মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

নবাবগঞ্জে অন্যের জমিতে জোরপূর্বক ঘর নির্মাণ: পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬৮ বার পঠিত
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে সৈয়দ হারুনুর রশীদ।- দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ভাদুরিয়া বাজারে বিবাদীয় জমিতে জোরপূর্বক  ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।খবর পেয়ে নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। ঘটনাস্থল পরিদর্শন, ইউপি চেয়ারম্যান আসমান জামিল সহ গান্যমান্য ব্যক্তিদের থেকে  জানা যায় ভাদুরিয়া বাজারের কলেরদিঘী নামক পুকুরের পশ্চিম-উত্তর দিকে পাড় ১১৫ নং দাগে মোট ৫৫ শতক জমি।হেলেঞ্চা গ্রামের মৃত্যু আলহাজ্ব আফাজ উদ্দিন ও-ই ৫৫ শতক জমির মধ্য হতে ১৯৬২ ইং সালে ৩৩ শতক জমি ৯৯ বছরের জন্য স্থায়ী বন্দবস্ত নিয়ে সন-সন খাজনা পরিশোধ করে আসেন।পরবর্তিতে ১৯৭৫ সালে অন্যান্যরা অবশিষ্ট ১২ শতক ও ০৮ শতক মোট ২০ শতক জমি একই ভাবে বন্দবস্ত করে নেয় এবং ০২ শতক জমি জন সাধারনের পুকুরে যাতায়াতের জন্য রাখা হয়। সম্প্রতি সময়ে আফাজ উদ্দিনের ৩৩ শতক জমির মধ্য হতে প্রায় ১০ শতক জমিতে জোরপূর্বক ঘরে নির্মান করার জন্য শিমর গ্রামের মৃত্যু তছলিম উদ্দিন চৌধুরীর ছেলে জাহাঙ্গীর চৌধুরী গংরা পায়তারা চালাতে থাকে।এ ঘটনা দেনদরবার ও শেষে আদালতে মোকদ্দমা সৃষ্টি হয়।আজ শনিবার ৫ সেপ্টেম্বর জাহাঙ্গীর চৌধুরী গংরা বিচারাধীন থাকা ও-ই জমিতে মারাত্নক অস্ত্র- সস্ত্রে সজ্জিত লাঠিয়াল বাহিনীকে নিয়ে জোরপূর্বক ঘর নির্মানের কাজ শুরু করে।এদিকে মৃত্যু আফাজ উদ্দিনের ছেলে সাধিন খবর পেয়ে তার লোকজন সহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে উভয় পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।খবর পেয়ে বেলা ১১ টায় নবাবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ অশোক কুমার চৌহান দ্রুত ঘটনাস্থলে একদল পুলিশ পাঠায়।পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে এবং আদালতের রায় কার্যকরের পুর্ব পর্যন্ত উভয় পক্ষকে নির্মান কাজ বন্ধ রাখার জন্য নিষেধ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com