1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কোলাকুলি আর করমর্দন ছাড়াই রংপুরে পালিত হলো ঈদ উল আযহা পীরগঞ্জে ইউপি ভবনে তালা অত:পর সংবাদ সন্মেলন প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো উপহার কাহারোলে জয়বাংলা ভিলেজে অসহায়দের পৌছে দিলেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি রংপুরে ঈদুল আযহা কর্মসূচি গ্রহণ: প্রধান জামাত সকাল ৮টায় সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  রংপুরে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু আরও ১১ শনাক্ত ৪৭৪ বগুড়ায় পর্নোগ্রাফি আইনে দুই তরুণ গ্রেফতার দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির রংপুর মহানগর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদকের ঈদ শুভেচ্ছা

সুফিবাদ : অষ্টম পর্ব

  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৪ বার পঠিত

অধ্যক্ষ মাওঃ রুহুল আমিন

তাফসীর : ২,
সালাত,বা নামাজের উপর অটল থাকা অনেক কঠিন বিষয়। অনেকেই নামাজ জানে,দৈনিক ৫ ওয়াক্ত নিয়মিত আদায় করে না।অনেকে,অলসতা,শীত,খেলা, ও অন্যন্য বাজে কাজে মগ্ন থাকায় নামাজের নিয়মানুবর্তিতা পালন করে না,।ইহা রড় অপরাধ ও কবীরা গুনাহ। যার নামাজ ঠিক তার অন্যন্য দ্বীনি কাজ সহজ।এজন্য আল্লাহ তায়ালা বলেন,ইহা বড়ই কঠিন কাজ।পরকালে হিসাব শুরু হবে নামাজে দিয়ে।وَ اسۡتَعِیۡنُوۡا بِالصَّبۡرِ وَ الصَّلٰوۃِ ؕ وَ اِنَّہَ لَکَبِیۡرَۃٌ اِلَّا عَلَی الۡخٰشِعِیۡنَ ﴿ۙ۴۵﴾
আর তোমরা ধৈর্য ও সালাতের মাধ্যমে সাহায্য চাও। নিশ্চয় তা বিনয়ী ছাড়া অন্যদের উপর কঠিন।তামরা ধৈর্য ও সালাতের মাধ্যমে সাহায্য প্রার্থনা করো। আর তা আল্লাহভীরু ব্যক্তিবর্গ ছাড়া অন্য সকলের কাছে নিশ্চিতভাবে কঠিন। ধৈর্য ও সালাতের মাধ্যমে মহান আল্লাহর সাহায্য লাভ হবে এ আয়াতে মানুষকে দুনিয়া ও আখিরাতের কাজে ধৈর্য ও সালাতের মাধ্যমে সাহায্য প্রার্থনা করতে বলা হয়েছে।মহান আল্লাহর বান্দাদেরকে কর্তব্য পালন করতে এবং সালাত আদায় করতে বলা হয়েছে। সিয়াম পালন করাও হচ্ছে ধৈর্য ধারণ করা। এ জন্যই রামাযান মাসকে ধৈর্যের মাস বলা হয়েছে। (তাফসীর ইবনু আবী হাতিম ১/১৫৪) রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ ‘সিয়াম অর্ধেক ধৈর্য।’ ধৈর্যের ভাবার্থ পাপের কাজ হতে বিরত থাকাও বটে। এ আয়াতে যদি ধৈর্যের ভাবার্থ এটাই হয়ে থাকে তাহলে মন্দ কাজ হতে বিরত থাকা ও সাওয়াবের কাজ করা এ দু’টিই বর্ণনা হয়ে গেছে। সাওয়াবের কার্যসমূহের মধ্যে সর্বোত্তম হচ্ছে সালাত। ‘উমার (রাঃ) বলেনঃ ‘ধৈর্য দু’প্রকার। (১) বিপদের সময় ধৈর্য। (২) পাপের কাজ হতে বিরত থাকার ধৈর্য। দ্বিতীয় ধৈর্য প্রথম ধৈর্য হতে উত্তম।’ সা‘ঈদ ইবনু যুবাইর (রহঃ) বলেনঃ ‘প্রত্যেক জিনিস মহান আল্লাহর পক্ষ হতে হয়ে থাকে মানুষের এটা স্বীকার করা, সাওয়াব প্রার্থনা করা এবং বিপদের প্রতিদানের ভাণ্ডার মহান আল্লাহর নিকট আছে এটা মনে করার নাম ধৈর্য।’ মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির কাজে ধৈর্যধারণ করলেও মহান আল্লাহর আনুগত্য স্বীকার করা হয়। সাওয়াবের কাজে সালাত দ্বারা বিশেষ সাহায্য পাওয়া যায়। কুর’আন মাজীদে ঘোষিত হয়েছেঃ
﴿اُتْلُ مَاۤ اُوْحِیَ اِلَیْكَ مِنَ الْكِتٰبِ وَ اَقِمِ الصَّلٰوةَ١ؕ اِنَّ الصَّلٰوةَ تَنْهٰى عَنِ الْفَحْشَآءِ وَ الْمُنْكَرِ١ؕ وَلَذِكْرُ اللّٰهِ اَكْبَرُ﴾
তুমি তোমার প্রতি প্রত্যাদিষ্ট কিতাব আবৃত্তি করো এবং সালাত প্রতিষ্ঠিত করো। নিশ্চয়ই সালাত বিরত রাখে অশ্লীল ও মন্দ কাজ হতে। মহান আল্লাহর স্মরণই সর্বশ্রেষ্ঠ। (২৯ নং সূরাহ্ ‘আনকাবূত, আয়াত নং ৪৫) হুযাইফা (রাঃ) বলেন যে, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যখনই কোন কঠিন ও চিন্তাযুক্ত কাজের সম্মুখীন হতেন তখনই তিনি সালাতে দাঁড়িয়ে যেতেন। সম্ভবত এখানে সর্বনাম প্রয়োগ করা হয়েছে উপদেশ দানের উদ্দেশে, ধৈর্য এবং সালাতের মাধ্যমে, যেমনটি উল্লেখ পাওয়া যায় একই আয়াতে। অনুরূপ, কুরুন সম্পর্কে আল্লাহ তা‘আলা বলেনঃ
﴿وَ قَالَ الَّذِیْنَ اُوْتُوا الْعِلْمَ وَیْلَكُمْ ثَوَابُ اللّٰهِ خَیْرٌ لِّمَنْ اٰمَنَ وَ عَمِلَ صَالِحًا١ۚ وَ لَا یُلَقّٰىهَاۤ اِلَّا الصّٰبِرُوْنَ﴾
আর যাদেরকে জ্ঞান দেয়া হয়েছিলো তারা বললোঃ ধিক্ তোমাদেরকে! যারা ঈমান আনে ও সৎ কাজ করে তাদের জন্য মহান আল্লাহর পুরস্কার শ্রেষ্ঠ এবং ধৈর্যশীল ব্যতীত এটা কেউ পাবে না। (২৮ নং সূরাহ্ কাসাস, আয়াত নং ৮০) আল্লাহ তা‘আলা আরো বলেনঃ
﴿وَ لَا تَسْتَوِی الْحَسَنَةُ وَ لَا السَّیِّئَةُ١ؕ اِدْفَعْ بِالَّتِیْ هِیَ اَحْسَنُ فَاِذَا الَّذِیْ بَیْنَكَ وَ بَیْنَهٗ عَدَاوَةٌ كَاَنَّهٗ وَلِیٌّ حَمِیْمٌ۝۳۴ وَ مَا یُلَقّٰىهَاۤ اِلَّا الَّذِیْنَ صَبَرُوْا١ۚ وَ مَا یُلَقّٰىهَاۤ اِلَّا ذُوْ حَظٍّ عَظِیْمٍ﴾
ভালো কাজ এবং মন্দ কাজ সমান হতে পারে না। মন্দ প্রতিহত করো উৎকৃষ্ট দ্বারা; ফলে তোমার সাথে যার শত্রুতা আছে সে হয়ে যাবে অন্তরঙ্গ বন্ধুর মতো। এই গুণের অধিকারী করা হয় শুধু তাদেরকেই যারা ধৈর্যশীল, এই গুণের অধিকারী করা হয় শুধু তাদেরকেই যারা মহাভাগ্যবান। (৪১ নং সূরাহ্ হা-মিম সাজদাহ, আয়াত নং ৩৪-৩৫)খন্দকের যুদ্ধে রাতের বেলায় হুযাইফা (রাঃ) রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর কাছে হাযির হলে তাঁকে সালাত আদায় করতে দেখতে পান। অন্যত্র ‘আলী (রাঃ) বলেনঃ ‘বদর যুদ্ধের রাতে আমরা সবাই শুইয়ে পড়েছি, আর জেগে দেখি যে, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) সারা রাত সালাত আদায়ে রত রয়েছেন। সকাল পর্যন্ত তিনি সালাত ও প্রার্থনায় মশগুল ছিলেন।’‘আবদুল্লাহ ইবনু ‘আব্বাস (রাঃ) সফরে তাঁর ভাই কাসাম (রাঃ)-এর মৃত্যু সংবাদ পেয়ে ﴿ اِنَّا لِلّٰهِ وَ اِنَّاۤ اِلَیْهِ رٰجِعُوْنَ﴾ ) (২ নং সূরাহ্ বাকারাহ, আয়াত নং ১৫৬)পাঠ করে পথের এক ধারে সরে গিয়ে উটকে বসিয়ে দেন এবং সালাত শুরু করেন। দীর্ঘক্ষণ সালাত আদায় করার পর সাওয়ারীর নিকট আসেন এবং এই আয়াত দু’টি পাঠ করতে থাকেন। মোট কথা, ধৈর্য ও সালাত এ দু’টি দ্বারা মহান আল্লাহর করুণা লাভ করা যায়। মহান আল্লাহ বলেনঃ
﴿وَ رَاَ الْمُجْرِمُوْنَ النَّارَ فَظَنُّوْۤا اَنَّهُمْ مُّوَاقِعُوْهَا﴾
পাপীরা আগুন অবলোকন করে আশঙ্কা করবে যেন তারা এতেই পতিত হবে, বস্তুত এটা হতে তারা পরিত্রাণ পাবে না। (১৮ নং সূরাহ্ কাহফ, আয়াত নং ৫৩)একটি সহীহ হাদীসে আছে যে, কিয়ামতের দিন এক পাপীকে আল্লাহ তা‘আলা বলবেনঃ ‘আমি কি তোমাকে স্ত্রী ও সন্তানাদি দেইনি? তোমার প্রতি কি নানা প্রকারের অনুগ্রহ করিনি, ঘোড়া ও উটকে কি তোমার অধীনস্থ করিনি? তোমাকে কি শান্তি, আরাম, আহার্য ও পানীয় দেইনি?’ সে বলবে, ‘হ্যাঁ, হে প্রভু! এ সব কিছ্ইু ছিলো।’ তখন মহান আল্লাহ বলবেনঃ ‘তাহলে তোমার কি এই জ্ঞান ও বিশ্বাস ছিলো না যে, তোমাকে আমার সাথে সাক্ষাৎ করতে হবে? সে বলবেঃ ‘হ্যাঁ হে প্রভু! এর প্রতি আমার বিশ্বাস ছিলো।’ মহান আল্লাহ বলবেনঃ ‘তুমি যেমন আমাকে ভুলে গিয়েছিলে তেমনই আমিও তোমাকে ভুলে গেলাম।’ (সহীহ মুসলিম ৪/২২৭৯)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com