বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৪:১৬ অপরাহ্ন

টাকা পাচার বন্ধ করতে হবে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৩ আগস্ট, ২০২০
  • ১০২ বার পঠিত

প্রয়োজনের অতিরিক্ত ধন সম্পদ অর্জন করার লোভ মানুষের মধ্যে আছে। তাই পৃথিবীর সব মানুষই অর্থ-সম্পদ ধন-দৌলত এর মালিক হতে চায়। অর্থ সম্পদের প্রতি যারা মোহগ্রস্ত তারা সম্পদের পাহাড় গড়তে চান। সৎ পথে,বানিজ্য করে অর্থ সম্পদ করার মধ্যে কোন দোষ আছে বলে মনে করি না। কিন্তু সমাজের কিছু মানুষ, কোন কিছু না করেই রাতারাতি পুজিপতি, কোটিপতি, অঢেল ধন-সম্পদ, ভুসম্পত্তির মালিক হচ্ছেন; ভাবনাটা সেখানেই! ইদানিং অনেকের মত আমরাও দেখছি,কিছু ভুঁইফোঁড় নেতা,মাদককারবারী, ঘুষখোর, সুদখোর, ভেজাল কারবারী, ক্যাসিনো কারবারী,পাপিয়া কারবারীরা কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। আবার কেউ কেউ টেন্ডারবাজি, বালিশ কান্ড, পর্দা কান্ডসহ নানা ফঁন্দি ফিকির করেও অঢেল অর্থ সম্পদের মালিক হয়েছেন। অনেকেই দামি গাড়ি,বিলাসবহুল বাড়ির মালিক সেজে গেছেন। বলতে লজ্জা হয়, যে দেশে এখনও মানুষ ভিক্ষা করে,ফুটপাতে, খোলা আকাশের নিচে রাত্রি যাপন করে,উচ্ছিষ্ট খায়, মেয়ের বিয়ে দিতে গিয়ে হাত পাতে, চিকিৎসার টাকা জোগাড় করতে গিয়ে বাসে,লঞ্চে সাহায্য মাগে, কৃষি ঋণের দায় মেটাতে ভিটে মাটি বিক্রি করেন, সেই দেশের স্বার্থপর কিছু লোকজন নাকি সেকেন্ড হোম বানায় অন্যদেশে! দেশের টাকা পাচার করে সুইচ ব্যাংকে রাখে! অনেকের মত আমরাও বলি, যারা সময় ও সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে,সাধারণ মানুষের ঘামের রোজগার,হক নানা কৌশলে লুটে নিচ্ছে,তারাই হঠ্যাৎ ধনিদের সারিতে গিয়ে দাঁড়াচ্ছে। তারাই কোটিপতিদের তালিকায় নাম লেখাচ্ছে। এরাই অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থ দেশে রাখা নিরাপদ নয় বলে, বিদেশে পাচার করছে। ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি খবরের কাগজে দেখলাম, ফরিদপুর জেলার নিশান মাহমুদ শামীম নামের এক ছাত্রলীগ নেতাও নাকি, দেশ থেকে দুই হাজার কোটি টাকা পাচার করেছে। ওই নেতাকে অবশ্য ধরা হয়েছে। ভালো হয়েছে। বলি দেশে তো একটা নিশান নয়, অনেকেই নিশানা ঠিক করে দেশের সর্বনাশ করেছে। যারা টাকা পাচার করছে,তারা দেশের বড় শত্রæ। যারা টাকা পাচার করে সেকেন্ড হোম করেছে তাদেরকেও ছাড় দেয়া যাবে না। আমরা তাই মনে করি, যে কোন মুল্যে টাকা পাচার বন্ধ করতে হবে। পাচারকৃত টাকা ফেরত আনতে হবে। আমরাও চাই ,যাদের হাতে টাকা আছে তারা দেশে বিনিয়োগ করুক। সরকার উদার মনে তাদেরকে বিনিয়োগের সুযোগ দিক। তাতে পুজির বিকাশ ঘটবে। কর্মসংস্থান হবে, বেকার যুব সমাজ কর্মকরার সুযোগ পাবে। দেশের টাকা দেশে থাকবে। আরও একটা কথা আছে,দুর্নীতির সুযোগ পেলে, জায়গা থাকলে অপকর্ম হবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। সবাই জানি, ব্যবস্থা না নিলে প্রদীপ এর নিচে তো অন্ধকার হয়। টাকা পাচার তো এমনি এমনি করা যায় না, নিশ্চয় কোন মাধ্যম আছে।তাই দেখতে হবে, বেড়ায় ক্ষেত খাচ্ছে কি না!

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com