1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে সম্প্রীতির সঙ্গে এগিয়ে যেতে হবে- গোপাল এমপি বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে অবৈধভাবে শ্রমিক নিয়োগ বন্ধের দাবি পলাশবাড়ীতে ভ্রাম্যমাণ দুধ বিক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন পীরগঞ্জের সউ এর ইফতার বিতরণ করবে কিশোরগঞ্জে হেফাজত-বিএনপির ১১ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার কুলিয়ারচরে ছাত্রকে বলাৎকারের মামলায় অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার কিশোরগঞ্জে  ১২ দিনে করোনা রোগী শনাক্ত ৩৬৮ মৃত্যু ৬ কটিয়াদীতে ল্যাম্পপোস্ট ভাঙার প্রতিবাদ করায় চবি ছাত্রকে মারধর বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি’র শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন পলাশবাড়ী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটি অনুমোদনের দাবী

কিশোরগঞ্জের হাওরে বৈরী আবহাওয়া চিটা আতঙ্কে দিশেহারা বোরো চাষিরা

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১
  • ৬ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস।-  তীব্র গরম বাতাস আর দমকা হাওয়ার কারণে কিশোরগঞ্জের হাওর অঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকায় বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। একটি বিরাট অংশ চিটা হওয়ার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। খোদ কৃষি স¤প্রাসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সাইফুল আলমও এই আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন। তবে বিভিন্ন এলাকার কৃষি কর্মকর্তাগণ মাঠে কাজ করছেন। তাদের জরিপের পর আরো সুনির্দিষ্ট চিত্র পাওয়া যাবে বলে তিনি জানিয়েছেন। গত রোববার বিকালে হঠাৎ করেই কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার এলাকায় প্রচন্ড বেগে প্রায় দুই থেকে আড়াই ঘন্টা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যায়। বৃষ্টি তেমন হয়নি বললেই চলে। এসময় জেলার প্রধান বোরো অঞ্চল হাওর এলাকার ওপর দিয়ে তীব্র গরম হাওয়া বয়ে যায়। এতে যেসব জমিতে এখনো পরাগায়ন সম্পন্ন হয়নি, সেসব জমির ধানের শীষের সমস্ত ফুল ঝরে গেছে। এতে পরাগায়ন ব্যাহত হয়েছে। যে কারণে ইতোমধ্যে এসব জমির শীষ সাদা হয়ে চিটার লক্ষণ ফুটে উঠেছে বলে জানান উপ-পরিচালক সাইফুল আলম। তবে হাওরে প্রধানত ব্রিধান-২৯ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে তিনি ধারণা করছেন। কারণ, ব্রিধান-২৮ সহ অন্যান্য ধানের জমিতে ইতোমধ্যে পরাগায়ন সম্পন্ন হয়ে ধানের ভেতর নরম চাল জন্ম নিয়েছে। কাজেই এসব ধানের ক্ষতি হবে না। কিন্তু ব্রিধান-২৯ জমিতে বিলম্বে পরাগায়ন হয় বলে এগুলিই মূলত ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন। তবে তার ধারণা, হাওরে ক্ষয়ক্ষতি কমই হবে। বেশি ক্ষতি হবে টান উপজেলাগুলোতে। কারণ এসব উপজেলায় আবাদ করা হয় বিলম্বে এবং বন্যার আশঙ্কা থাকে না বলে ব্রিধান-২৯ বেশি আবাদ করা হয়। তিনি আরো জানান, আবহাওয়া অফিসে খোঁজ নিয়ে জেনেছেন, রোববার তাপমাত্রা ছিল ৩৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস, যা ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি। ফলে এই গরম বাতাসের কারণেই ক্ষতিটা বেশি হয়েছে। এদিকে জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু জানান, তিনি রোববার বিকাল ৫টার দিকে হাওর উপজেলা মিঠামইনের আসনপুর সেতুর ওপর ছিলেন। তিনিও প্রচন্ড গরম বাতাস অনুভব করেছেন এবং ধানের ফুলগুলো পড়ে যাওয়ার দৃশ্য ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষ করেছেন। উপ-পরিচালক সাইফুল আলম বলেন, বিভিন্ন উপজেলার কৃষি কর্মকর্তাগণ মাঠে জরিপ চালাচ্ছেন। তাদের কাছ থেকে প্রতিবেদন আসলেই প্রকৃত ক্ষতির চিত্রটি পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি। এবার জেলার ১৩ উপজেলায় মোট এক লাখ ৬৪ হাজার ৪৯৪ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। এর মধ্যে কেবল হাওর এলাকাতেই লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক লাখ এক হাজার ৫শ হেক্টর জমি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com