বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০২:১৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ রংপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রার্থী আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মর্যাদার লড়াই জাতীয় পার্টির বিরামপুর পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন নদীর ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি রাস্তা পাকাকরণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম  দেখার কেউ নেই “স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩” পেল প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট রংপুরে যুবদল নেতা নয়নের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রংপুর নগরীতে  বাড়িতে হামলা সরকারি জমি থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ  বিরামপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মা দিবস অনুষ্ঠিত

নবাবগঞ্জে চড়ারহাটে একাত্তরের শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল 

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৫৪ বার পঠিত
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) সৈয়দ হারুনুর রশীদ।-  দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের চড়ারহাট (প্রাণকৃঞ্চপুর) গ্রামে ১৯৭১ সালের ১০ অক্টোবর স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আজকের এই দিনে পাক বাহিনী তাদের দোসরদের ইশারায় নিরিহ ১৫৭ মানুষকে গুলি করে হত্যা করেছিল। ও-ই শহীদদের স্মরণে প্রতিবারের মতো আজকেও পুটিমারা আওয়ামীলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সরোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে দুপুর ১২ টায় এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে মুক্তিযোদ্ধা ফোরামের সেক্টর কমান্ডার আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামীলীগের জেলা সহ-সভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ নাজমুন নাহার,বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসান আলী সহজ অন্যান্যরা। আলোচনা সভার পর্বে মুক্তিযোদ্ধা ফোরাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার,চড়ার হাট শহীদ স্মৃতি কলেজ ও প্রানকৃষ্ণ উচ্চ বিদ্যালয়ের পক্ষে স্মৃতি মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়ে।৭১ সালের ওই দিনের ঘটনায়
জানা যায়, হানাদার বাহিনীর উপর মুক্তি সেনারা হামলা চালিয়েছিল বিরামপুর উপজেলার বিজুল নামক স্থানে। এরই প্রেক্ষাপটে প্রতিশোধ নিতে ওই দিন ভোরে তারা চড়ারহাট (প্রাণকৃঞ্জপুর) গ্রাম ঘেরাও করে গ্রামের মানুষকে একত্রিত করার পর লাইন করে দাঁড় করিয়ে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছিল। তখন এর মধ্যে কেউ কেউ আহত হয়ে ছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষায় হানাদার বাহিনীর নারকীয় ওই হত্যাকান্ডের  পর লাশের কাফনের কাপড় হিসাবে শাড়ী ও মশারীর কাপড় ব্যবহার করে এক কবরে একাধিক লাশ দাফন করা হয়েছিল। বর্তমানে শহীদদের স্বরণে সেখানে একটি স্মৃতিমিনার স্থাপন করা হয়েছে। প্রতি বছরের এই দিনে সেখানে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা হয়ে থাকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com