1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৮ পূর্বাহ্ন

আগস্টের শেষ সপ্তাহে ঢাকা-৫ ও পাবনা-৪ আসনের তফসিল ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকা-৫ পাবনা-৪ সিরাজগঞ্জ-১ ও ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ৪৪ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক ।- আওয়ামী লীগের এমপিদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া ঢাকা-৫ ও পাবনা-৪ আসনের উপ-নির্বাচনের তফসিল আগস্টের শেষ সপ্তাহে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. আলমগীর। আর সে সময় অনুষ্ঠেয় কমিশন বৈঠকে সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপ-নির্বাচন নিয়েও আলোচনা হবে। তবে ঢাকা-১৮ আসনের উপ-নির্বাচনের সিদ্ধান্ত আরো পরে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। সোমবার বিকালে ৬৬তম কমিশন বৈঠক শেষে নির্বাচন ভবনের নিজ দফতরে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন। তবে নির্বাচন কমিশন আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে জাতীয় সংসদের শূন্য ঘোষিত ঢাকা-৫, পাবনা-৪, সিরাজগঞ্জ-১ ও ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন শুরুতে করতে চায় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। তবে ইসি সচিব সাংবাদিকদের বলেন, শূন্য হওয়া সংসদীয় আসনের নির্বাচনের বিষয়ে আপাতত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ঢাকা-৫ ও পাবনা-৪ আসনের ভোট করোনার কারণে আগেই পিছিয়ে দেয়া হয়েছিল। এক্ষেত্রে প্রধান নির্বাচন কমিশনার তার হাতে থাকা ৯০ দিন সময়ের মধ্যে ভোটের সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন। এক্ষেত্রে সেই মেয়াদ শেষ হবে যথাক্রমে ১ নভেম্বর এবং ২৮ সেপ্টেম্বর। তিনি বলেন, যেহেতু করোনা পরিস্থিতি স্থিতিশীল আছে। তাই আপাতত ভোট হচ্ছে না। আগস্টের শেষ সপ্তাহে কমিশন বৈঠকে এই দুই আসনের ভোটের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এছাড়া সিরাজগঞ্জ-১ আসনেও পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ভোটের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন কমিশন। এ আসনের ভোট কবে হবে, তা নিয়ে আগস্টের শেষ সপ্তাহের কমিশন বৈঠকে আলোচনা হবে। এক্ষেত্রে আগামী ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ আসনে ভোটের সময় পাওয়া যাবে। অন্যদিকে ঢাকা-১৮ আসনটি সম্প্রতি শূন্য হয়েছে। এই আসনের ভোটের জন্য ৬ অক্টোবর পর্যন্ত সময় আছে। পরবর্তী ৯০ দিনেও ভোট করলে ১৪ জানুয়ারি পযন্ত সময় থাকছে। কাজেই এ নির্বাচন নিয়ে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত হবে। ইসি সূত্র জানিয়েছে, আগামী ২৭ আগস্ট, ৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা-৫ ও পাবনা-৪ আসনের নির্বাচন করার চিন্তা করা হচ্ছে। তবে চারটি আসনের ভোট একই দিনে করতে হলে ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে ভোট হতে পারে। ইসির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ভোটের জন্য দুটি চিন্তা করা হচ্ছে। প্রথমত, আগামী ২৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পাবনা-৪ ও ১ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকা-৫ আসনের ভোট করার আইনি বাধ্যবাধকতা থাকায় শুধু এই দুই আসনের ভোট আগামী ২৭ আগস্ট বা ৩ সেপ্টেম্বর শুরুতে হতে পারে। দ্বিতীয়ত, ১৬ সেপ্টম্বর বা ২৩ সেপ্টেম্বর চারটি আসনের ভোট একই দিনে হতে পারে। কিন্তু করোনার কারনে তা পিছিয়ে ডিসেম্বরের মধ্যে হতে পারে। সূত্রের মতে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর মোহাম্মদ নাসিম ও অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া সিরাজগঞ্জ-১ আসন ও ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনের বিষয় আগস্টের শেষ সপ্তাহে কমিশন বৈঠকে এই দুই আসনের ভোটের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এছাড়া সিরাজগঞ্জ-১ আসনেও পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ভোটের সিদ্ধান্ত দিয়েছেন কমিশন। এ আসনের ভোট কবে হবে, তা নিয়ে আগস্টের শেষ সপ্তাহের কমিশন বৈঠকে আলোচনা হবে। এক্ষেত্রে আগামী ৯ ডিসেম্বর পযন্ত এ আসনে ভোটের সময় পাওয়া যাবে। অন্য দিকে ঢাকা-১৮ আসনটি সম্প্রতি শূন্য হয়েছে। এই আসনের ভোটের জন্য ৬ অক্টোবর পর্যন্ত সময় আছে। পরবর্তী ৯০ দিনেও ভোট করলে ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় থাকছে। কাজেই এ নির্বাচন নিয়ে পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত হবে। ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনে করোনা মহামারীর মধ্যেও ভোট করে ভালো সাড়া পাওয়া গেছে। সংক্রমণ বৃদ্ধিতে নির্বাচনের ভূমিকা নিয়েও উদ্বিগ্ন ছিল ইসি। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাই ভোটে অংশ নেওয়ায় আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। ফলে চারটি শূন্য আসনেই ভোট নেওয়ার পক্ষে নির্বাচন কমিশন। সংবিধান অনুযায়ী, জাতীয় সংসদের কোনো আসন শূন্য হলে তার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে করোনা মহামারীর কারণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার তার সাংবিধানিক ক্ষমতা বলে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে এ নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে পারেন। ইসির কর্মকর্তারা বলেছেন, ঢাকা-৫ আসন শূন্য হয়েছে গত ৬ মে। প্রথম ৯০ দিন শেষ হবে ৩ আগস্ট। পরবর্তী ৯০ দিন শেষ হবে ১ নভেম্বর। পাবনা-৪ আসন শূন্য হয়েছে গত ২ এপ্রিল। প্রথম ৯০ দিন শেষ হয়েছে গত ৩০ জুন। পরবর্তী ৯০ দিন শেষ হবে আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর। এদিকে গত ১৩ জুন সিরাজগঞ্জ-১ আসনটি শূন্য হয়। শূন্য হওয়ার পরে ৯০ দিন পূর্ণ হবে ১০ সেপ্টেম্বর। আর পরবর্তী ৯০ দিন শেষ হবে আগামী ৯ ডিসেম্বর। সংবিধান অনুযায়ী, জাতীয় সংসদের কোনো আসন শূন্য হলে তার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এক্ষেত্রে আগামী ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভোটের আয়োজন করতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। মহামারীর কারণে ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভোট করা সম্ভব না হলে আগামী ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে এই উপনির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। একই ভাবে ঢাকা-১৮ আসনের শূন্য হয় গত ৯ জুলাই। শূন্য হওয়ার পরে ৯০ দিন পূর্ণ হবে ৬ অক্টোবর। আর পরবর্তী ৯০ দিন শেষ হবে ২০২১ সালের ১৪ জানুয়ারি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com