রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:০৬ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জে প্রেমিক শিক্ষক বিয়ে না করায় ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে প্রাণ দিল কলেজ ছাত্রী

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১৩৬ বার পঠিত

কিশোরগঞ্জ থেকে সুবল চন্দ্র দাস ।- ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ঘরের আড়ার সাথে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন এক কলেজ ছাত্রী। তাঁর নাম মাশফি সুমাইয়া (১৯)। তিনি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার ষাইটকাহন গ্রামের শামীম আহমেদের কন্যা। সুমাইয়া কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের অনার্স প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। শনিবার সকাল ৭টার দিকে নিজ বাড়িতে আত্মহত্যা করেন তিনি। পাকুন্দিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সুমাইয়ার লাশ উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এই পুলিশ অফিসার। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, সুমাইয়া ২০১৭ সালে কালিয়াচাপড়া চিনিকল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে। ওই স্কুলে পড়াশোনার সময়ে রাসেল আহমেদ নামের এক শিক্ষকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন সুমাইয়া। রাসেল আহমেদ ওই স্কুলের গণিত বিষয়ের খন্ড কালীন শিক্ষক ছিলেন। তিনি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার নোয়াবাদ প্রামের রহমত আলীর ছেলে। বর্তমানে রাসেল আহমেদ ঢাকার একটি কলেজে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত। এদিকে প্রেমিক-প্রেমিকা পৃথক স্থানে থাকলেও তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলতে থাকে। ‘গত তিন বছর ধরে বিয়ের প্রতি শ্রতি দিয়ে সুমাইয়াকে ধর্ষণ করে আসছিল প্রেমিক রাসেল’। কিছুদিন আগে রাসেল গোপনে অন্য মেয়েকে বিয়ে করেন। এমন খবর পেয়ে অভিমানে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন প্রেমিকা সুমাইয়া। মৃত্যুর আগে সুমাইয়া ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘বিয়ের’ প্রতিশ্রæতি দিয়ে তিন বছর ধরে ছাত্রীকে ধর্ষণের পরে অন্য মেয়েকে বিয়ে করে ছাত্রীকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করা আমার প্রিয় শিক্ষক। আর সেই ভাগ্যবান ছাত্রী আমি নিজে। আল্লাহ আমায় মাফ করো। দেশে এমন শিক্ষক আরও কোন ছাত্রীর জীবনে না আসুক। সবাই আমায় মাফ করবেন, সদ্য এসএসসি পাস করা একটা মেয়ে বিয়ের মানে এসব জানতাম না। ভদ্র স্যারকে বিশ্বাস করতাম, যা বলতো তাই শোনাতাম। যাই হোক, ভাল থাক সে…. বিদায়’। পাকুন্দিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া বলেন, ২২ আগস্ট সকাল ৭টার দিকে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ওই কলেজ ছাত্রী আত্মহত্যা করেন। ফেসবুকের স্ট্যাটাসটি তাঁর এক আত্মীয়ের নজরে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রীর পরিবারকে জানানো হয়। পরে পরিবারের লোকজন ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভিতরের আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় সুমাইয়াকে দেখতে পান। পরে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। আত্মহত্যার আগে ওই শিক্ষার্থী ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন বলে আমরা জেনেছি। এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে। এদিকে বিকাল ৪টার দিকে এলাকাবাসীর ব্যানারে উপজেলার পুলেরঘাট বাজারে অভিযুক্ত রাসেল আহমেদকে গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। মানব বন্ধনে অভিযুক্ত রাসেল আহমেদকে জরুরী ভিত্তিতে গ্রেফতার সহ শাস্তির দাবী জানানো হয়।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com