বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:১২ অপরাহ্ন

চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় চোখ হারিয়েছেন গৃহবধু

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৩ মার্চ, ২০২৪
  • ৫১ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিনিধি।- দিনাজপুরের বিশিষ্ট চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ টি জামানের ভুল চিকিৎসা ও অবহেলায় মোস্তারিনা বেগম নামে এক গৃহবধূ একটি চোখ হারিয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন মোস্তারিনার স্বামী।

১৩ মার্চ বুধবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে গৃহবধূর স্বামী জেলার বিরল উপজেলার তেঘরা মকলেশপুর (সোনাহারপাড়া) গ্রামের বাসিন্দা বাদশা আল মাহমুদ এই অভিযোগ করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ১৫ ফেব্রুয়ারী বিকেলে বাড়ীর পাশে খেজুর গাছের শুকনো ডাল পাড়ার সময় অসাবধানতা বশতঃ গৃহবধূ মোস্তারিনা বেগমের চোখে আঘাত লাগে। এসময় পরিবারের লোকজন গাওসুল আযম বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক গৃহবধূর চোখে কোন আঘাতপ্রাপ্ত হয় না মর্মে জানান। পরে দিনাজপুর এম. আব্দুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আমার স্ত্রী চোখে আঘাতের কথা চিকিৎসকদের জানায়। পরে হাসপাতালের চিকিৎসকদের পরামর্শে আমার স্ত্রীকে চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ টি জামানকে দেই। ডাঃ টি জামানকে সকল বিষয়টি খুলে বলা হয়। পরে ডাঃ টি জামান আমার স্ত্রীর চোখে কোন আঘাত নাই এবং কিছু ওষুধ লিখে দেন। পাশাপাশি দুই দিন পর আসতে বলেন এবং আর চোখের কোন সমস্যা হলে চক্ষু হাসপাতালে করে করার কথা বলে। পরে আমি বাসায় চলে আসি। বাসায় আসার পর আমার স্ত্রী ডাক্তারের দেয়া ওষুধ সেবন করে। ১৬ ফেব্রুয়ারী আমার স্ত্রীর ডান চোখটি অস্বাভাবিকভাবে ফুলে যায়। পরে ওই দিন বিকেলে পুনরায় ডাক্তারের চেম্বারে যাই। কিন্তু ওই দিন ডাক্তার চেম্বারে না বসায় চক্ষু হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে জরুরি বিভাগে কোন চিকিৎসক না থাকায় বাসায় ফেরত আসি। পরবর্তী ১৭ ফেব্রুয়ারী সকালে চক্ষু হাসপাতালে ডাঃ টি জামানকে দেখালে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হতে বলেন এবং আমার স্ত্রীর ডান চোখে ইনফেকশন হয়েছে বলে জানান। ১৭ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসা করার পরও আমার স্ত্রীর চোখে কোন উন্নতি হয়নি। পরে ডাঃ টি জামানের সাথে কথা বলে তিনি বলেন, এখনে কিছু বলা যাবে না। ১০ দিন চিকিৎসা চলুক, তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। পরে ডাঃ টি জামানের সাথে পরামর্শ করে ঢাকায় ইস্পাহারী ইসলামিয়া আই ইনষ্টিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার আমার স্ত্রীর চোখ দেখাশুনা করে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করে আমার স্ত্রীর ডান চোখে খেজুর গাছের ১টি কাটা ঢুকে রয়েছে বলে দেখতে পান। আমার স্ত্রীর চোখে কাটা ঢুকে থাকার বিষয়ে আমাকে অবগত করিলে আমি হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ি। কর্তব্যরত ডাক্তার জানান যে, আমার স্ত্রীর চোখে উক্ত খেজুর কাটা দীর্ঘদিন ঢুকে থাকার কারণে এবং সময়মত উক্ত খেজুর কাটাটি বের না করায় আমার স্ত্রীর ডান চোখটি পুরোটাই নষ্ট হয়েছে এবং ডান চোখটি তুলে ফেলতে হবে। নইলে বাম চোখটিও ইনফেকশন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই ডাক্তার সাহেবের পরামর্শ অনুযায়ী এবং আর কোন উপায় না থাকায় গত ২৮ ফেব্র“য়ারী আমার স্ত্রীর চোখে থাকা খেজুর কাটাটি তুলিয়া ফেলে এবং গত ১ মার্চ আমার স্ত্রীর ডান চোখটি অপারেশন করে সারা জীবনের জন্য চোখটি তুলে ফেলা হয়। পরে চিকিৎসা শেষ করে ৪ মার্চ আমি বাসায় আছি। গত ৯ মার্চ ডাঃ টি জামানের চেম্বারে আমি দেখা করে আমার স্ত্রী চোখে কাটা ঢুকে থাকার পরও তিনি আমাকে না জানানোর বিষয়ে জিজ্ঞাসা করিলে তিনি জানান যে, আমার স্ত্রীর চোখে থাকা কাটাটি তুলে ফেললে চোখটি নষ্ট হয়ে যাবে বলে। তিনি আরও জানান, ঢাকার চিকিৎসা এবং তার চিকিৎসা একই। ডাঃ টি জামানের কাছে ৫দিন দেখার পরও আমার স্ত্রীর চোখে কাটা ঢুকে থাকার বিষয়টি আমাকে না জানায়ে তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন না করিয়া এবং ডাক্তারী কাজে তার দায়িত্বের অবহেলা করিয়া আমার সাথে প্রতারনা করে আমার স্ত্রীর ১টি চোখ সারা জীবনের জন্য নষ্ট করে দেয়া হবে। তাই আমার স্ত্রীর সাথে এই ধরনের ঘটনার সঠিক বিচার চাই। যাতে করে ভবিষ্যতে ডাঃ টি জামানের অবহেলায় আর কোন রোগীর চোখ হারাতে না হয়।

সংবাদ সম্মেলনে তার স্ত্রী মোস্তারিনা বেগম ও শিশু ছেলে ও মেয়ে উপস্থিত ছিলেন।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com