রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০২:২৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে চাচা-ভাতিজা হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার নিরাপত্তা চেয়ে সদ্য বদলি  হওয়া পরিচালকের আবেদন স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে ফুটবলার নাজমুল এর পীরগঞ্জে বাশিস এর নব-নির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণ স্মার্ট পুলিশিং কার্যক্রম শিঘ্রই চালু করা হবে -রংপুরে অতিরিক্ত আইজি ঘোড়াঘাটে সড়ক দূর্ঘটনায় একই পরিবারের ২ জন নিহত আহত ৩ জন দেশ বিরোধী কর্মকান্ডকে রুখতে রংপুরে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার শীতবস্ত্র শনিবারে জেলা আঃলীগের নব-নির্বাচিত কমিটির সংবর্ধনা

চলুন ঘুরে আসি আশুড়ার বিল: দ্বিতীয় পর্ব

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০
  • ২৪৯ বার পঠিত
এরা নবীন পর্যটক। বনের ভিতরে পর্যটকদের মটর সাইকেল। ছবি- বজ্রকথা

-সুলতান আহমেদ সোনা

ভ্রমন করা হচ্ছে উত্তম নেশা। আর এই নেশার মধ্যে কোন অন্যায় নেই, দোষের কিছু নেই। জ্ঞানীরাই ভ্রমন করেন। কারন দেশ দেখা ফরজ। এ কথার মানে যে কোন নতুন জায়গা দেখা উত্তম অভিজ্ঞতা, এতে জ্ঞান বাড়ে। নতন নতুন জায়গায় বেড়াতে গেলে অন্তরের ভিতরে যে সহস্রাধিক বন্ধ জানালা আছে, সে গুলো একটা একটা করে খুলতে থাকে। আগেই বলেছি “ যার বিচরণ যতদুর পর্যন্ত, তার জ্ঞানের পরিধি ততদুর পর্যন্ত বিস্তৃত”
সত্যি যদি মনের ভিতরে জানার আগ্রহ থাকে, তাহলে অবশ্যই আপনি ঘর থেকে বের হবেন এবং নতুন নতুন জায়গা দেখতে ভ্রমনে যাবেন। মনে রাখবেন, গোটা দেশ দেখার আগে নিজের এলাকা সম্পর্কে জানা উচিত। নিজের এলাকার গুরুত্বপূর্ণ জায়গা গুলো দেখার পর পাশ্ববর্তি এলাকায় ভ্রমনে যেতে হবে। তার পর জেলা বিভাগ এবং তার পর সারা দেশের কোথায় কী আছে আস্তে আস্তে সময় করে সে সব ঘুরে দেখতে হবে।
জীবন তো একটাই। জীবনের পরিধিটা খুব বড় নয়। হাতে যে সময়, সেটার পরিমান বেশি নয়। বড় জোর একশত বছর। এই সময়টা যদি বাঁচেন তা হলে দেখবেন , নিজের অজান্তেই ৪০ বছর মিছে মিছে পার হয়ে গেছে। তাই তো কবি মন বলে “ জীবন এক ম্যাজিক কত দ্রুত চলে যায় ” আবারো বলছি, দুনিয়াটা মস্ত বড়। তার যতটা দেখতে পারেন,ততটাই আপনার সঞ্চয়। যাক যা বলছিলাম –
আপনি নিশ্চয় জেনে গেছেন, আশুড়ার বিল মানে , নবাবগঞ্জ উপজেলার ‘‘শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান” গত পর্বে মোটা মোটি একটা ধারনা দেবার চেষ্টা করেছিলাম ‘‘শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান” সম্পর্কে। আমার বিশ্বাস আপনি প্রথম পর্বের লেখা থেকে সেখানে যাবার জন্য আগ্রহী হয়েছেন এবং লেখা থেকে পথ ঘাট জেনে গেছেন। আশা করছি বাকী লেখা গুলো পড়ে আরো অনেকটা ধারণা লাভ করতে পারবেন। হ্যা যে খানেই যান সেখানে যদি মানুষের সমাবেশ না ঘটে সেখানে মেলা জমবে না। আশুড়ার বিলে কিন্তু প্রতিদিন শত শত মানুষ যাচ্ছে । জায়গাটা দেখছে। মেলা জমে গেছে। প্রাকৃতিক পরিবেশের সাথে মিশে যাবার চেষ্টা করছে। আমি যেদিন গিয়েছিলাম,সেদিন দেখেছি সব বয়সের মানুষই আছে সেখানে, তবে যুবকদের-যুবতিদের সংখ্যাটাই বেশি। এখানে বলে রাখি, যদি নিজেকে বুড়ো ভাবেন,তা হলে আপনার হয়ে গেছ। মানুষের বয়স তো বাড়বেই, বাড়–ক তাতে কোন সমস্যা নেই। যদি আপনার মনের বয়স বেড়ে যায় তা হলেই সব শেষ। সে কারনেই আমি মনের বয়স বাড়তে দেই না। কেউ যদি আমাকে প্রশ্ন করে, ভাই আপনার বয়স কত ? উত্তরে বলি উনিশ চলছে, একুশের বেশি হবে না। যে বুদ্ধিমান তার বয়স বাড়ে না। সে জন্যই আমি সব বয়সের মানুষের সাথে মিশতে পারি চলতে পারি। আমি জানি আপনিও বুদ্ধিমান তাই আপনার কানে কানে বলছি, চাইলে আপনিও আমার পথ অনুসরণ করতে পারেন।
আশুড়ার বিল এখন একটা জনপ্রিয় স্পর্ট তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আর পথটা সোজা, রাস্তা ভালো। সে কারনে বড় বড় গাড়ি নয়,মটর সাইকেলে করেই সবাই আশুড়ার বিল মানে শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানে যাচ্ছে। বন দেখছে। বন্ধরা মিলে হৈ হুল্লুড় করছে। নৌকোয় চড়ছে। ছবি তুলছে। কাঠের ব্রিজ দেখছে। আমি গিয়েছিলাম ঈদের পর দিন। সেদিন দেখেছি অগনতি ব্যাটারী চালিত অটো এবং হাজার খানেক মটর সাইকেল তো হবেই। (চলবে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com