1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জে মিটার দিতে পারছে না পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ পার্বতীপুরের ট্রেন পরিচালক ফেলে যাওয়া স্মার্ট টিভি ফিরিয়ে দিলেন যাত্রীকে খেরপট্টির স্বপ্ন ভঙ্গ করে সেমিতে উপশহর পুরাতন ৬  নবাবগঞ্জে সড়কে সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ট্রাক্টর নবাবগঞ্জে সরকারী বিধি-নিষেধ না‌ মেনে ১৫ হাজার শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান নবাবগঞ্জে করোনা টিকা নিতে যাওয়ার সময় দূর্ঘটনায় স্কুল ছাত্র নিহত বগুড়ার শেরপুরে আনন্দ টিভি’র প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যানের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষ্যে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে এশিয়ান টেলিভিশনের ৯ম বর্ষপূর্তি পালিত বিরামপুরে ব্লাড ব্যাংকের রক্ত প্রদান উপলক্ষে আলোচনা সভা রংপুর অঞ্চলে ৫ লাখ ৩ হাজার ৫৫০ হাজার হেক্টরে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা

আনোয়ার হোসেন মন্ডলের গল্প

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০২০
  • ৬১ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা । একজন আনোয়ার হোসেন মন্ডল বয়স ৫৪ বছর। পিতা প্রয়াত আব্দুল আজিজ মন্ডল। গ্রাম- ভেন্ডাবাড়ী । তিনি পীরগঞ্জ উপজেলার একজন সাধারণ নাগরিক। পেশায় একজন বাবুর্চি। খুব ভালো রান্না করেন বলে এলাকায় তাকে সকলেই চেনেন। কারণ দাওয়াত, অনুষ্ঠান, জিয়াফত, যাই হোক আনোয়ার এর ডাক পড়ে। তার একটি দোকান আছে ভেন্ডাবাড়ী বন্দরে। ১৩শত টাকায় ভাড়া নেয়া দোকান। সেখানে বৈশাখী হোটেল নামে তার একটি খবার দোকান আছে। অন্যসব হোটেলের মত সাজানো নয় এই খাবার দোকান। নেই জুলুস, টাইলস ফিটিং, তবে হ্যা একটি বেসিন আছে। সেখানে কসকো সবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা আছে। আছে ৬টি হেলান দেওয়া বেঞ্চ। তার মাঝ খানে ৩টি টেবিল। ঘরের মেঝে কাঁচা,সেঁত সেঁতে। তাতে কী ? রান্না ভালো, সস্তায় খাওয়া যায় একেবারে বাড়ির পরিবেশে। সবজি, পাতলা ডাল, নানা রকম ভর্তা, স্পেশাল গরুর গোস্ত। এই হোটেলে সবজি ভাত খেলে একজনের ৩০ টাকার মধ্যেই হয়ে যায়। আর গোস্ত ভাত খেলে ১শত কুড়ি টাকা। তাই বৈশাখী হোটেলে অনেকেই খেতে যান।
২৬ আগস্ট ২০২০ বুধবার আমরা কাজে বেড়িয়েছিলাম। তখন দুপুর গড়িয়ে গেছে । ঘড়ির দিকে তাকাতেই দেখলাম, বেলা তিনটা বাজে। খুধায় পেট চো চো করছে। সহকর্মী সাংবাদিক রানা জামান, একটি অন লাইন পোটাল চালান। তাকে বললাম আর পারছিনা, খেতে হবে। সে কোন উত্তর না দিয়েই নিয়ে গেল সেখানকার তহশীল অফিসের পিছনে। বাইক থামিয়ে বল্লেন, নামুন এখানেই খাবো। খুব ভালো রান্না করে। প্রথমে হোটেলের চেহারা দেখে অরুচি হলেও করার কিছুই ছিল না।
তখন আমরা ভিতরে ঢুকে গেছি আর কি। ক্যাপ ,চশমা টেবিলে রেখে হাত ধুয়ে,চোখে মুখে জল দিয়ে টেবিলে গিয়ে বসে পড়লাম। টিসু পেপার দিলেন আনোয়ার মন্ডল। এই হোটেলে কোন মেসিয়ার নেই। তিনিই মালিক তিনিই বয় , মেসিয়ার সব। প্রচন্ড গরম ছিল, কিন্তু মাথার উপর ৬ ইঞ্চি ফ্যানের বাতাসে শরীর শান্তি অনুভব করছিল ! লোকে বলে, খুধা পেলে সাপও খাওয়া যায় । সেখানে গুরুর মাংস, পাতলা ডাল মন্দ কি ? হ্যা খেতে শুরু করেছি,রানা জামান ভাজি ভর্তা কিছু একটা দিতে বল্লেন , কিন্তু সব নাকি শেষ। কি আর করার ওতেই আমরা খাওয়ার কাজটা সেরে নিলাম। আমি জল পান করে আনোয়ারকে তার নাম এবং পরিবারের অবস্থা জানতে চাইলাম। আনোয়ার মন্ডল এক নিঃশ্বাসে তার নাম, বাবার নাম, গ্রাম সব বলে দিল। তার হোটেল ব্যবসায় দিন কাল কেমন চলছে জানতে চাইলে তৃপ্তির হাসি হেসে বললো, দিনে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা বিক্রী হয়। মাঝে মাঝে বড় দাওয়াতে ডাক পড়ে, তাতে ভালোই রোজগার হয়ে থাকে। হোটেল ব্যবসায় দিনে হাজার টাকা তার কামই। ছেলে মেয়ের কথা জানতে চালাম। আনোয়ার হোসেন জানালো,তার ৪ ছেলে মেয়ে। সে আরো জানায় ২২ বছর আগে বুল্লি বেগমকে সে ঘরে তুলেছে। এখন বসয় তার ৩৫ বছর। ছেলে মেয়েদেরকে স্কুলে পাঠান কি না, জানতে চাইলাম, আনোয়ার মন্ডল খানিকটা গর্বের সাথে বললো, তার মেয়ে সাগরিকা (১৯) পীরগঞ্জ সরকারী শাহ আব্দুর রউফ কলেজে অর্নাসে পড়ছে। কোন বিষয়ে অনার্স ? সেটা বলতে না পারলেও জানাল, আর এক মেয়ে ফারহানা বেগম (১৫) ভেন্ডাবাড়ীতে দশম শ্রেণিতে পড়ে। ছেলে সাগর (১৩) অষ্টম শ্রেণিতে, আর ফরহাদ (১০) কেজি স্কুলে ৫ম শ্রেণিতে পড়ে।
আনোয়ার মন্ডল একজন সামান্য বাবুর্চি । সামান্য রোজগার করেও ৪টি সন্তানকে শিক্ষিত করে তুলছে, বিরাট ঘটনা। এ তো হিমালয়ের চুড়ায় উঠার মত ঘটনা। বিষয়টি জেনে তার প্রতি শ্রদ্ধা বেড়ে গেল । তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম হোটেল ব্যবসায় কি ভাবে এলেন। এ কথার উত্তরে সে জানালো – ছোট বেলায় বাবার সংসারে খুব অভাব ছিল। ৬ ভাই ২ বোনের বিরাট সংসার। লেখা পড়া করতে পারেননি। খাওয়ার কষ্ট কারনে ছোট বেলায় বয় বেয়ারার কাজ করেছেন। খাওয়া আর দিনে ২ টাকা বেতনে বয় এর কাজ নিয়েছিলেন হাটের একটি খাবার দোকানে। তার পর বেতন বাড়ে দিনে পাঁচ টাকা। একবার বেশি রোজগার হবে আশায় চট্টগ্রাম গিয়েছিলেন কাজ করতে। ছিলেন ৫ মাস। কিন্তু বাড়ির টানে ফিরে এসেছেন। জানালের ৩৯ বছর ধরে তিনি আছেন এই পেশায়।
জীবনের স্বপ্ন কি ? একথার জবাবে তিনি বলেন, ছেলে মেয়েদেরকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে চান। কারণ তিনি লেখা পড়া শিখতে পারেন নাই। একটা ‘অক্ষর’ চেনেন না। সন্তানদের লেখা পড়া না শেখালে কি হবে ? এমন কথা শুনে আনোয়ার বললেন, “আমি মুর্খ কোন অক্ষর চিনি না। এটা শিক্ষিতের যুগ। তাই সন্তানদের পড়াতে চাই। যদি না পড়াই তা হলে লোকে বলবে, নিজে মুর্খ সন্তানদেরকেও মুর্খ বানিয়েছে”।
এই কথা শোনার পর আনোয়ারের প্রতি আমার শ্রদ্ধা আরো অনেকগুণ বেড়ে গেল। আনোয়ার আমাদের কে চা খাওয়তে চাইলেন, দিতে বলাম। সে জানায় তার দাদার নাম ছিল বয়েজ মন্ডল, ভীম শহর এলাকায় দাদার ২শ বিঘা জমি ছিল। আর তার নানার নাম ছিল মছির সরদার। মিঠাপুকুরের তরফ সাদি গ্রামে তার বাড়ি ছিল। নান ছিলেন ৮ বিঘা জমির মালিক। আজ তাদের কিছুই নাই। আনোয়ার সব কিছু ভাগ্যের উপর ছেড়ে দিয়ে দীর্ঘ নিশ্বাস ফেললেন। আমরা আনোয়ার মন্ডলকে উৎসাহিত করলাম। উচ্চ শিক্ষায় সন্তানদের শিক্ষিত করার স্বপ্ন দেখছেন তিনি। তাকে সে জন্য ধন্যবাদ জানালাম। তার পর বিদায় নিয়ে বাড়ির পথে রওনা হলাম । দোওয়া করি,আনোয়ার মন্ডলের স্বপ্ন যেন আকাশ স্পর্শ করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com