রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:০২ অপরাহ্ন

ডিজিটাল যুগের ধাক্কায় বীরগঞ্জে হারিয়ে যাচ্ছে ডাকবাক্সের ব্যবহার

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১১৫ বার পঠিত

প্রদীপ রায় জিতু, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি।-  ‘রানার চলেছে খবরের বোঝো হতে,রানার চলেছে,রানার! রাত্রির পথে পথে চলে কোনো নিষেধ জানে না মানার, দিগন্ত থেকে দিগন্তে ছোটে রানার কাজ নিয়েছে সে নতুন খবর আনার, আজও ভারতীয় শিল্পী মান্না দের কণ্ঠে গানটি শুনা যায়। একটা সময় দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ডাক পিয়নের কদর ছিল যথেষ্ট। সেই রানার সেই চিঠি, সেই ডাক বিভাগ সব্যই এখন ডিজিটাল যুগের ধাক্কায় অতীতের পথে। বীরগঞ্জে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে ডাকবাক্সের ব্যবহার। বর্তমান ডিজিটাল যুগের আমরা একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছি খুব সহজেই। ফলে আগের মতো আর এখানকার মানুষের আগ্রহ নেই। আজকাল আর আগের মতো চিঠি আদান-প্রদান করতে দেখা যায় না। পোষ্ট অফিসের সামনে রাস্তার পাশে রাখা ডাকবাক্সগুলো অরক্ষিত অবস্থায় অভিভাবকহীনভাবে পরে রয়েছে। আবার কোনো কোনো স্থানে ডাকবাক্সেই অস্তিত্ব নেই। বীরগঞ্জ ডাক অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শিবরামপুর, পলাশবাড়ী, শতগ্রাম, পাল্টাপুর, সুজালপুর, নিজপাড়া, মোহাম্মদপুর, ভোগনগর, সাতোর, মোহনপুর ও মরিচাসহ ১১টি ইউনিয়নে মোট ১২টি ব্যাঞ্চ পোষ্ট অফিস রয়েছে। এবং বিভিন্ন হাট-বাজারের ডাকবাক্সই যেগুলোতে রয়েছে। বর্তমানে সরকারি চিঠি ছাড়া ব্যক্তিগত চিঠির তেমন দেখা মিলছেনা। ডাকব্যবস্থা যখন হারিয়ে যেতে বসেছে সেই সময়ে পালিত হয়ে গেল বিশ্ব ডাক দিবস। ১৯৮৪ সালে জার্মানির হামবুর্গ অনুষ্ঠিত ইউনিভার্সাল ডাক ইউনিয়নের ১৯তম অধিবেশনে বিশ্ব ডাক ইউনিয়ন দিবসের নাম পরিবর্তন করে’ বিশ্ব ডাক দিবস ‘রাখা হয়। এরপর থেকে বাংলাদেশও পালিত হচ্ছে ডাক দিবস। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এমন একসময় ছিল যখন যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম ছিল চিঠি। এখন সেটি রূপকথার গল্প হয়ে রয়েছে। যোগাযোগের মাধ্যম ছিল ‘টরেটক্কা ‘টেলিগ্রাম আর চিঠি। তারও আগে পায়রার পায়ে চিঠি বেঁধে খবর পাঠানো হতো। চিঠি লেখার জন্য ছিল পোষ্টকার্ড ও বিভিন্ন রং-বেরঙের প্যাড। কেউ এখন আর চিঠি লিখে না। চিঠি লেখার অভ্যাসই মানুষ ভুলতে বসেছে। তথ্য ও প্রযুক্তির উৎকর্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর মধ্যে এ জনপদেরও ফেসবুক জনপ্রিয়তার শীর্ষে। এ ছাড়াও ইমো, হোয়াষ্ট অ্যাপ ইত্যাদিরও জনপ্রিয় বর্তমানে মুহূর্তে ভিডিও কলে অবাধ ব্যবহার। কিন্তু আজ থেকে একযুগ আগেও এখানকার যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ছিল চিঠি বা পত্রালাপ। ডাকপিয়ন চিঠি নিয়ে এলে অন্যরকম এক অনুভূতি জাগ্রত হতো মনে। তখন চিঠির সঙ্গে আবেগের সম্পর্ক ছিল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com