বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন

আশুড়া বিলের কাঠের সাঁকো : তৃতীয় পর্ব

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৮ আগস্ট, ২০২০
  • ১৬০ বার পঠিত

-সুলতান আহমেদ সোনা

পেট ভরাতে মানুষ ভাত খায়,মন ভরাতে মানুষ আনন্দ চায়। এই আনন্দের খোরাক মেলে ঘুরে বেড়ালে। আর সেজন্যই মানুষ অবসর পেলে এখানে সেখানে বেড়াতে যায়। কেউ জায়গা না পেলে আত্মিয় স্বজনদের বাড়ি, অথবা শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে যান।
আমাদের এলাকার ছেলে মেয়েরা অবশ্য ভ্রমন করতে ভালোবাসে। তাই তারা সময় পেলে প্রাকৃতিক পাক বড় বিলায় যায়, বড় বিলার নাম এখন “স্লুইস গেইট”। বিলের মুখে পানি উন্নয়ন বোর্ড আখিরা নদীতে স্লুইস গেইট করে দেওয়ায় এখানকার পরিবেশ হয়েছে মনোরম। আপনিও আসতে পারেন এখানে। এই স্লুইস গেইট নিয়ে লেখার ইচ্ছে আছে। এ ছাড়াও আনন্দ বিনোদনের জায়গা আছে পীরগঞ্জে,“নাম আনন্দ নগর”। আনন্দ নগরের খবরও জানাবো আগামীতে। আজ জানাবো আশুরা বিলের কাঠের ব্রিজ এর গল্প।
বলে রাখি এক সময় আমাদের এলাকা বিশেষ করে বৃহত্তর রংপুর দিনাজপুরের রাস্তা ঘাট ভালো ছিল না। পাক আমলে তো সব সড়কই কাঁচা ছিল। দেশ স্বাধীন হবার পরেও আমাদের এলাকার রাস্তা ঘাট উন্নত ছিল না। উপজেলা সদরের হাজের মিয়ার বাসা থেকে পোষ্ট অফিস পর্যন্ত আনুমানিক এক কিঃমিঃ পর্যন্ত রাস্তা পাকা ছিল মাত্র। অবশ্য আওয়ামীলীগ আমলে বিশেষ করে শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে এখানে।
আমরা যখন ছোট ছিলাম দেখেছি, তখন বর্ষাকালে হাটু কাঁদা মাড়িয়ে চলাচল করতে হতো। আর মাঝে মাঝে পানি চলা চলের জন্য কাটা রাস্তা বা নালার উপর কোথাও স্থানীয় ব্যবস্থাপনায় বাঁশের বাতি দিয়ে তৈরী চটা বিছিয়ে দিয়ে যোগাযোগ রক্ষা করা হত। খালের উপর ছিল বাঁশের সাঁকো। তখন এখনকার মত ব্রিজ ছিলনা। আর নদী পার হতে ব্যবহার করা হতো নৌকা। বড় নদীর ঘাট পার হতে “মাড় নৌকা’’ অর্থ্যাৎ একসাথে জোড়া দেওয়া দুটো নৌকোকে মাড় বলা হতো। এই বড় নৌকায় করে মানুষ, সাইকেল,মটর সাইকেল,মালামাল,গরুর গাড়ী পর্যন্ত পার করা হতো। খাল পার হওয়ার জন্য “টাড়” বলে এক ধনের দুর্বল ব্যবস্থা ছিল। এটা দেখতেও সাঁেকার মতই। বাঁশের খুটির উপর লম্বা বাঁশ ফেলে দিয়ে তার উপর দিয়ে কোন মতে যাতায়াত করার যে ব্যবস্থা সেটাকে টার বলা হতো। এই ছিল যোগাযোগ ব্যবস্থার হাল। তবে সে সময়ও এলাকার বেশ কিছু নদীর উপর কাঠের তৈরী ব্রিজ ছিল। এখন সব স্মৃতি মাত্র।
যাদের বয়স ৬০ থেকে ৮০ তাদের অনেকেই এই কাঠের ব্রিজ দেখেছেন। তারা কাঠের ব্রিজ বা কাঠের পুলের গল্প আপনাকে শোনাতে পারবেন। এখনকার ছেলে মেয়েরা তো চটা চিনে না, সাঁকো দেখে নাই। টাড়ের গল্পও করতে পারবে না। আর কাঠের ব্রিজ দেখার তো প্রশ্নই উঠে না। এটা দেখতে চাইলে আশুড়ার বিলা বা শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানে যেতে পারেন। সেখানে এক বন থেকে অন্য বনে যেতে বিশাল জলশয় পার হতে হয়। সে জন্য সেখানে কাঠের ব্রিজ নির্মান করা হয়েছে। দুই বনের যোগাযোগ রক্ষা করা হয়েছে কাঠের ব্রিজ এর মাধ্যমে। এই ব্রিজটা চমৎকার। বেশ আঁকাবাঁকা । রং করা কাঠের বাতা দিয়ে তৈরী ব্রিজটি দেখার মত।
ছেলে মেয়েদের দেখাতে পারেন কাঠের ব্রিজ। কারণ যখন উন্নত প্রযুক্তি ছিল না, তখনও এ দেশের মানুষ নদী বা খালের উপর চলাচলের জন্য কি সুন্দর টেকসই কাঠের ব্রিজ বানিয়েছিলেন। এখন যে সব সেতু তৈরী হচ্ছে সে তুলনায় আগেকার কাঠের ব্রিজ তিমন কিছুই নয় ,তার পরেও মানুষ যে সে সময় কাঠ দিয়ে ব্রিজ বানাতে পেরেছিলেন সেটাই বা কম কিসে ! উদ্যানের জলাশয়ের উপর এই ব্রিজটা দেখে আপনি অতিত কালটাকে অনুভব করার সুযোগ পাবেন বলে মনে করি। এখানে একটা ছবি তুলে রাখলে পরের প্রজন্ম সেটা দেখার সুযোগ পাবেন। ব্রিজটা আমার খুব ভালো লেগেছিল। এখানে ফটো তোলার জন্য সুন্দর মনোরম পরিবেশ আছে। কৃতিম নয় প্রকৃতি নিজ হাতে গড়েছেন এই জায়গাটা। এখানে সুটিংও হতে পারে। আপনি চাইলে আপনার বয়স, সময়কে ক্যামেরার মাধ্যমে বন্দি করে রাখতে পারেন। বন্ধু বান্ধবীদের নিয়ে যেতে পারেন সেখানে, পিকনিক করতে পারেন। আমাদের ইচ্ছা আছে আসছে শীতে আমরা পিকনিক করতে যাব শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানে।
আমি এখানে অনুকে গুলো ছবি তুলে রেখেছি। যাতে নাতি নাতনীরা ভবিষ্যতে আমাকে খুজে পায় এই ছবির মাধ্যমে। আপনার তেমন কোন ইচ্ছা আচ্ছে কি না জানিনা তবে দেখুন তো আমার ফটোগুলো কেমন হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com