বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:০৩ অপরাহ্ন

রংপুর নগরীর বর্ধিত ওয়ার্ডের সড়ক ভেঙ্গে একাকার: চরম দুর্ভোগে মানুষ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৫ জুলাই, ২০২০
  • ২৪৮ বার পঠিত

রংপুর প্রতিনিধি।-চলমান বর্ষায় রংপুর নগরীর বর্ধিত ওয়ার্ড গুলোর সড়ক ভেঙ্গে একাকার হয়ে গেছে। এতে করে বর্ধিত ওয়ার্ডের লাখো মানুষ চরম দুর্ভেগে পড়েছে। নগরীর ৩১ নং ওয়ার্ডের পানবাড়ি গ্রামের আশরাফুল আলম বলেন, গত এক সপ্তাহ আগের ভারী বর্ষনে পানবাড়ির বিভিন্ন সড়ক কয়েক জায়গায় ভেঙ্গে যায়। সংযোগ বিছিন্ন হওয়ার কারনে বিপদে আছি। চলাচল করতে হচ্ছে ভেলায় করে। এখন আগে দরকার সড়কের সংযোগ ঠিক করা।
তার মতো আপেল মিয়া জানান, ঘাঘট নদী দ্বারা বিভক্ত ওয়ার্ডটির বিভিন্ন এলাকার সড়কে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। মানুষজন কষ্ট করে যাতায়াত করছেন। রংপুর নগরীর ৩১ নং ওয়ার্ডের পানিবাড়ি সড়ক নিয়ে এভাবেই কষ্টের কথা জানান অত্র এলাকার রিক্সা চালক নুরুল হুদা। তিনি বলেন, আগে থেকেই সড়কটির বেহালদশা। তারপরে গত রোববারের বৃষ্টির কারনে সড়কটির ১০ স্থানে ভেঙ্গে গেছে। কোন কোন স্থানে ক্ষেতে পরিণত হয়েছে। সড়কের বেহালদশার কারনে বাড়িতে ঢুকছে পানি। পানি প্রবেশ করেছে ঘরের মধ্যেও।
সরেজমিনে জানা গেছে, গত ১ সপ্তাহ ধরে বন্যায় নগরীর ৩১ নং ওয়ার্ডের সিলিমপুর, পানবাড়ি, বৃদ্দিবান, দক্ষিণ নাজির দিগর, বনগ্রাম, গাইবান্ধাপাড়া, ঘাঘটপাড়া, পূর্ব নাজির দিগর সড়কের বিভিন্নস্থানে ভেঙ্গে গেছে। এই ওয়ার্ডের ১৩ হজারের ওপরে মানুষ বসবাস করে আসছে। মানুষগুলো যোগাযোগ বিচিছন্ন অবস্থায় রয়েছে।
নাজিরদিঘর এলাকার কৃষক আ : আজিজ জানান, রাস্তা ভাঙ্গার কারনে এখন আর বাজারে সাইকেলে করে পণ্য নিয়ে যেতে পারছেন না। আরেকজন কৃষকও তার কষ্টের কথা তোলে ধরেন।
কয়েকজন নারী জানান, তারা এনজিওর চাকরি করেন। যার কারনে তাদের প্রায় সময় বের হতে হয়। সড়কের বেহালদশার জন্য এখন ভেলার ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। চাকরীজীবি রোকেয়া বেগম বলেন, বর্ষায় ভেঙ্গে যাওয়ার কারনে এখন আর বুঝা যায় না এটি সড়ক না ক্ষেত।
কয়েকজন প্রতিবন্ধী জানান, সড়ক ভেঙ্গে যাওয়ায় তাদের কষ্ট বেড়েছে। এই সড়কের মতই ভেঙ্গে গেছে সিলিমপুর সড়ক। এই সিলিমপুর সড়কও ক্ষেত না সড়ক তা বোঝার কোন উপায় নেই বলে জানান স্থানীয়রা ।
তারা বলেন, এই সড়কটি দিয়েই বেশির ভাগ মানুষ যাতায়াত করে থাকে। চলাচলের সময় ভাঙ্গা স্থানে পড়ে অনেকে আহতও হচ্ছে। দক্ষিণ নাজির দিগর এলাকার কয়েকজন সড়কের ভাঙ্গা প্রসঙ্গ তোলে ধরে বলেন, তাদের ওয়ার্ডের চেয়ে গ্রামের সড়কগুলো বেশ ভালো আছে।
ওয়ার্ডটির কয়েকজন সমাজকর্মী জানান, এই ওয়ার্ডটির চারপাশে ঘাঘট নদী। নদীর ওপর একটি ব্রিজের কাজ অসমাপ্ত হয়ে আছে। সব দিক দিয়ে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। খোদ কাউন্সিলর অফিসের সামনেও রাস্তা ভেঙ্গে গেছে।  ৩১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র সামসুল হক জানান, বর্ষায় তার ওয়ার্ডের মানুষ যেমন পানিবন্দি রয়েছে। তেমনি প্রায় প্রতিটির সড়কের বিভিন্নস্থানে ভেঙ্গে গেছে। এখন বেশি প্রয়োজন অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো। তিনি আরো জানান, তিনি দিনে রাতে প্রতিটি পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে ঘরে তাদের সাথে কথা বলছেন। কয়েকটি সড়কের টেন্ডার হয়েছে। বর্ষা পার হলেই কাজ শুরু হবে বলেও জানান এই প্যানেল মেয়র। এই বর্ষায় ৩২ নং ওয়ার্ডের প্রায় প্রতিটি সড়ক ভেঙ্গে গেছে। যেসব সড়ক ভেঙ্গে গেছে সেসব সড়ক হল- সরায়ারতল, মোল্লাপাড়া, লক্ষণপাড়া, আরজি তামপাট, সর্দারপাড়া, মোগলেরবাগ ও শান্তিপাড়া সড়ক। এই ওয়ার্ডের লোকসংখ্যা ১৯ হাজারের ওপরে।
সয়ারতল এলাকার কয়েকজন প্রবীণ জানান, কয়েক দিন আগেও সড়কের ভাঙ্গা স্থানে মাটি দিয়ে ভরাট করা হয়। গত রোববারের বর্ষায় এখন সড়কটির কয়েক হাত পর পর ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সর্দারপাড়া এলাকার কয়েকজন সড়কটি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন। তারা জানান, ঈদের পর স্কুল খোলবে। তখন ছেলেমেয়েরা কিভাবে যাতায়াত করবে এ চিন্তায় আছেন।  ৩২ নং ওয়ার্ড সামাজিক উন্নয়ন পরিষদ- সব সময় সমাজ পরিবর্তনে কাজ করে যাচ্ছে। এই দুর্ভোগের সময়েও সংগঠনটির সদস্যরা ওয়ার্ডবাসির খোঁজ খবর নিচ্ছেন। এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হারুন উর রশিদ সোহেল জানান, ভারী বর্ষায় পানিতে অনেক জায়গায় সড়ক ভেঙ্গে গেছে। সামন্য বৃষ্টি হলে সড়ক- বাড়ির সামনে পানি জমে থাকে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় এই জলাবদ্ধার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো জানান, এখন অনেক সড়কগুলো ভেঙ্গে যোগাযেগা ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দ্রুত গতিতে ভাঙ্গা সড়কগুলো সংস্কার করা দরকার।  ৩৩ নং ওয়ার্ডের লোক সংখ্যা ২০ হাজারের ওপরে। এই ওয়ার্ডের হোসেন নগর, বগুড়াপাড়া, তালুক রঘু ও মেকুরা এলাকার সড়কও ভারী বর্ষায় ভেঙ্গে গেছে। এই বর্ষায় ১৩,১৪ এবং ১৫ নং ওয়ার্ডেরও ২টি করে সড়ক পানির তোড়ে ভেঙ্গে একাকার হয়েছে। বেহাল অবস্থায় আছে ৪, ৫, ৬, ৭ এবং ৮ নং ওয়ার্ডের সড়কও।
সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ভারী বর্ষের পর পরেই খোঁজ নেয়া শুরু করেছেন। যেসব ওয়ার্ডের সড়ক ভেঙ্গে গেছে সেসব সড়কের তালিকা করা হচ্ছে। দ্রুত সংস্কারের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এছাড়াও ওয়ার্ডগুলোতেও অনেক সড়কের টেন্ডার হয়েছে। বর্ষকাল বলেই বন্ধ আছে। বর্ষার পর কাজ শুরু হবে। নতুন সড়ক হলে দৃশ্যপটই পাল্টে যাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com