1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০১:৫৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জে গ্রাম্য সালিশে শ্লীলতাহানির ঘটনা মিমাংসা রংপুর নগরীতে যানবাহনের সাথে বেড়েছে মানুষের চলাচল খুলছে দোকানপাট রংপুরে বেড়েছে শনাক্তের হার: আরও ১৫ জনের মৃত্যু রংপুরের বদরগঞ্জে এক নারীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ বগুড়া র‌্যাবের পৃথক পৃথক অভিযানে ৮ মাদক ব্যবসায়ীসহ ১৬ জন জুয়াড়ি গ্রেফতার দৈনিক তিস্তার সম্পাদক মরহুম আলহাজ্ব মিজানুর রহমানের চল্লিশা ও দোয়া খায়ের অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে কৃষকের মৃত্যু উপজেলা চেয়ারম্যানের রোগমুক্তি কামনা করে ঘোড়াঘাটে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  নবাবগঞ্জে অপসোনিন এর সেলসম্যানের ঔষধ চুরি ঘটনা ধরা পড়ায় অপসোনিনে ঔষধ বর্জন ঘোড়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যানের রোগমুক্তি কামনায়  বিশেষ দোয়া  অনুষ্ঠিত 

নবাবগঞ্জে চড়ারহাটে একাত্তরের শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল 

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫৭ বার পঠিত
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) সৈয়দ হারুনুর রশীদ।-  দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের চড়ারহাট (প্রাণকৃঞ্চপুর) গ্রামে ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আজকের এই দিনে পাক বাহিনী তাদের দোসরদের ইশারায় নিরিহ ১৫৭ মানুষকে গুলি করে হত্যা করেছিল। ও-ই শহীদদের স্মরণে প্রতিবারের মতো আজকেও পুটিমারা আওয়ামীলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সরোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে দুপুর ১২ টায় এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে মুক্তিযোদ্ধা ফোরামের সেক্টর কমান্ডার আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামীলীগের জেলা সহ-সভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহার,বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসান আলী সহজ অন্যান্যরা। আলোচনা সভার পর্বে মুক্তিযোদ্ধা ফোরাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার,চড়ার হাট শহীদ স্মৃতি কলেজ ও প্রানকৃষ্ণ উচ্চ বিদ্যালয়ের পক্ষে স্মৃতি মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়ে।৭১ সালের ওই দিনের ঘটনায়
জানা যায়, হানাদার বাহিনীর উপর মুক্তি সেনারা হামলা চালিয়েছিল বিরামপুর উপজেলার বিজুল নামক স্থানে। এরই প্রেক্ষাপটে প্রতিশোধ নিতে ওই দিন ভোরে তারা চড়ারহাট (প্রাণকৃঞ্জপুর) গ্রাম ঘেরাও করে গ্রামের মানুষকে একত্রিত করার পর লাইন করে দাঁড় করিয়ে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছিল। তখন এর মধ্যে কেউ কেউ আহত হয়ে ছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষায় হানাদার বাহিনীর নারকীয় ওই হত্যাকান্ডের  পর লাশের কাফনের কাপড় হিসাবে শাড়ী ও মশারীর কাপড় ব্যবহার করে এক কবরে একাধিক লাশ দাফন করা হয়েছিল। বর্তমানে শহীদদের স্বরণে সেখানে একটি স্মৃতিমিনার স্থাপন করা হয়েছে। প্রতি বছরের এই দিনে সেখানে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা হয়ে থাকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com