বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২৩ অপরাহ্ন

আসুন সবাই গাছ লাগাই

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৯ জুলাই, ২০২০
  • ৩০১ বার পঠিত

বৃক্ষ বা গাছ প্রকৃতি পরিবেশর অনুসঙ্গ। মানুষের বন্ধু এবং মুল্যবান সম্পদ। বৃক্ষবিহীন পৃথিবীর কথা আমরা ভাবতেও পারি না। বৃক্ষ হচ্ছে অক্সিজেন সরবরাহকারী একটি কারখানা।বৃক্ষ আছে বলে আমরা অক্সিজেন পাচ্ছি, নিঃশ্বাস নিতে পারছি। আবার আমরা যে নিঃশ্বাস ছাড়ছি সেটা গ্রহন করছে বৃক্ষ গাছ গাছড়া।ফলে আমাদের পরিবেশ হচ্ছে নির্মল, সুশীতল।বৃক্ষ শুধু আমাদেরকে অক্সিজেন দেয় তা নয়। পৃথিবীকে শিতল রাখে, আমাদেরকে ছায়া দেয়, ফল দেয়, খাদ্য দেয়। গাছ গাছরা লতা পাতা ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। গাছ জ্বালানী সরবরাহ করে। বৃক্ষ আমাদের প্রযোজনীয় কাঠের যোগান দেয়। ঝড় ঝঞ্ঝা থেকে রক্ষা করে, বৃক্ষ অনেক পশু প্রাণি, কিট পতঙ্গের আশ্রয়স্থল। বৃক্ষের পাতা, ফুল,ফল,ছাল, বাকল অনেক প্রাণির খাদ্য। এই পৃথিবীতে আমরা যে বসবাস করছি বেঁচে আছি,সেটা অনেকটা গাছ,পালা বন জঙ্গলের অবদান। বনকে বলা হয় প্রকৃতির ফুসফুস। একটা ভুখন্ডের আয়োতন এবং জনংখ্যার ভিত্তিতে অন্তত ৪০ ভাগ বৃক্ষ থাকা প্রযোজন। কিন্তু কিছু মানুষ বৃক্ষের এই গুরত্বকে মুল্যায়ন করতে চায়না। তাই তারা নির্বচারে বনজঙ্গল ধ্বংশ করে। গাছ কেটে সাবাড় করছে। গত কয়েক বছরে পৃথিবীর বহু গাছ,বন,জঙ্গল কেটে সাফ করা হয়েছে কারনে ঋতুতে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে, পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে। এক সময় বাংলাদেশেও প্রচুর বন জঙ্গল ছিল। সেগুলোকে মানুষ ধ্বংশ করেছে।মানুষের অবিবেচনায় অনেক মুল্যবান ঔষধিবৃক্ষ বিলুপ্ত হয়েছে।তাই এখন সময় এসেছে সময় বিচারে আবার বৃক্ষ সম্পদে দেশকে সমৃদ্ধ করার। বর্তমান সরকার বৃক্ষের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে এবার মুজিব বর্ষে সারা দেশে এক কোটি গাছ লাগানোর কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। সেকারণে আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। কিন্তু একটা কথা তাহলো,গাছতো প্রতিবারেই লাগানো হয়। গাছ লাগনোর আনুষ্ঠানিকতা হয়। পরিতাপের বিষয় চারা লাগনোর পর আর কেউ খোজ রাখে না চারার। আশা করি এবার তেমনটা হবে না। সরকারকে বলবো এককোটি গাছের মধ্যে কতটা গাছ বাঁচে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। দেশকে বৃক্ষ সম্পদে সমৃদ্ধ করতে চাইলে পাঁচবছর মেয়াদী পরিকল্পনা নিতে হবে এবং প্রতি বছরই এক কোটি করে গাছ লাগাতে হবে। কারণ যা এবার লাগনো হচ্ছে তার সব গুলোতো বাঁচবে না। আমরা সবাই জানি আজকে লাগানো চারা রাতারাতি বৃক্ষে পরিণত হবে না

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com