শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

থাই পিয়ারা চাষে স্বাবলম্বী মমিনুল হক

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ৬২১ বার পঠিত

ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধি।- থাই পিয়ারা চাষে স্বাবলম্বী দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার বরাতীপুর গ্রামের মমিনুল হক। নিজের জমি না থাকলেও ৭ বছরের জন্য লিজ নিয়েছে ২০ বিঘা জমি। প্রতি বছর ২০ বিঘা জমির লিজের টাকা দিতে হয় ২ লক্ষ টাকা।
২০১৮ সালে পেয়ারা চাষী মমিনুল হক নাটোর জেলা থেকে থাই পিয়ারার চারা সংগ্রহ করেন। একই সালে চারা ক্রয় রোপণ পরিচর্যা সহ আনুসাঙ্গিক ব্যয় হয় ৭ লক্ষ টাকা।
মমিনুল জানান, প্রথম বছরই সে ফলন ভালো পায় এবং ভালো দামেও বিক্রি করতে পারে। প্রথমবারে পেয়ারা বিক্রি হয় তার ১৭ লক্ষ টাকা। এতে খরচ ১০ লক্ষ বাদে তার আয় হয় ৭ লক্ষ টাকা। সে আরো জানায় প্রতি বছর তার ব্যয় খুব কম। শুধুমাত্র শ্রমিক, পরিচর্যা, ঔষধ বাবদ তার ব্যয় হবে ৩ লক্ষ টাকা। তার ধারনা চলতি মৌসুমে সে ২০ লক্ষ টাকা পেয়ারা বিক্রি করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে। এছাড়া তার বাগানে কোন গাছ নষ্ট হলে তার বাগান থেকেই কলম কেটে পতিত জায়গা গুলিতে পেয়ারা গাছ লাগাতে সক্ষম হচ্ছে। মমিনুল হকের লক্ষ্য ভালো ফলন ও মানুষকে ফর্মালিন কীটনাশকমুক্ত ফল উপহার দেওয়া। যার জন্য সে ফল একটু বড় হলেই প্রতিটি ফলেই পলিথিনের ব্যাগ ব্যবহার করছে। যাতে কোন ক্ষতিকারক কীট-পতঙ্গ বা মেডিসিন ব্যবহারের সময় ফলের গায়ে না পড়ে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, মমিনুল হকের পেয়ারা গাছে কিছু গাছে ফুল আসছে, কিছু গাছে গুটি হচ্ছে, কিছু গাছে মাঝারি আকারের পেয়ারা, আবার কিছু গাছ থেকে পেয়ারা সংগ্রহ করে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত পাইকারদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে। মমিনুল জানায়, তার এই বাগান থেকে সারাবছর পেয়ারা বিক্রি চলবে।
২০১৮ সালে পেয়ারা বাগান করলেও সে প্রথম ২০১৯ সালে পেয়ারা বিক্রি করে সব খরচ বাদে ৮ লক্ষ টাকা লাভবান হয়েছে। তার আশা এবার সে নিজেকে একজন মডেল পেয়ারা চাষী হিসেবে গড়ে তুলতে চায়।
ঘোড়াঘাটে পেয়ারা চাষ নিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এখলাছ হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ঘোড়াঘাটের মাটি পেয়ারা চাষের উপযোগী। এ উপজেলায় বানিজ্যিক ভাবে এতো বড় বাগানের ঝুঁকি কেউ নেয়নি। ইদানিং কিছু কিছু লোক পেয়ারা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে। উপজেলায় বর্তমানে ২০ জন পেয়ারা চাষী ১০ হেক্টর জমিতে পেয়ারা চাষ করছে। চলতি মৌসুমে এ বাগান গুলো থেকে ২০০ টন পেয়ারা উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। বর্তমান বাজারে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে এ পেয়ারা বিক্রি হলেও শীত মৌসুমে ভালো দাম পাওয়া যায়। এ উপজেলায় থাই-সেভেন ও থাই-ফাইভ জাতের পেয়ারা চাষ হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com