বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৪২ অপরাহ্ন

হিরো এ্যাওয়ার্ড পেলো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অস্কোব

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৫৫ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক।- সারাদেশের প্রায় দুই হাজার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে পেছনে ফেলে হিরো এ্যাওয়ার্ড পেয়েছে Works for Orphan and Street Children of Bangladesh – WOSCB- অস্কোব ।
গত ১৭ ডিসেম্বর শনিবার ঢাকার আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ লায়ন্স ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ও আরভি ফাউন্ডেশন অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শহীদুর রসীদ ভুঁইয়া । এছাড়াও আরভি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সুধীজনরা উপস্থিত ছিলেন। পরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অস্কোবের প্রতিষ্ঠাতা মো: আলমগীর হোসেনের হাতে হিরো এ্যাওয়ার্ড তুলে দেন।
জানা গেছে, বিগত ২০২০ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর করোনাকালীন সময়ে হাসি ফুটুক প্রতিটি শিশুর মুখে,হাসি ফুটুক সবার মুখে স্লোগানকে ধারণ করে “Works for Orphan and Street Children of Bangladesh-WOSCB (অস্কোব)” নামে স্বেচ্ছাসেবী, জনকল্যাণমুখী, অসাম্প্রদায়িক সংগঠনটির যাত্রা শুরু করে। সংগঠনটি মূলত এতিম ও পথশিশুদের নিয়ে কাজ করছে। সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন মোঃ আলমগীর হোসেন। যিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

এছাড়াও একদল তরুণ, উদ্যামী ও শিক্ষিত তরুণ-তরুণী সংগঠনটির স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছেন।

যাত্রার শুরুতেই করোনাকালীন সময়ে অস্কোব খুঁজে খুঁজে দরিদ্র পরিবারের মাঝে নিত্যপ্রোয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিতরণ করেন। এতিম ও পথশিশু ছাড়াও দরিদ্র মেধাবি শিক্ষার্থীদের খাতা-কলম, পোষাক, খাবার বিতরণসহ বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছে।
বর্তমানে রংপুর, নীলফামারী ও ময়মনসিংহ জেলায় ফ্রী শিক্ষা স্কুল প্রজেক্ট কার্যক্রমের আওতায় পড়বো,শিখবো, জিতবো  স্লোগানে “অস্কোব পাঠশালা” রয়েছে। এসব পাঠশালায় দেড় শতাধিকের বেশি দরিদ্র, এতিমও পথশিশু শিক্ষার্থী পড়াশুনা করছেন। বিনামূলে অস্কোবের এই পাঠশালায় শিক্ষাসামগ্রী বিতরণ ও নিয়মিত টিফিনের ব্যবস্থা করা হয়। এই প্রজেক্টেও মাধ্যমে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান, শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ ও স্বাবলম্বীকরণ প্রজেক্টের আওতায় দরিদ্র, এতিম ও পথশিশু এবং তাদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা, ছাগল ও সেলাই মেশিনসহ স্বাবলম্বী করণে নানা ধরণের সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। বিভিন্ন এতিমখানা ও রাস্তায় ঘুড়ে বেড়ানো পথশিশু ও ভবঘুরে মানুষজনকে খাবার বিতরণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
এব্যাপারে অস্কোবের প্রতিষ্ঠাতা ইন্টার্ন চিকিৎসক মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, ২০২০ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর করোনাকালীন সময়ে হাসি ফুটুক প্রতিটি শিশুর মুখে,হাসি ফুটুক সবার মুখে স্লোগানকে ধারণ অস্কোব যাত্রা শুরু করে। আমাদের লক্ষ্য মানবসেবা। আমাদের কার্যক্রম মূলত পথশিশু, এতিম ও দরিদ্রদের নিয়ে। বর্তমানে রংপুর, নীলফামারী ও ময়মনসিংহ সহ সারাদেশে ফ্রী শিক্ষা স্কুল কার্যক্রম অস্কোব পাঠশালা,আহার, স্বাবলম্বীকরণ, প্রাকৃতিক দূর্যোগে ত্রাণ বিতরণ, ফ্রী মেডিকেল ও ডেন্টাল হেল্থ ক্যাম্প, পোশাক উপহার, শীতবস্ত্র বিতরণসহ কয়েকটি প্রজেক্টের কার্যক্রম চলমান রয়েছেন। আগামী বছরের শুরুতেই সিলেট শহরে অস্কোব পাঠশালা-৪ চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com