বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

দুর্গতিনাশিনী দেবী মা দুর্গা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫০৭ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস 

শ্রী দুর্গা। শক্তির দেবী তিনি। তাকে বলা হয় আদ্যাশক্তি বা মহামায়া। জগৎ- সঞ্চয় তারই মায়ায় নিবদ্ধ। যখনই ভক্ত বিপদে পড়েন, তখন তাকে ডাকেন। তিনি শক্তি দেন। ভক্ত ত্রাণ পায় বিপদ থেকে। দেবতাদের রাজপদ ‘ইন্দ্র’ নামে পরিচিত। দেবরাজের ইন্দ্রত্ব অর্থাৎ রাজপদ মাঝে মাঝে অসুরেরা ছিনিয়ে নেয়। ইন্দ্রত্ব লাভ করে অসুরে দেবতাদের স্বর্গ থেকে তাড়িয়ে দেয়। তখন দেবতারা শক্তির আরাধনা করেন। শক্তি সঞ্চয় করেন। দেবতাদের সম্মিলিত শক্তি থেকে আবির্ভূত হন দেবী দুর্গা। দেবী দুর্গা প্রতিপক্ষ অসুরদের বিনাশ করেন। দেবতারা ফিরে পান তাদের স্বর্গরাজ্য। স্বর্গরাজ্য ফিরে পেয়ে দেবতারা সকৃতজ্ঞ চিত্তে দেবীর স্তব করেন-
শরণাগত দীনার্ত পরিত্রাণ পরায়ণে
সর্বস্যার্তি হরে দেবী নারায়ণি নমোহস্ততে ॥
-হে শরণাগত, দীনার্ত, পরিত্রাণপরায়ণে, সকলের আর্তি হরণকারিণী দেবী, হে নারায়ণী, তোমাকে প্রনাম করি।

পৌরাণিক উপাখ্যান থেকে দেবী দুর্গা সম্পর্কে আমরা বেশ কয়েকটি তথ্য লাভ করি। দেবতারা যখন অলস ও নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছিলেন, তাদের শক্তি কিছুটা হ্রাস পেয়েছিল, তখনই অসুরেরা স্বগরাজ্য অধিকার করে নিতে সক্ষম হয়েছিল। তখন দেবতাদের সম্মিলিত শক্তি থেকে দেবী দুর্গার আবির্ভাব। এই যে সম্মিলিত শক্তি, এ কথাটা তাৎপর্যপূর্ণ। একক নয়, সম্মিলিত শক্তি। হতাশায় নিশ্চেষ্ট থাকা নয়, পূর্ণ উদ্যমে শক্তি সঞ্চয়ের প্রয়াস এবং মহাশক্তির উদ্বোধন। সেই মহাশক্তিতে অসুরকে আঘাত করা এবং এর মাধ্যমে বিজয় অর্জন করা। আবার দেবী দুর্গা শান্তি পদায়িনী। অসুর নাশ করে তিনি দেবতাদের শান্তি দিয়েছিলেন। দুর্গতি থেকে তারা মুক্ত হয়ে পেয়েছিলেন পরম শান্তি। সেখানে দেবী দুর্গা শান্তির প্রতীক। তাই তো শ্রীশ্রী চন্ডিতে বলা হয়েছে-
যা দেবী সর্বভূতেষু শক্তিরূপেণ সংস্থিতা।
নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ ॥
-যে দেবী সর্বভূতে বিশ্বচরাচরের শক্তিরূপে বিরাজ করেন, সেই দেবীকে নমস্কার করি।
আবার বলা হয়েছে-
যা দেবী সর্বভূতেষু শান্তিরূপেণ সংস্থিতা।
নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ ॥
-যে দেবী সর্বভূতে বিশ্বচরাচরের শান্তিরূপে বিরাজ করেন, সেই দেবীকে নমস্কার করি।
দেবী দুর্গা তাই শক্তি ও শান্তি দু-রূপেই প্রকাশিত। এ থেকে আমরা এ শিক্ষাই পাই, আমরা যখন কোনো সঙ্কটে নিপতিত হব, তখন হতাশায় গ্লানিতে নিশ্চেষ্ট-নিষ্ক্রিয় থাকব না। আমরা গ্রহণ করব সক্রিয় উদ্যোগ। আমরা আমাদের ভেতরের শক্তিকে জাগ্রত করব নিরন্তর সাধনায় অক্লান্ত প্রচেষ্টায়। তারপর প্রত্যেকের শক্তিকে সম্মিলিত করব, আমরা ঐব্যবদ্ধ হব। আমরা সংহত হব। সংহত হওয়ার পর ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টাকে নিয়োজিত করব সঙ্কটের মোকাবিলায়। অবশ্যই আমাদের বিজয় হবে এবং পরিণামে আমরা লাভ করব শান্তি।

যেমন, যখন আমরা প্রবল বন্যার আক্রমণে আক্রান্ত হয়ে বিপর্যস্ত হই; তখন আমরা ভয় পাই না। সবাই সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা বন্যার মোকাবিলা করি। দুর্গতদের সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দেই। এর মধ্যে দিয়ে আমাদের মধ্যে দেবী দুর্গার শক্তির প্রকাশ ঘটে। বন্যার প্রকোপ কমে গেলে ও বন্যা পরবর্তী দুরবস্থা থাকে। তখন পুনর্বাসনের পালা। এক্ষেত্রেও ঐক্যবদ্ধভাবে সম্মিলিত শক্তিতে আমরা কাজ করে যাই। পরিণামে আমরা পাই শান্তি, অসুর বিনাশের পর দেবতারা যেমন পেয়েছিলেন। যেখানে অনৈক্য, বিভেদ, নিষ্ক্রিয়তা, সেখানেই সুরের-মঙ্গলের-কল্যাণের পরাজয়, তখনই ঘটে অসুরের আর্বিভাব। সম্মিলিত শক্তি ছাড়া সে অসুরের পরাজয় অসম্ভব। সুর আর অসুর, ভালো আর মন্দের এই দ্বন্দ ঘটছে সমাজে, দেশে এবং বিশ্বে। এমনকি ঘটছে নিজের মধ্যেও। নিজের ভেতর কার অসুরটিকে বিনাশ করতে হবে, নইলে সে অসুর অধিকার করে নেবে ‘শান্তির’ স্বগরাজ্য। অহংকার, লোভ প্রভৃতি এক একটি অসুর। আর এগুলোই মানবাত্মার শত্রু। এরাই সমাজে সৃষ্টি করে অনাচার। এগুলোই মহিষাসুর, রক্তবীজ, চিক্ষুর, চামর। এদেরই আমরা দেখি সন্ত্রাসী রূপে, অসামাজিক কর্মকান্ডের দানব এরাই। ব্যক্তির ভেতর থেকে বেরিয়ে এসে এরা সমাজকে কলুষিত করে। তাই চাই সুরের ভেতরকার শক্তিতে মহাশক্তির উদ্বোধন। অন্তরের অসুরের বিনাশ ঘটে বিজয়ী হয় ‘সুর’। তাতেই আসে শান্তি-কল্যাণ। দুর্গাপূজার মধ্যে দিয়ে এ তাৎপর্যও প্রকাশিত। আমরা যেন তা শারদীয় দুর্গাপূজার মধ্য দিয়ে উপলব্ধি করি। সেভাবেই নিজেদের প্রস্তত করি। প্রার্থনা করি; অন্তর মন্দিরে এসো হে শক্তিময়ী, অসুরকে বিনাশ করে তুমি আমাদের শান্তি দাও। চিনে নিই, জেনে নিই অসুরের ভয়াল স্বরূপ- জাগ্রত করি, উদ্বোধিত করি সুরের শক্তিময় শান্তি, শান্তিময় শক্তি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com