عمله মুমিন লোকের নিয়ত তাহার কর্ম অনুষ্ঠান অপেক্ষা উত্তম। নিয়ত বিহীন আমল,কর্ম এবাদত বলিয়া গণ্য হয় না। পক্ষান্তরে কোন সৎকর্ম করিবার জন্য মজবুত নিয়ত,বা দৃঢ় সংকল্প করিয়া কোন প্রতিবন্ধকতার কারণে কার্যটি করিতে নাপারিলেও সৎকর্মটি এবাদত বলিয়া গণ্য হইবে এবং যথারীতি সওয়াব পাওয়া যাইবে। অন্তর ও শরীর দুইটি আলাদা বস্তু।অন্তরের সহিত সমন্ধযুক্ত নিয়তের কারণে শরীরের অংগপ্রত্যংগ সঞ্চালিত হইয়া থাকে। ফলে কর্মের নিয়তই পুণ্য লাভের কারণ। রাসুলে মাকবুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন আমার উম্মত গনের অনেকে কোমল শয্যায় বালিশের উপর মস্তক স্হাপন পূর্বক প্রাণ ত্যাগ করিয়াও শহীদী মর্যাদা প্রাপ্ত হইবে,আবার অনেকে যুদ্ধ ক্ষেত্রে সেনাদলের মধ্যেস্হলে যুদ্ধ করিয়াও শহীদ হইবে না। ইহার কারণ,উভয়ের নিয়ত সমন্ধে আল্লাহ তায়ালা খুব অবগত আছেন। ফলে নিয়তের মধ্যে এখলাছ,বা বিশুদ্ধতা থাকিতে হইবে।মোবাহ কার্যের মধ্যে নিয়তের কারণে সওয়াব লাভ করা যায়। আল্লাহর দ্বীন কায়েম ও আল্লাহর সন্তোষ্টি অর্জনের নিয়তে সকল কার্য ও জীবন পরিচালিত হোক সেটাই কামনা করছি ।

লেখকঃ অধ্যক্ষ, পীরগঞ্জ সিনিয়র মাদ্রাসা ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com