শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন

কালের বিবর্তনে বিলীন হওয়ার পথে কিশোরগঞ্জের মৃৎশিল্প

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ৩১২ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস, কিশোরগঞ্জ থেকে ।- কালের বিবর্তনে ক্রমেই হারিয়ে যাচ্ছে কিশোরগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প। বহুমুখী সমস্যা আর পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সংকটের মুখে পড়েছে এই শিল্পটি। তারপরও পূর্ব পুরুষদের ঐতিহ্য এখনও ধরে রেখেছে অনেকেই। কিশোরগঞ্জ জেলার নদীর তীরবর্তী কটিয়াদী,নিকলী,বাজিতপুর, পাকুন্দিয়া হোসেনপুর উপজেলার পালপাড়া গুলো যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা একটি স্বর্ণালি ছবি। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য কুটিরের নয়নাভিরাম মৃৎশিল্পীদের বাসস্থান। যা সহজেই যে কারোর মনকে পুলকিত করে। এক সময় এ গ্রামগুলো মৃৎশিল্পের জন্য খুবই বিখ্যাত ছিল। প্রযুক্তির উন্নয়ন ও নতুন নতুন শিল্পসামগ্রীর প্রসারের কারণে এবং প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা ও অনুকূল বাজারের অভাবে এ শিল্প আজ বিলুপ্তির পথে। সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা গেছে, বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মতো কিশোরগঞ্জ জেলা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে বসবাসকারী মৃৎশিল্পীদের অধিকাংশই পাল সম্প্রায়ের। প্রাচীনকাল থেকে ধর্মীয় এবং আর্থ সামাজিক কারণে মৃৎশিল্পে শ্রেণিভুক্ত সমাজের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। পরবর্তী সময়ে অন্য স¤প্রদায়ের লোকেরা মৃৎশিল্পকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করে। এখন আর গ্রাম-গঞ্জেও মাটির হাড়ি-পাতিল তেমনটা চোখে পড়ে না। বর্তমান বাজারে এখন আর আগের মতো মাটির জিনিস পত্রের চাহিদা না থাকায় এর স্থান দখল করে নিয়েছে দস্তা, অ্যালুমিনিয়াম ও প্লাাস্টিকের তৈজসপত্র। ফলে বিক্রেতারা মাটির জিনিসপত্র আগের মতো আগ্রহের সঙ্গে নিচ্ছে না। তাদের চাহিদা নির্ভর করে ক্রেতাদের ওপর। সে কারণে অনেক পুরনো শিল্পীরাও পেশা বদল করতে বাধ্য হচ্ছেন। যুগের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে মাটির জিনিসপত্র তার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলছে। ফলে এ পেশায় যারা জড়িত এবং যাদের জীবিকার একমাত্র অবলম্বন মৃৎশিল্প তাদের জীবনযাপন একেবারেই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এক সময় মাটির তৈরি তৈজস পত্রের টুং টাং শব্দ। হাতের কারুকাজে কাদামাটি দিয়ে হয়েছে বাহারি সব পণ্য। এসব তৈরির পর শুকানো, আগুনে পোড়ানো, রং করা ও নির্ধারিত স্থানের বৈশাখী মেলায় পাঠানো কিশোরগঞ্জের ১৩টি উপজেলার পালপাড়া এলাকার চিত্র এখন পাল্টে গেছে পুরোদমে। নিকলী পালপাড়ার ঠাকুরধন পাল, প্রতীপ পাল, রিপন পাল, পরিতোষ পাল, কাজল পাল, বিশ্ব পাল, রবী›ন্দ্র পাল, হরিদাস পাল, বলাই পাল, জীবন পাল, ক্ষিতীশ পাল, রঞ্জিত পাল ও সুভাষ পালের হাতের ছোঁয়ায় কাদামাটি হয় শিল্প। মাটি দিয়ে তাঁদের তৈরি পণ্য ভৈরব, কিশোরগঞ্জ, হোসেনপুর, কটিয়াদী ও বাজিতপুর উপজেলার বিভিন্ন মেলায় বিক্রি হয়ে আসছিল। মেলার চাহিদা মেটাতে প্রতিবছরই তাড়ের ব্যস্ত বাড়তো। পালপাড়ার কয়েকজন মৃৎশিল্পী জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় মাটির পণ্যে নতুনত্ব এসেছে। অন্যান্য পণ্যের মধ্যে রয়েছে হাতি, ঘোড়া,গরু, হরিণ, সিংহ, বাঘ, ভালুক, জেব্রা, হাঁস, মুরগি, শিশুদের খেলার হাঁডড়ি পাতিল, কয়েল দানি, মোমদানি, ফুলদানি, আম, কাঁঠাল, পেঁপে, আনারস, কামরাঙ্গা, আতাফল, ঘটি-বাটি, কলস। কোনো রাসায়নিক ছাড়াই তৈরি করা হতো এসব পণ্য। এখন ও দুঃখ-কষ্টের মাঝে দিন কাটলেও কিশোরগঞ্জের মৃৎশিল্পীরা এখনও স্বপ্ন দেখেন। কোনো একদিন আবারও কদর বাড়বে মাটির তৈজসপত্রের। সেদিন হয়তো আবারও তাদের পরিবারে ফিরে আসবে সুখ-শান্তি। আর সেই সুদিনের অপেক্ষায় আজও দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তারা। এ ব্যাপারে উপজেলার চরিয়াকোনা গ্রামের মহেশ পাল বলেন, বাপ-দাদার কাছে শেখা আমাদের এই জাত ব্যবসা আজও আমরা ধরে রেখেছি। কটিয়াদী সহ আশেপাশের এলাকায় এক সময় মাটির তৈরি জিনিসের ব্যাপক চাহিদা ছিল কিন্তু বর্তমানে বহুমুখী সমস্যা আর পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে আজ সংকটের মুখে পড়েছে এই মৃৎশিল্পটি। উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের সন্তোষ পাল বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে নদী-খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় এখন মাটি সংগ্রহে অনেক খরচ করতে হয় তাদের। এছাড়াও জ¦ালানির মূল্য বেড়ে যাওয়ায় উৎপাদন ও বিক্রির সঙ্গে মিল না থাকায় প্রতিনিয়ত লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের। আধুনিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিল্পকর্মে প্রশিক্ষিত করে মৃৎশিল্পের সময়োপযোগী জিনিসপত্র তৈরিতে এবং বিদেশে এ পণ্যের বাজার সৃষ্টিতে জরুরি পদক্ষেপ প্রয়োজন। এদিকে উপজেলার সচেতনমহল ও বিশিষ্টজনরা মনে করছেন মৃৎশিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে এর বাজার সৃষ্টি এবং প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা খুবই জরুরি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com