1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:৩৯ অপরাহ্ন

কটিয়াদীতে বসেছে ঢাকের হাট : নেই কোন হাঁক ডাক

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৬ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস।- কটিয়াদীতে এবারও বসেছে দেশের সবচেয়ে বড় ঢাক ঢোলের হাট। এ হাট বসেছে দুর্গাপূজা উপলক্ষে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলা সদরের পুরোনো বাজার প্রেস ক্লাব ও মুক্তিযোদ্ধা অফিসের সামনে। প্রতি বছরের মতো এবারও বুধ ও বৃহস্পতিবার ৫০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী ঢাকের বিরাট হাট শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার করোনার কারণে পূজামন্ডপে শুধু একটি ঢাক, একটি ঢোল ও একটি কাঁসি ব্যবহার করতে পারবে। এ বছর ঢাক, কাঁসি ও ঢোলের আমদানি হয়েছে কম। মাত্র দু-একটি ব্যান্ড পার্টি হাটে এসেছে। জনশ্রুতি আছে, ষোড়শ শতাব্দীর মাঝামাঝি স্থানীয় সামন্ত রাজা নবরঙ্গ রায়ই সর্ব প্রথম তার রাজ প্রাসাদে দুর্গাপূজার আয়োজন করেন। উপজেলা সদর থেকে দুই কিলোমিটার উত্তরে চারিপাড়া গ্রামে ছিল রাজার প্রাসাদ। আজও রাজার আমলে খনন করা কোটামন দিঘিটির মনোরম দৃশ্য দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে। পূজা উপলক্ষে রাজ প্রাসাদ থেকে সুদূর বিক্রমপুর (মুন্সীগঞ্জ) পরগনার বিভিন্ন স্থানে বার্তা পাঠানো হয়। ঢাক ঢোল, বাঁশিসহ বাদ্যযন্ত্রীদের আগমনের জন্য সে সময় নৌপথ ব্যবহার করা হতো। বাদ্যযন্ত্রীরা কটিয়াদী-মঠখোলা সড়কের পাশে পুরোনো ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে যাত্রাঘাট নামক স্থানে পূজার দু’দিন আগে এসে পৌঁছাতেন। পরবর্তী সময়ে পার্শ্ববর্তী মসুয়া গ্রামে বিশ্বনন্দিত চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়ের পূর্ব পুরুষ হরি কিশোর রায় চৌধুরীর বাড়িতে মহাধুমধামে পূজা শুরু হতো। সেই সঙ্গে চলত বিভিন্ন পূজার বাদ্যযন্ত্রের প্রতিযোগিতা। দিন দিন পূজার সংখ্যা বৃদ্ধি এবং বিভিন্ন জমিদারদের মধ্যে ঢাকের হাটের স্থান নির্ধারণ নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। অবশেষে যাত্রাঘাট থেকে স্থান পরিবর্তিত হয়ে পাঁচ কিলোমিটার দূরবর্তী আড়িয়াল খাঁ নদের তীরবর্তী কটিয়াদী পুরোনো বাজারে কটিয়াদী প্রেস ক্লাবের সামনে ঢাকের হাট গড়ে ওঠে। আজও বিক্রমপুর ভাটি অঞ্চল, কুমিল্লা হাওর অঞ্চল থেকে শত শত বাদ্যযন্ত্রী এ হাটে আসেন। ঢাকঢোল, বিভিন্ন ধরনের বাঁশি, কাঁসিসহ হাজার হাজার বাদ্যযন্ত্রের পসরা বসে। আর ঢাকের প্রসরা আর ঢাক কিনতে আসতো আশপাশ এলাকার। এবার পুরোটায় ভেস্তে গেছে। প্রানঘাতি করোনা ভাইরাস জনিত কারনে সরকারী ভাবে বিভিন্ন নিয়ম নীতি অনুসরন করার জন্য আদেশ জারী করায় এরার ঢাক ঢোলের বাজার একেবারে মন্দা। নেই আগের মত সেই জৌলস।ক্রেতা সাধারন নেই ঢাকের বাজারে। বিশেষ করে আগত ঢাকীরা একটি ঢাক ১২ থেকে ১৫ হাজার, ঢোল ও কাঁশি ৮-১০ হাজার, বাদ্যযন্ত্রীরা পূজামন্ডপে বাজনা বাজিয়ে দর্শক ও ভক্তদের আকৃষ্ট করতেন। এবার কটিয়াদীতে মোট ৩৮টি পুজা মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপুজা অনুষ্টিত হচ্ছে। কটিয়াদী পৌর সদরে ১৩টি, আচমিতা ইউপিতে ৪টি, মুমুরদিয়ায় ৫টি, মসুয়াতে ৭টি, বনগ্রামে ৩টি, ধুলদিয়ায় ৪টি, ও করগায়ে ২টি সহ মোট ৩৮টি পুজা মন্ডপে পুজা অনুষ্টিত হচ্ছে। পুজা উৎযাপন উপলক্ষ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে গ্রহন করা হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আকতারুন নেছা ও ওসি এমএ জলিল বলেন, ঢাকীদের নিরাপত্তাসহ পুজা উদযাপনের ক্ষেতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান মুশতাকুর রহমান বলেন, ৫০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাট কটিয়াদী উপজেলার ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। আশা করি, ইতিহাসের এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। কিশোরগঞ্জ-২ আসেনর সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ জানান, ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাটের জন্য কটিয়াদী পুরোনো বাজারে স্থান নির্ধারণ করে ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে শেড নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পথে। চলতি বছর করোনা জনিত কারনে সেটটি বুঝে নিতে বিলম্ব হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com