বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন

২০২২-২৩ অর্থ বছরে বাজেটের আকার ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০২২
  • ৭২ বার পঠিত

বজ্রকথা ডেক্স।- ৯ জুন২০২২ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০২২-২৩ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেছেন। এবারের বাজেটের আকার ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার। সেখানে ঘাটতি দুই লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা।
বাজেটের মাল্টিমিডিয়া উপস্থাপনায় ও লিখিত বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, আগামী অর্থবছরের জন্য ৬টি চ্যালেঞ্জ চিহ্নিত করেছেন তিনি। এগুলো হলো মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা ও অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ বাড়ানো; গ্যাস, বিদ্যুৎ ও সারের মূল্য বেড়ে যাওয়ার কারণে বর্ধিত ভর্তুকির জন্য অর্থের সংস্থান; টাকার বিনিময় হার স্থিতিশীল ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক পর্যায়ে রাখা; বৈদেশিক সহায়তার অর্থ ব্যবহার এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগের উচ্চ-অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত প্রকল্পগুলো নির্ধারিত সময়ে শেষ করা; শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের প্রকল্পগুলো যথাসময়ে বাস্তবায়ন; অভ্যন্তরীণ মূল্য সংযোজন কর সংগ্রহের পরিমাণ ও ব্যক্তি আয়করদাতার সংখ্যা বাড়ানো।
প্রস্তাবিত বাজেটে উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে, বাজেটে ব্যবসায়ীদের জন্য করপোরেট কর কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কম্পানির করহার ২.৫ শতাংশ কমিয়ে ২০ শতাংশ করার কথা বলা হয়েছে। আর শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত নয় এমন কম্পানির করহার ৩ শতাংশ কমিয়ে ২৭.৫ শতাংশ করা হয়েছে। একক ব্যক্তির কম্পানির করহার ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২২.৫ শতাংশ করা হয়েছে। এ ছাড়া ব্যক্তিসংঘ ও কৃত্রিম ব্যক্তিসত্তা এবং অন্যান্য করযোগ্য সত্তার করহার ২.৫ শতাংশ কমে ২৭.৫ শতাংশ করা হয়েছে। ব্যাংক-বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সিগারেট, মোবাইল ফোন অপারেটর প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য শ্রেণির করপোরেট করের হার অপরিবর্তিত রয়েছে।
বাজেটে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৭.৫ শতাংশে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে। আবার মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ‘চাহিদা কমিয়ে আনা হবে’ বলেও বলছেন অর্থমন্ত্রী।
বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমদানিনির্ভর ও কম গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ব্যয় বন্ধ রাখা অথবা কমিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
এবার বাজেটে নতুন আলোচনার বিষয় হচ্ছে, বিনাপ্রশ্নে পাচার হওয়া অর্থ ফিরিয়ে এনে বৈধ করার উদ্যোগ। বিদেশে অর্জিত অর্থ ও সম্পদ অর্থনীতির মূল স্রোতে আনতে অর্থমন্ত্রী আয়কর অধ্যাদেশে নতুন বিধান যুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছেন।
বিদেশে অর্জিত স্থাবর সম্পত্তি বাংলাদেশে আনা না হলে এর ওপর ১৫ শতাংশ, বিদেশে থাকা অস্থাবর সম্পত্তি বাংলাদেশে আনা না হলে ১০ শতাংশ ও বাংলাদেশে পাঠানো (রেমিটকৃত) নগদ অর্থের ওপর ৭ শতাংশ হারে করারোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। এ সুবিধা ২০২২ সালের ১ জুলাই থেকে ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।
বরাবরের মত এবারের বাজেট নিয়ে সরকার পক্ষ নানা দিক থেকে আশাবাদী হলেও বাজেটের নানা দূর্বল দিকে নিয়ে সমালোচলানা করেছেন, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ অর্থনীতিবীদগণ।
তবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল তাঁর বক্তব্যে বলেছেন, বাজেটে উল্লেখ করা প্রস্তাবগুলো বাস্তবায়িত হলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কার্যক্রম গতিশীল থাকবে। রপ্তানি খাতের প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রার আয় বৃদ্ধি পাবে। করজাল ও আনুষ্ঠানিক অর্থনীতির সম্প্রসারণ হবে। নতুন উদ্যোক্তা তৈরি ও কর্মসংস্থান হবে পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে। ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত হবে এবং রাজস্ব ভিত্তি শক্তিশালী হবে। তাতে রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com