শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৮:০৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

চতরায় সাবেক সাংসদ আব্দুল জলিলের স্মৃতি রক্ষায় নারিকেল গাছ লাগানো অব্যাহত রয়েছে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০
  • ৫৫১ বার পঠিত

কনক আচার্য।-গাছ মানুুষের বন্ধু। গাছ সম্পদ। গাছ ফল দেয়,খাদ্য দেয়, ছায়া দেয় নিরাপত্তা দেয়, প্রাণিদের বাঁচার জন্য অক্সিজেন দেয়, আসবাবপত্র দেয়, জ্বালানীর বড় যোগানদাতা গাছ। বিপদে পড়লে গাছ টাকাও দেয়। হাদীসে রয়েছে বৃক্ষ রোপন ছদকায়ে জারিয়া। এক কথায় গাছ লাগানো সওয়াবের কাজ। এখন বর্ষা মৌসুম গাছ লাগানোর উপযুক্ত সময়। তাই সময় বিচারে পীরগঞ্জ উপজেলার ১৪ নং চতরা ইউনিয়নের সকল সড়কে প্রায় কুড়ি হাজার নাড়িকেল গাছ লাগানোর ঘোষণা দিয়েছেন সাবেক সাংসদ প্রয়াত আব্দুল জলিল প্রধান ও সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলেয়া জলিলের প্রবাসী কন্যা জুঁই তাজুল্লী ফেরদৌসী। গত জুন থেকে এই নারিকেল চারা লাগানো কর্মসূচী শুরু করা হয়েছে। গত ৬ জুন ২০২০ তারিখে এই কর্মসূচীর উদ্বোধন করেছেন পীরগঞ্জের ভূতপূর্ব ইউএনও টি.এম.এ মমিন। এই কর্মসূচী চলমান রয়েছে। নারিকেল গাছ লাগানোর কাজে নিয়োজিত রয়েছে এলাকার বেশ কিছু উদ্যমী যুবক। এই কর্মসূচী দেখভাল করছেন, মরহুম আব্দুল জলিলের পত্নী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলেয়া জলিল। উল্লেখ্য, সাবেক সাংসদ আব্দুল জলিল ১৯৭২ থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত চতরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে পরিবেশ উন্নয়ন, বৃক্ষরোপনে নাগরিকদের উৎসাহ প্রদান এবং স্বনির্ভর ইউনিয়ন পরিষদ গড়ে তোলার লক্ষ্যে নিজ এলাকার সকল রাস্তায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৮০ হাজার নারিকেল গাছ লাগিয়েছিলেন। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে, পরবর্তী সময়ে যারা চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন, তারা কেউই গাছগুলোর যত্ন নেননি। যে কারণে ৬০ হাজার গাছ মরে গেছে। এখনও কুড়ি হাজারের মত গাছ ফল দিচ্ছে। সে কারণে পিতার স্মৃতি রক্ষায় আবারো নারিকেল গাছ লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আলেয়া-জলিল পরিবারের ফ্রান্স প্রবাসী কন্যা জুঁই তাজুল্লী ফেরদৌসী। এলাকার মানুষ জুঁই এর উদ্যোগে খুশি হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com