1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০০ পূর্বাহ্ন

জীবনঃ তোহফায়ে কুরবানী

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০২০
  • ৬৭ বার পঠিত

– মাওঃ মুহাম্মদ মোস্তফা আল-আমিন

কুরবানীর সংজ্ঞাঃ’কুরবানী’ শব্দটির বাংলা প্রতিশব্দ হলো নৈকট্য, সান্নিধ্য, উৎসর্গ। আর পরিভাষায়, “ঐ নির্দিষ্ট জন্তু যা একমাত্র আল্লাহ তা’য়ালার নৈকট্য ও সন্তষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময়ে আল্লাহ’র নামে যবাহ্ করা হয়।
ইতিহাসঃ যদিও মানব জাতির পিতা আদম (আঃ) এর যুগ থেকেই কুরবানীর প্রথা চালু হয়েছে। তবে আমরা মুসলিম জাতির পিতা ইবরাহীম (আঃ) কর্তৃক স্বীয় প্রাণাধিক পুত্র ইসমাইল (আঃ) কে কুরবানী করার ঘটনার স্মৃতিচারণে কুরবানী করে থাকি। (সূরাহ মা’য়িদা -২৭ এবং সূরাহ সফফাত-১০২ নং আয়াত দ্রঃ)
এ ছাড়া হাদিস শরীফে এসেছে, ” কয়েকজন সাহাবী নবী কারিম (সঃ) কে জিজ্ঞেস করলেন, কুরবানী কি? তদুত্তরে তিনি বললেন, এটা তোমাদের পিতা ইবরাহীম (আঃ) এর রীতি। (মুসতাদরাকে হাকেম-৩৪৬৭)
গুরুত্বঃ হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী কারিম(সঃ) বলেছেন, “যে ব্যক্তির স্বচ্ছলতা থাকা স্বত্তেও কুরবানী করে না, সে যেন আমাদের ঈদগাহের নিকটবর্তী না হয়। (ইবনে মাজাহ্-৩১২৩)
ফজিলতঃ হযরত আয়শা (রাঃ) হতে বর্ণিত, নবী কারিম (সঃ) বলেছেন, আদম সন্তান কুরবানীর দিন যে সব নেকীর কাজ করে থাকে তন্মধ্যে আল্লাহ তা’য়ালার নিকট সবচেয়ে প্রিয় আমল হলো কুরবানী করা। কিয়ামাতের দিন কুরবানির পশু তার শিং,পশম ও খুরসহ উপস্থিত হবে। কুরবানীর পশুর রক্ত জমিনে পতিত হবার পূর্বেই তা আল্লাহ তা’য়ালার নিকট কবুল হয়ে যায়। অতএব তোমরা এই পুরুস্কারে খুশি হও। (তিরমিজি -১৪৩৯;ইবনে মাজাহ্-৩১২৬)
উদ্দেশ্যঃ কুরবানীর উদ্দেশ্য একমাত্র আল্লাহ তা’য়ালার সন্তুষ্টি অর্জন। গোশত খাওয়া নয়। পশু কুরবানী মূলতঃ নিজের কু-প্রবৃত্তিকে কুরবানী করার প্রতিক। (সূরাহ হাজ্জ-৩৭,সূরাহ কাউসার-২ এবং আহকামুল কুরআন, খন্ড -২ দ্রঃ)
যাদের উপর কুরবানী করা ওয়াজিব ঃ মুসলিম হওয়া। স্বাধীন হওয়া। মুকিম হওয়া। বালেগ হওয়া। জ্ঞানবান হওয়া। সচ্ছল হওয়া (ফতোয়ায়ে শামী,খন্ড -৯ দ্রঃ)
সচ্ছল ব্যক্তির পরিচয়ঃ কুরবানীর দিনগুলোতে যার মালিকানায় অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, আসবাবপত্র, ব্যবহারের যানবাহন, উপার্জনের উপকরণ এবং ঋণ ব্যতিত ৫২.৫ তোলা রৌপ্য অথবা ৭.৫ তোলা স্বর্ণ অথবা উহার মূল্য পরিমান সম্পদ থাকলেই তিনি সচ্ছল। (বাহরুর রায়েক, খন্ড -৮)
কুরবানীর সময়ঃ ১০ জিলহজ্জ ঈদের নামাজের পর থেকে ১২ জিলহজ্জ সূর্যাস্তের পূর্ব পর্যন্ত। সচ্ছল কেউ যদি এ সময়ের মধ্যে কুরবানী না করে তবে তিনি পশু বা তার মূল্য সাদকাহ্ করে দিবে। (শামী,খন্ড -৯ দ্রঃ)
কুরবানী বিশুদ্ধ হওয়ার শর্তাবলীঃ গৃহপালিত চতুষ্পদ হালাল জন্তু হওয়া। যেমনঃ উট,গরু,মহিষ,দুম্বা,উটের বয়স ৫ বছর, গরু ও মহিষ ২ বছর, এবং দুম্বা, ভেড়া, ছাগলের ক্ষেত্রে ১ বছর পূর্ণ হওয়া। তবে যদি ছয় মাস বয়সের ভেড়া, দুম্বা ও ছাগল ১ বছর বয়সের সমান হয়, তা দ্বারা কুরবানী করা যাবে। উট,গরু মহিষের ক্ষেত্রে সাতজনের অধিক পক্ষ থেকে না হওয়া এবং দুম্বা, ভেড়া, ছাগলের ক্ষেত্রে ১ জনের পক্ষ থেকে হওয়া। মারাত্মক দোষযুক্ত না হওয়া। কুরবানীর নিয়ত করা। গোশতের নিয়ত আছে এমন কাউকে কুরবানীতে অংশিদার না করা (সমস্ত ফিকহের কিতাব দ্রঃ)। যে সকল পশু দ্বারা কুরবানী জায়েজ নয়ঃ অন্ধ,দৃষ্টিশক্তিহীন এমন খোড়া যে যবাহ’র স্থান পর্যন্ত হেটে যেতে পারে না। কান,জিহ্বা, লেজ, অন্ড এর পূর্ণ বা একতৃতীয়াংশের বেশি কর্তিত। মৃত্যু প্রায় অসুস্থ, যে পশুর হাড়ের মধ্যোস্তিত মজ্জা শুকিয়ে গেছে, যে পশুর দাঁত পড়ে যাওয়ার কারণে ঘাস খেতে পারে না। এছাড়াও হরিণ বা নীলগাই দ্বারা কুরবানী জায়েজ নেই। (আলমগীরী, খন্ড-৫ দ্রঃ)
ঈশুর যে সব অংশ খাওয়া হারামঃ প্রবাহিত রক্ত, পুরুষাঙ্গ, অন্ডকোষ,স্ত্রীঅঙ্গ,মূত্রথলি, লালাগ্রন্থি, পিত্তথলি। (বাদায়ে,খন্ড-৫ দ্রঃ)
কুরবানীর ও আকিকাঃ একই পশু দ্বারা ওয়াজিব, মান্নত, নফল বিভিন্ন রকমের কুরবানী জায়েজ আছে। উট, গরু, মহিষে সাতজন শরিক হতে কেউ যদি আকিকার নিয়ত করে তবে তাও জায়েজ হবে। (আলমগীরী, খন্ড-৫ দ্রঃ)
যবাহ্ করার নিয়মঃ কুরবানীদাতা নিজ হাতেই করা উত্তম। তবে নিজে করতে না চাইলে বা না পারলে অন্যের দ্বারা করাতে পারবেন। যবাহকারীকে অবশ্যই মুসলমান হতে হবে এবং কিবলামুখি হয়ে আল্লাহর নামে যবাহ্ করতে হবে। কুরবানী সহ সকল পশু যবাহ’র নিয়ম হলো, পশুর চারটা রগ তথা শ্বাসনালী,খাদ্যনালী এবং দু’পার্শ্বের দুটি রক্তের মোটা রগ কাটতে হবে। উক্ত রগসমুহের যে কোন তিনটি কাটা গেলে পশু ভক্ষণ করা জায়েজ হবে নতুবা হারাম হবে। আর উটকে নহর করতে হবে। ( ফিকহ বিশ্বকোষ, খন্ড-২১ দ্রঃ)
গোশত ও চামড়ার বিধানঃ মুস্তাহাব হলো, গোশতের তিন ভাগের এক ভাগ নিজে রাখবে, এক ভাগ আত্মীয় স্বজন এবং বাকি এক ভাগ গরীবদেরকে বন্টন করে দেবে। ভাগের কুরবানী হলে ভাগীদারদের মাঝে গোশত ওজন করে বন্টন করা আবশ্যক। কুরবানীর পশুর চামড়া দান করবে, অথবা নিজে ব্যবহার করবে। আর বিক্রি করলে তার মূল্য সাদকাহ্ করে দেবে। (শামী,খন্ড -৯, বাহরুর রায়েক,খন্ড-৮, ফিকহ বিশ্বকোষ, খন্ড -৫ দ্রঃ)বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ যবাহকারী বা কসাইকে পারিশ্রমিক হিসেবে গোশত বা চামড়া দেয়া যাবে না। তা অবশ্যই দিতে হবে তবে তা ভিন্নভাবে। হাদিস শরীফে এসেছে, হযরত আলী (রাঃ)বলেন, আমাকে নবী কারিম (সঃ) এই মর্মে আদেশ করলেন যে, আমি যেন তাঁর কুরবানীর উটের দেখাশোনা করি, উহার গোশত, চামড়া ও জীনপোশ সাদকাহ্ করে দেই এবং উহার থেকে কসাইকে কিছু না দেই। তিনি বলেন, আমরা কসাইকে নিজেদের তরফ থেকে পারিশ্রমিক দিতাম।(সহীহ মুসলিম, হাদিস নং-৩২৪১) আল্লাহ তা’য়ালা আমাদের কুরবানীগুলো তাঁর সন্তুষ্টির জন্য কবুল করুন। আমিন! ইয়া রব্বাল আলামীন!!

লেখকঃ গদ্দিনশীন পীর সাহেব, মাদারগঞ্জ রহমানিয়া

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com