রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মলিনমলো গাইবান্ধা সদরে আশ্রয়ণের ঘর পেয়েও থাকেন ভাড়া বাসায় রংপুরে লেখক পাঠক মিলন মেলা ২০২২ সাদুল্লাপুরে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১২ হাজার ৪০ হেক্টর

গাইবান্ধায় বাড়ছে চোখ ওঠা রোগ মিলছে না ড্রপ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ৩০ বার পঠিত
ছাদেকুল ইসলাম রুবেল।- গাইবান্ধায় ঘরে ঘরে (চোখ ওঠা) বা কনজাংটিভাইটিস আক্রান্ত রোগী। তবে সহজে মিলছে না এই রোগের এসকিউমাইসিটিন গ্রুপের ড্রপ। ওষুধ ব্যবসায়ীদের দাবি, এসব প্রতিষেধকের চাহিদা বাড়লেও কোম্পানিগুলো তা সরবরাহ করতে পারছে না।
চিকিৎসকরা বলছেন, চোখ ওঠা রোগ সাধারণত ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার কারণে হয়। এই রোগের আসল নাম কনজাংটিভাইটিস। ভাইরাসজনিত এই রোগ মূলত ছোঁয়াচে। এ রোগে আক্রান্তরা সাধারণত চিকিৎসা ছাড়াই পাঁচ থেকে সাত দিনের মধ্যে ভালো হয়ে যায়। চিকিৎসকরা এতে এসকিউমাইসিটিন গ্রুপের ড্রপ ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আর এ কারণেই চোখের সব ড্রপ বাজার থেকে উধাও।সরেজমিন গাইবান্ধার বিভিন্ন ফার্মেসি ঘুরে দেখা যায়, চোখের কোনো ড্রপ অধিকাংশ ফার্মেসিতেই নেই। প্রায় প্রতিটি ফার্মেসিতে চোখের ড্রপের কথা বলতেই নেই বলে জানান। গেলো এক সপ্তাহে গাইবান্ধার হাট-বাজার এবং রাস্তাঘাটে অসংখ্য চোখ ওঠা রোগীর দেখা মিলছে।
গাইবান্ধা শহরের মাস্টারপাড়া এলাকার ফিরোজ কবীর জানান, প্রথমে তার মেয়ের চোখ ওঠে। এর পর তাদের পরিবারের চারজনের চোখ ওঠে। দুইদিন আগে তারও চোখ উঠেছে। চোখে ব্যথা অনুভব হচ্ছে এবং মাঝে মধ্যে দুই চোখ দিয়ে পানি ঝরছে। কিন্তু দুদিন হয়ে গেলেও বাজারে খুঁজে পাচ্ছেন না ড্রপ।অপর রোগী শহরের মুন্সিপাড়ার বিজন কুমার বলেন, ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী এসকিউমাইসিটিন একটি চোখের ড্রপ কিনতে পৌর শহরের ২১টি ফার্মেসিতে খোঁজ করেছি, একটি ড্রপ পেলেও কিনতে হলো দ্বিগুণ দামে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক থানাপাড়ার এক ব্যক্তি বলেন, আমার বড় মেয়ের চোখ উঠেছে। পরে আমি গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে গিয়ে পরামর্শ নিয়ে সেই বিকেল থেকে খুঁজতে খুঁজতে আমি রাত সাড়ে ৯টার দিকে এক দোকানে চোখের ড্রপ পেয়েছি। আর কোনো ফার্মেসিতে চোখের ড্রপ নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com