বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

তিস্তার ভাঙ্গনের মুখে স্কুল: ৫০ বাড়িঘর বিলীন

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১১ জুলাই, ২০২১
  • ১৫৭ বার পঠিত

রংপুর থেকে সোহেল রশিদ।- নদীর একুল ভাঙ্গে, অকুল গড়ে এইতো নদীর খেলা। ঠিক তেমনি এক সময়ের ঘনবসতি ও কোলাহল মুখর গ্রামটি আজ বিলীনের পথে। আর মাত্র ৪টি পরিবারের বসতী তিস্তা নদী গর্ভে বিলীন হলেই মিশে যাবে রংপুরের পীরগাছা উপজেলার চর দক্ষিণ গাবুরা গ্রামটি। ভাঙ্গনের মুখে পড়ে আছে এ গ্রামের একমাত্র স্কুল চর দক্ষিণ গাবুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নদী থেকে মাত্র ১৫ মিটার দুরে এ স্কুলটি রক্ষায় শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন উপজেলা প্রশাসন, স্কুলের শিক্ষক ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মীরা। দিনে-রাতে ফেলা হচ্ছে জিও ব্যাগ। ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে ওই গ্রামের ৫০টি বসতবাড়ি। ভাঙ্গনের ফলে এসব বাড়ির লোকজন এখন আশ্রয়হীন। তবে আরো বেশি পরিমান জিও ব্যাগ ফেলার দাবি করছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পীরগাছা উপজেলা ছাওলা ইউনিয়নের চর দক্ষিণ গাবুড়া গ্রামের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে রাক্ষসী তিস্তা নদী। গ্রামটিতে বাড়িঘর ছিল ঘনবসতি। এসব বাড়ির শিশুদের মেধা বিকাশে পাশেই ১৯৯০ সালে গড়ে তোলা হয়েছে চর দক্ষিণ গাবুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্কুলটি ২০১৪ সালে একবার ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বর্তমান স্থানে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে পিইডিপি-৩ প্রকল্পের অর্থায়নে একটি সু-স্বজ্জিত আধুনিক ভবন গড়ে তোলা হয়। কোলাহলে মুখর থাকতো গ্রাম ও স্কুলটি। কিন্তু পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তা নদী গিলে খেয়েছে গ্রামটির বেশির ভাগ বসতি। চলতি বছরেই ভেঙ্গে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে ৫০টি বাড়ি। আর মাত্র ৪টি বসত বাড়ি ও একমাত্র স্কুলটি ভেঙ্গে গেলেই নিশ্চিহৃ হয়ে যাবে গ্রামটি।

এদিকে নদী আস্তে আস্তে স্কুলের কিনারে চলে আসায় নরেচরে বসেছে সংশ্লিষ্টরা। স্কুলটি শেষ রক্ষায় চলছে তোড়জোর। রাতে এবং দিনে ফেলা হচ্ছে জিও ব্যাগ। তবুও যেন কাজ হচ্ছে না। গ্রামবাসীর দাবি গত বছরও বিদ্যালয়টি ভাঙন ঝুঁকিতে পড়েছিল। তখন ভাঙন রোধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

নদী ভাঙ্গনে বিলীন হওয়া ওই গ্রামের বাসিন্দা খয়বার আলী, তালেব মিয়া, আমজাদ হোসেন, মাজেদ আলীসহ বেশ কয়েকজন বলেন, সময় মতো উদ্যোগ নিলে বিদ্যালয়ের আশেপাশের বাড়িঘরও রক্ষা পেত। পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্বরত ব্যক্তিদের উদাসীনতার কারণে আজ আমরা আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছি। গত ৫ বছরে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি, ৫ হাজার পরিবারের বসতভিটা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

ভাঙ্গনের শিকাররা বলেন, অপরিকল্পিতভাবে দুইটি বেড়ি বাঁধ নির্মাণ করা হলেও বাঁধের পূর্বের গ্রামগুলো রক্ষা পাচ্ছে না। মানচিত্র থেকে ছোট হয়ে আসছে ছাওলা ইউনিয়ন। আমরা ছাওলার বোল্ডারের মাথা থেকে আরও ৩ কিলোমিটার বোল্ডার দিয়ে শক্তিশালী বাঁধ নির্মাণ করে নদী শাসন করার দাবি করেন।

চর দক্ষিণ গাবুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আকরাম হোসেন বলেন, নদী একেবারে বিদ্যালয়ের কিনারে চলে এসেছে। আমরা ভাঙনরোধে চেষ্টা করছি। এখন আরও ৫ হাজার জিও ব্যাগ ফেলা দরকার। তাহলে হয়তো বিদ্যালয়টি রক্ষা করা যেতে পারে।

পীরগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামসুল আরেফীন বলেন, বিদ্যালয়টি রক্ষায় জোর চেষ্টা চলছে। আরও জিও ব্যাগের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করার জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তর অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী জ্যেতি প্রকাশ ঘোষ বলেন, ভাঙন এলাকায় জিও ব্যাগের মাধ্যামে মেরামতের কাজ চলমান রয়েছে। স্থানীয়ভাবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বিষয়গুলো আন্তরিকভাবে দেখছেন। ভাঙন রোধে শেষ পর্যন্ত চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com