বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী   পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইসচেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা বন্যার পানিতে সাঁতরে বন্যার্তদের ত্রাণ সংগ্রহ পার্বতীপুর পৌরসভায় মৌসুমি ফল উৎসব বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানববন্ধন পার্বতীপুর পৌরসভায়  ড্রেন নির্মান কাজের উদ্বোধন দিনাজপুর-বিরামপুর -ঘোড়াঘাট সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে

কটিয়াদীতে আড়িয়াল খা নদীর ভাঙনে হুমকির মুখে ৫শ বাড়িঘর

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১
  • ২১১ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস।- গাঙ ভাইঙ্গ্যা সব কাইরা নিছে। ঘর সংসার ভাইসা গেছে। আমরার চোখের জল চোখেই শুকায়। কথাগুলো বলছিলেন, নদী ভাঙনে ঘর হারানো কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের পূর্বচর পাড়াতলা গ্রামের সোনামদ্দিন (৭০)। উপজেলার চরঞ্চালে নদী ভাঙন নতুন কিছু নয়। একের পর একর চাষের জমি, অসংখ্য বসত বাড়ি ফি-বছর চলে যাচ্ছে নদীর গর্ভে। গত বছর ঠিক এই সময়ে ভয়াবহ নদী ভাঙনের কবলে পড়ে লোহাজুরী ইউনিয়নের পূর্বচর পাড়াতলা, জালালপুর ইউনিয়নের মধ্য চরপুক্ষিয়া, মসূয়া ইউনিয়নের বৈরাগীচর গ্রামের বাসিন্দারা। বছর ঘুরতে ফের নতুন করে নদী ভাঙনের আশংকায় দু:শ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন নদীর পাড়ে বসবাসকারী এসব গ্রামের মানুষেরা। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কটিয়াদী উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ ও তারা শাখানদী আড়িয়ালখাঁ নদীর জলস্তর বাড়ার ফলে গত বছর বর্ষার সময় নদী ভাঙনে কয়েক’শ গাছ, কৃষিজমি, বসতভিটা, রাস্তা, দোকান বিলীন হয়ে গেছে। এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য কিশোরগঞ্জ-২, নূর মোহাম্মদ ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। তিনি স্থানীয় প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে দ্রæততম সময়ের মধ্যে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করে। এ প্রেক্ষিতে বাঁশ ও জিও ব্যাগ দিয়ে ভাঙন রোধের চেষ্টা করা হয়। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে জিও ব্যাগ দেয়া হলেও তার বেশিরভাগ এখন নদীগর্ভে। গুটি কয়েক জিও ব্যাগ ও শুকনো বাঁশ অসহায় ভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে প্রকৃতির সাথে অসম লড়াই করে ভাঙন রুখতে। এ সময় কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দার আব্দুল মান্নান (৭০), ফুলবানু (৬০) সহ আরও অনেকের সাথে। তারা বলেন, এখনই ভাঙন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা না নেয়া হলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে। তারা স্থায়ী ভাঙন রোধে সিসি বøক ফেলার দাবী জানান। এ ব্যাপারে ইউএনও জ্যোতিশ্বর পাল জানান, মাননীয় সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ স্যারের পরমর্শমতে আমি ইতিমধ্যে নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে সমন্বয় করে শিঘ্রই মধ্যে ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com