বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড এসএসসি পরীক্ষা স্থগিত

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৬ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ ।-প্রশ্ন পত্র ফাঁসের কারণে বুধবার হঠাৎ এসএসসির চার বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত করেছে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবারও দুই বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। একাধিকবার পরীক্ষা পিছানোর পর গত ১৫ সেপ্টেম্বর শুরু হয় এসএসসি পরীক্ষা। এতে হতাশ হয়ে পড়েছেন রংপুর বিভাগের ১ লাখ ৬৮ হাজার এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। অভিভাবকরা পড়েছেন চরম দুশ্চিন্তায়। কি হবে তাদের সন্তানের ভবিষৎ এমন চিন্তায় উদ্বিগ্ন তারা। তবে অনেক অভিভাবক ও শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এজন্য দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অবস্থাপনা ও সঠিক তদারকির অভাব ছিল। এর দায় কোন ভাবেই বোর্ড চেয়ারম্যান, সচিব ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এড়াতে পারবেন না।
সূত্রে জানা গেছে, এমনিতে বিভিন্ন কারণে গতবছরের চেয়ে এবার দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে পরীক্ষার্থী কমেছে ২২ হাজারের বেশি। বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে শিক্ষাবিদ ও সচেতন মহল মনে করছেন বাল্য বিয়ে, দারিদ্র্যতা কারণে লেখাপড়া ছেড়ে পরিবারকে সহায়তা করতে অন্যত্র কাজ করাসহ বিভিন্ন কারণে এবার এত শিক্ষার্থী কমে গেছে। এই অবস্থায় নানান কারণে বারবার পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে শিক্ষার্থীদের মন-মানসিকতায়। এটা শিক্ষা সেক্টরে নেতিবাচক প্রভাব বলে মনে করা হচ্ছে।
এদিকে বৃহস্পতিবার দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ কামরুল ইসলাম সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে স্থগিত পরীক্ষা আগামী ১০ থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়াও উচ্চতর গণিত ও জীব বিজ্ঞান পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়।
দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সূত্রে জানাগেছে, এবার রংপুর বিভাগে ১ লাখ ৬৯ হাজার ৭০৭ জন পরীক্ষার্থীর অংশগ্রহণ করার কথা ছিল। প্রথম দিন অংশগ্রহণ করেছে ১ লাখ ৬৮ হাজার ১১ জন। প্রধম দিনে অনুপস্থিত ছিল একহাজার ৬৯২ জন। গত বছর এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৯০ হাজার। বিভিন্ন কারণে গত বছরের চেয়ে চলতি বছর ২২ হাজারে বেশি পরীক্ষার্থী কম অংশগ্রহণ করছে।
রংপুর নগরীর তামপাট এলাকার পরীক্ষার্থী রাজু আহমেদ ও সুমাইয়া আক্তার বলেন, বেশ কয়েকবার পরীক্ষা পেছানোর পর কাঙ্খিত পরীক্ষা যখন শুরু হয়। আমরা বেশ প্রস্তুতি নিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছিলাম ঠিক তখনই প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটলো। এতে আমরা আবারো পিছিয়ে গেলাম।
পীরগাছার অভিভাবক শহিদুল ইসলাম ও নগরীর কেরানীরহাট এলাকার অভিভাবক সাইফুল ইসলাম বলেন, করোনা, বন্যাসহ বিভিন্ন কারণে বারবার পরীক্ষা পিছানো হয়েছে। প্রতিবারই পরীক্ষার আগে প্রাইভেট শিক্ষক নিতে হয়েছে। এতে আর্থিক ব্যয় হওয়ার পাশাপাশি মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। আবারও পিছালো।
এদিকে শহিদুল, সাইফুল নয় তাদের মতো অনেক অভিভাবকই পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় হতাশ। এজন্য বোর্ডকেই দায়ি করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com