মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১০:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মিলনপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা ঘোড়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন  বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল সাপাহারে জাতীয় শোক দিবস পালন জিয়া-মোস্তাকরা এখন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে-হুইপ ইকবালুর রহিম পার্বতীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে- বানিজ্যমন্ত্রী রংপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত বিরামপুরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭-তম শাহাদত বার্ষিকী বঙ্গবন্ধুর  জন্ম না হলে   বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না – মেয়র  সরোয়ার

শিশুদের উপর নির্যাতন মেনে নেয়া যায় না

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১০ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ সোহেল ।- রংপুরের পীরগঞ্জে দুই শিশুকে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে সৎমায়ের বিরুদ্ধে। এ ঘটনার ছবি ও ভিডিও সম্প্রতি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তেই তা ভাইরাল হয়। ভিডিও এবং ছবি দেখে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।জানা গেছে, আট বছর আগে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার শিয়ালকাঠি এলাকার মাসুদ আহমেদের মেয়ে মুনিয়া আক্তার মারুফার সাথে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার শানেরহাট ইউনিয়নের খোলাহাটি গ্রামের জাহিদুল ইসলাম সেতুর বিয়ে হয়। তাদের সংসারে জাবির হোসেন (৪) ও জোনায়েদ হোসেন (৩) নামে দুইটি ছেলে জ্ন্মগ্রহণ করে।

জানা যায়, জীবিকার তাগিদে জাহিদুল ঢাকায় চাকরি করতেন। তার স্ত্রী প্রথম দিকে ঢাকায় থাকলেও পরে দুই ছেলেকে নিয়ে পীরগঞ্জে থাকতেন। জাহিদুল ঢাকা থেকে ছুটি নিয়ে পীরগঞ্জ এলে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হতো। এরইমধ্যে ঢাকায় গোপনে আরো একটি বিয়ে করেন জাহিদুল।

তারপর গত বছরের ১২ ডিসেম্বর কৌশলে দুই ছেলেকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে জিম্মি করে প্রথম স্ত্রী মুনিয়ার কাছ থেকে তালাকনামায় স্বাক্ষর নেন সেতু। পরে দুই ছেলেকে ফেরত চাইলে জাহিদুল ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী সুমনা বেগম সন্তানদের মারধরসহ জীবননাশের হুমকি দিয়ে মুনিয়াকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। পরে মুনিয়া কোনো উপায় না পেয়ে ঢাকায় চলে যান এবং পোশাক কারখানায় কাজ করতে থাকেন। আশপাশের পরিচিত লোকজনের মাধ্যমে খোঁজখবর নিয়ে মুনিয়া জানতে পারেন, প্রায়ই শিশু দুটিকে সৎমা সুমনা নির্যাতন করে। ঠিকমতো তাদের খেতেও দেন না। এদিকে গত ৯ আগস্ট রাতে জাহিদুলের উপস্থিতিতে সৎমা সুমনা দুই শিশুকে চড়-থাপ্পড়সহ -লাঠি দিয়ে পিটিয়ে জখম করেন। এ সময় দুই শিশুর মাথায়, বুকে, পিঠে লাথি ও ধারালো ছোরা দিয়ে আঘাত করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ঘটনার সময় প্রতিবেশীরা দুই শিশুকে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হন। পরে দুই শিশুকে নির্যাতনের ঘটনায় মমতাজ নিগার সঙ্গীতা নামে মুনিয়ার এক ননদ প্রতিবাদ করলে তাকেও মারধর, হত্যাসহ মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির হুমকি দেন জাহিদুল ও সুমনা। বাধ্যহয়ে পরদিন পীরগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন সঙ্গীতা। পরবর্তীতে দুই শিশুর মা মুনিয়া মোবাইল ফোনে বিভিন্নজনের কাছ থেকে ঘটনা জানতে পেরে গত ১৯ আগস্ট পীরগঞ্জ থানায় মামলা করেন। এতে কাজী জাহিদুল ইসলাম সেতুকে প্রধান ও সুমনা বেগমকে দুই নম্বর আসামি করা হয়। গত ৩ সেপ্টেম্বর পীরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন সেতু ও সুমনা। সেখান থেকে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। এ সময় শিশুরাও আদালতে উপস্থিত ছিল। পরে ম্যাজিস্ট্রেট শিশু দুটিকে দেখা ভাল করার জন্য তাদের দাদার জিম্মায় দেন।

এ ব্যাপারে খোঁজ খবর নিতে আমরা এলাকার লোকজনদের সাথে কথা বলেছি। এ সময় খোলাহাটি এলাকার খন্দকার শামীম তাবাসসুম ও কাজী রেলা বলেছেন, তারা বিষয়টি জানেন; তারা বলেন, সৎমা সুমনা অমানবিকভাবে দুই শিশুকে নির্যাতন চালিয়ে আসছিলেন। তারা বিভিন্ন সময় নিষেধ করেছেন। কিন্তু তারা তাদের কথা রাখেননি।

জানা যায় ঘটনার দিন দরজা বন্ধ করে নির্মমভাবে দুই শিশুকে পেটান সুমনা। শিশু দুটির মা মুনিয়া আক্তার জানিয়েছেন, জোর করে তালাকনামায় স্বাক্ষর নিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হয়েছিল।এরপর থেকে তার দুই সন্তানকে নির্যাতন করেছেন জাহিদুল ও সুমনা। ঠিকমতো খেতেও দেননি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, একজন উপ-সচিব আসামিদের আত্মীয় হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে মামলা তুলে নেয়ার জন্য আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। আবার জাহিদুলও বিচারকের গাড়িচালক পরিচয় দিয়ে আদালতসহ বিভিন্ন মানুষকে প্রভাবিত করছে। আমি একা, এজন্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

এখন কথা হচ্ছে, শিশুদের উপর নির্যাতন মেনে নেয়া যায়না। আমরা মনে করি অভিযুক্ত পিতা জাহিদুল ইসলাম সেতু প্রথম স্ত্রীর বিনা অনুমতিতে দ্বিতীয় বিয়ে করে অন্যায় করেছেন। তার পর শিশু দু’টিকে তাদের মায়ের নিকট থেকে কেড়ে নিয়ে মায়ের আদর,যন্ত্র ,ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত করেছেন। সেখানেই শেষ নয় অবুঝ শিশু দু’টিকে মায়ের নিকট থেকে কেড়ে নিয়ে গিয়ে আটকিয়ে রেখে তাদের মাকে তালাক নিতে বাধ্য করা হয়েছে। তার পর দ্বিতীয় স্ত্রী তার সামনে শিশুদেরকে নির্যাতন করলেও জাহিদুল কোন প্রতিকার করে নাই।এ সব অমার্জনীয় অপররাধ বলে মনে করি।

আবার বিমাতা সুমনা দিনের পর দিন শিশু দুটিকে শারীরিক ও মানুসিক ভাবে নির্যাতন করেছেন। খেতেও দেননি ঠিক মত। এটা অমানবিক ঘটনা। সেখানেই শেষ নয়, মাথায় ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। মাথায় কাটা দাগ আছে। এ গুলো মেনে নেয়ার বিষয় নয়! এই সব ঘটনার কারনে শিশুদুটির মানসিক বিকাশে অবশ্যই ব্যাঘাত ঘটবে। ভবিষ্যতে তারা স্বাভাবিক নাও হতে পারে। দেশে আইন আছে, দেশে বিচারের ব্যবস্থা আছে। এ দেশে ইচ্ছে করলেই যে কেউ যা খুশি তাই করতে পারে না। তাই আমরা মনে করি এঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার এবং দোষিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা উচিত। যাতে ভবিষ্যতে আর কোন শিশু বিমাতার দ্বারা নির্যাতনের শিকার না হয়।

অপর দিকে আমরা পুলিশের সাথে কথা বলে জেনেছি, প্রথমে শিশু দুটিকে উদ্ধারের পর পীরগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ।সেখানকার ব্যবস্থাপত্র মোতাবেক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পীরগঞ্জ থানার এসআই মিলন বলেছেন, নির্যাতনের বিষয়টি খুবই অমানবিক। এ ঘটনার তদন্ত চলছে। মেডিকেল সার্টিফিকেট পেলে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতামত নিয়ে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে। শিশু দুটির দাদা কাজী শামিম আহম্মেদ বলেন, শিশুদের আমার জিম্মায় দিয়েছে আদালত। বর্তমানে তারা ভালো আছে। আমরা এখন শেষ ভালোটা দেখার অপেক্ষায় রইলাম।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com