1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন

আসুন পর্যটক হই প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করি

  • আপডেট সময় : বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৫ বার পঠিত

– সুলতান আহমেদ সোনা

নতুন কোন জায়গায় বেড়ানোর কথা উঠলেই লোভ সামলাতে পারি না। এর অবশ্য ৩টি কারণ আছে। ‘‘প্রথমটা হচ্ছে যার বিচরণ যতদুর পর্যন্ত ,তার জ্ঞানের পরিধি ততদুর পর্যন্ত বিস্তৃত’’। দ্বিতীয়টা হচ্ছে ‘ মানুষের জীবন খুব ছোট, তাই পৃথিবীর যতটা অংশ দেখা যায় ততটাই প্রাপ্তি। তৃতীয়টা হলো আমি যেখানে যাই সেখানকার নতুন কিছু খাবার পেলে তার স্বাদ গ্রহন করি।
নিশ্চয় আপনিও আমার সাথে একমত হবেন যে, সৃষ্টিকর্তা এই পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন নিখুঁত ভাবে। সুন্দর,মনোরম পরিপাটি ভাবে সাজিয়েছেন তিঁনি। যেখানে যা দরকার সেখানে সেটাই দিয়েছেন। যেখানে যা প্রযোজন সেখানে সেটার উৎপত্তির ব্যবস্থা করেছেন। আমার মনে হয় স্বর্গের ছায়া যেন এই ধরা।
স্রষ্ট্রা বড়ই উদার। তিঁনি সারা পৃথিবীতে শুধু মানুষের জন্যই নয়, সকল প্রাণির জন্য নানান রঙের নানান স্বাদের ফল, মূল, খানা-খাদ্য উপহার দিয়েছেন। দিয়েছেন বেঁচে থাকার জন্য অক্সিজেনের ফ্যাক্টরী বৃক্ষরাজি। মনপ্রাণকে সতেজ রাখার জন্য দিয়েছেন হাওয়া বাতাশ, জল। মনকে চাঙ্গা রাখার জন্য রং এর বাহার, সুর-সঙ্গীত, পাখ-পাখালি আরো কতকিছু। দিনে সূর্য, রাতের আকাশে চাঁদ -তারা । এ সব ভাবলে সৃষ্টিকর্তার কারিশমা নিয়ে গান, কবিতা লিখতে কার না ইচ্ছে। করে বলুন। দুনিয়াটা ভালো করে দেখার স্বাদ কার না জাগে বলুন।
পর্যটক হওয়ার মধ্যে আনন্দে আছে। নতুন জায়গা দেখা,  ভ্রমন করাও পূর্ণ্যরে কাজ। সৃষ্টি যগত দেখা এবং সৃষ্টির সৌন্দর্য দর্শন করলে মানুষ তার সীমাবদ্ধতা থেকে বেড়িয়ে আসতে পারে। ভ্রমন করলে সৃষ্টিকর্তার প্রতি ভক্তি বেড়ে যায়। সৃষ্টি জগত দেখলে স্রষ্ট্রা ও সৃষ্টিকর্তার বন্দনায় মশগুল হতে পারে একজন মানুষ। একটা হিসেব করে দেখেছি, একজন সচেতন মানুষ যদি একশত বছর বাঁচেন , তা হলে তার কাজ করার সুযোগ থাকে মাত্র ১৫ বছর ঘন্টা। আর বাকী সময়টা ঘুম, খাওয়া দাওয়া, গল্প গুজব, আনন্দ ইত্যাদিতে ব্যয় হয়। সে কারনে সময় খরচ করার ব্যাপারে আমি খানিকটা সচেতন। আমি মনে করি জীবনের যতটা সময় কাজে লাগাতে পরি ততটাই মঙ্গল।কোন ভাবেই আমি সময় নষ্ট করার পক্ষে নই। তেমনি জীবনটাকে নিরানন্দ রাখতে চাই না। আমার ধারণা কোন মানুষ যদি আনন্দে থাকেন তা হলে তিনি সব সময় সুস্থ থাকবেন। আনন্দে থাকলে মানুষের আয়ু বাড়ে। তাই আসুন ,জীবনকে আনন্দময় করে তুলি, সময়কে সঠিক ভাবে কাজে লাগাই। অহেতুক টেনশন, অহেতেুক মন্দচিন্তা, পরচর্চা না করে, দ্বন্দ্ব, ফাসাদ, ঝগড়া ঝাটি, মামলা,মোকর্দমা না করে ভালো থাকার চেষ্টা করি। আনন্দে থাকি, জীবনকে উপভোগ করি। সৃষ্টি জগতের সৌন্দর্য উপভোগ, উপলব্ধি করে সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি।
মহান আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টির সেরা জীব বানিয়েছেন। সে কারণে আমরা মানুষ ধন্য এবং স্রষ্টা প্রতি কৃতজ্ঞ। অন্তর দৃষ্টিকে জাগ্রত করুন, বন, নদী,পাহাড়,পর্বত, সাগর, মরু, হিমবাহ, সৃষ্টি জগতের অন্যান্য প্রাণি, নানা রকম ফল ফুল দেখুন, ভাবুন। দেখবেন আপনিও একজন দার্শনিক হয়ে উঠেছেন। শ্রেষ্ট মানুষ হিসেবে আপনার জন্ম সার্থক,সেটা বুঝতে পারবেন। অন্যের থেকে আপনি আলাদা, মহত, সেটা ভেবে পুলকিত হবেন।
ঘর থেকে বের না হলে কুয়োর ব্যাঙ হয়ে থাকতে হবে আপনাকে। একটা প্রশ্ন করি, আপনি আপনার গ্রামে জন্ম গ্রহন করলেন, সেখানেই বড় হলেন, বিয়ে করলেন, দু’চারটা সন্তানের জন্ম দিলেন; এক সময় বুড়ো হলেন, তার পর মরে গেলেন। এটাই কী জীবন ? এজন্যই কী আপনার জন্ম হয়েছে ? না এটা সার্থক জীবন নয়। জীবনে সাগর দেখলেন না, একটা বড় নদী দেখলেন না, একটা পাহাড় দেখলেন না, পর্ব্বত দেখলেন না, সুন্দরবন দেখলেন না। একটা নতুন দেশ দেখলেন না, এমন কি আপনার ইউনিয়ন বা উপজেলাটাও দেখলেন না! এটা কী হলো !
হয়তো বলবেন, তা হলে কী ভাবে ঘর থেকে বের হবেন, ভ্রমনটা কী ভাবে শুরু করবেন এই তো ? হ্যা শুরু করেন নিজের এলাকা থেকে। বলছি , একটু সময় এবং সুযোগ করে পাশের ইউনিয়নটা, সেখানকার গ্রামগুলো, দেখে আসতে পারেন । এলাকায় বড় বড় হাট বাজার গুলোতে গিয়ে একদিন কেনা কাটা করে আসতে পারেন। ঐতিহাসিক কোন পুকুর,মসজিদ, মন্দির, জমিদার বাড়ী, কোন মাজার, যেখানে আপনি কোন দিন যাননি সেখানে ঘুরে আসতে পারেন। রংপুর জেলার পীরগঞ্জে অনেক সুন্দর সুন্দর জায়গা আছে। ইচ্ছে করলে এখান থেকেও শুরু করতে পারেন আপনি। আমি জানি এই উপজেলার বা পার্শ্ববর্তি উপজেলা,জেলার অনেকেই করতোয়া নদীর নাম শুনেছেন। ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া সেতুর নাম শুনেছেন, কিনতু দেখেননি। হ্যা চলে আসতে পারেন এখানে। এখন জলে টৈ টুম্বুর করতোয়া নদী। এখন প্রায় প্রতিদিন এখানে শত শত যুবক, যুবতি, নারী-পুরুষ ভ্রমন করতে আসছেন। অনেকই পরিবার ,সন্তানদের নিয়ে পৌরানিক নদী করতোয়া দেখতে আসছেন। খুব মনোরম পরিবেশ হয়েছে রয়েছে করতোয়া পাড়ে। এই সময়টাতে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যে পর্যন্ত মেলা বসছে। ইচ্ছে করলে করতোয়ায় স্নান করতে পারেন। দেশি নৌকো আছে ঘুরতে পারেন। ইদানিং স্প্রিড বোটের ব্যবস্থা হয়েছে। পাশেই রয়েছে দেশের খ্যাতিমান পরমানু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার নামে গড়া টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ। শিশুদের বিনোদনের ব্যবস্থাও আছে এখানে। স্থানীয় খাবার কিনে খেতে পারবেন আপিন। এ ছাড়াও রয়েছে ফলমুল। তবে সাবধান! সাতার না জানলে,জলে না নামাই ভালো। করতোয় বিশাল নদী । এক সময় আরো অনেক বড় ছিল শুনেছি। দীর্ঘ সময় ধরে শুস্ক মৌসুমে জল না থাকায়, চর পড়তে পড়তে এর গভীরতা হ্রাস পেয়েছে। অবশ্য বর্ষাকালে প্রাণ পায় করতোয়া। এর দৈর্ঘ্য ১৮৭ কিঃমিঃ। এখন পাড় থেকে উপভোগ করবেন নদীর সৌন্দর্য। ছবি তুলবেন। সময়টাকে স্মৃতির পটে বাধাই করে রাখবেন। যদি খরচের কথা ভাবেন, তাহলে আপনি একটা কুঞ্জুস ! বৌ- বাচ্চার জন্য একটা দিন পাঁচশ হাজার টাকা হলোই বা খরচ,তাতে কি! স্ত্রী পুত্র পরিজনের খুশির দামটা কোটি টাকা। দেশের যে কোন স্থান থেকে যে কেউ সহজে আসতে পারবেন। আপনার বাড়ি থেকে বাসে করে পীরগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ডে নেমে জন প্রতি কুড়ি টাকায় খালাশপীর হাটে পৌছুতে পারবেন সিএনজি, অটো হুইলার, অটো রিকসায়। তার পর জনপ্রতি কুড়ি টাকা দিলেই অটোওয়ালা আপনাকে পৌছে দেবে করতোয়া নদী পাড়ে ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া সেতু চত্বরে। রেল ধরেও আসা যাবে। পারবর্তি পুর থেকে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থানার সমন থেকে অটো বা সিএনজি ধরে এই সেতু পাড়ে আসা যায়। ভাড়া ওই জন প্রতি কুড়টাকা মাত্র। তার পর
সারা দিন ঘুরে ফিরে কিছু স্মৃতি ধরে আবার বিকেলে বাড়ি ফিরে যেতে পারবেন। এর পর নতুন জায়গা নিয়ে আবার লিখবো। ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ্য থাকুন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com