মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মিলনপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা ঘোড়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন  বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল সাপাহারে জাতীয় শোক দিবস পালন জিয়া-মোস্তাকরা এখন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে-হুইপ ইকবালুর রহিম পার্বতীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে- বানিজ্যমন্ত্রী রংপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত বিরামপুরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭-তম শাহাদত বার্ষিকী বঙ্গবন্ধুর  জন্ম না হলে   বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না – মেয়র  সরোয়ার

ঘোড়াঘাটে মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তুলে স্বপ্ন দেখছেন সাহাবুল

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৭৯ বার পঠিত

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) থেকে মোঃ শফিকুল ইসলাম (শফি)।- বরেন্দ্র অঞ্চলের শস্যভান্ডার খ্যাত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে বাণিজ্যিক ভাবে মিশ্র ফলের বাগান গড়ে তুলে আর্থিক ভাবে লাভবান হবার স্বপ্ন দেখছেন চাষী সাহাবুল। সাহাবুল ইসলাম উপজেলার লালমাটি গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে। চাষী সাহাবুলে মিশ্র বাগানে শোভা পাচ্ছে সারিবদ্ধ বিভিন্ন ফলের গাছ। এসব বৈচিত্রময় ফলের মধ্যে একটি ফল মাল্টা। বর্তমানে এ বাগানে ৪৩০ টি গাছে ঝুলছে থোকা থোকা মাল্টা। চলতি বছরে মাল্টা বিক্রি করে লাভবান হবার স্বপ্ন দেখছেন তিনি। তার এ সফলতার অনুপ্রেরণায় উপজেলার অনেক বেকার যুবকেরা অনেকেই কৃষি অফিসের পরামর্শ নিয়ে ঝুকছেন মাল্টা চাষে।
২০১৪ সালের ঘোড়াঘাট উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় উপজেলার লালমাটি মৌজার ৮৫ শতক জমিতে ১৮৫ টি চায়না-৩ লিচু চারা রোপন করে সফলতা পায় সাহাবুল।
এরপর ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে সাহাবুল ইসলাম ব্যক্তিগত ভাবে কৃষি অফিসের পরামর্শে পার্শ্বের আরও ১ একর ৬৬ শতক পরিমান জমিতে মাল্টা সহ অনেক বৈচিত্রময় ফলের মিশ্রনে বাগান গড়ে তোলেন সাহাবুল। বর্তমানে ঐ জমিতে গত ২ বছরে মাল্টা গাছে ফল ধরেছে। বাগানে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন সাইজের মাল্টা। সবুজ পাতার আড়ালে কিংবা পাতা ঝরা ডালেও ঝুলছে থোকা থোকা মাল্টা।
এ বিষয়ে মোঃ সাহাবুল ইসলাম জানান প্রথম গাছে মাল্টা ধরার পর থেকে ফল চাষের বৈপ্লবিক পরিবর্তনের স্বপ্ন জাগে তার। এখন চলছে স্বপ্ন পূরনের পালা।
স্থানীয় কৃষকরা এসব ফলমুল চাষে এগিয়ে এলে মাল্টা সহ বিভিন্ন ফলের চাহিদা মেটানো সম্ভব। ফলগুলো সুমিষ্ট হওয়ায় বাণিজ্যিক ভাবে লাভবান হবার স্বপ্ন দেখছেন তিনি। বাগান তৈরির ২ বছর পর খরচ বাদ দিয়ে ২.৫ লক্ষ টাকা বাৎসরিক আয় হয় তার।
তিনি আরও জানান এ বছর চলতি মৌসুমে মাল্টার ফলন ভালো হয়েছে। বর্তমানে মাল্টা কেজি প্রতি ১২০-১৫০ টাকা বিক্রি হয়। শুধু তাই নয় মিশ্র বাগানে মাল্টা সহ থাই পেঁয়ারা, আম, ড্রাগন ও লিচু গাছ রয়েছে। বর্তমানে সাহাবুলের বাগানে রয়েছে মাল্টা গাছ ৪৩০ টি, থাই পেঁয়ার ২৬০ টি, কমলা ৬২ টি, থাই বারো মাসি আম ৯০টি, বারি-১১ বারোমাসি আম ১০ টি, কাশ্মিরী কুল ২০০ টি, ড্রাগন ৫০ টি, লটকন ২৫ টি, সৌদি খেঁজুর ৪৩ টি, রাম বুতান ৬০ টি ও লিচু ২৫১ টি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ এখলাস হোসেন সরকার জানান, বরেন্দ্র অধ্যুষিত এসব উঁচু জমিতে মাল্টা সহ বিভিন্ন মিশ্র ফল চাষের উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। তারই উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন চাষি সাহাবুল। তাকে অনুসরন করে এলাকার অনেকেই এখন মিশ্র ফল চাষের দিকে ঝুকছেন। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে এলাকার ফল চাষিদের সার্বক্ষণিক সব ধরনের পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com