শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

পাকুন্দিয়ায় পুলিশের শিশু ফাহাদ হত্যার রহস্য উদঘাটন : ঘটনা স্বীকার করে কিশোরের স্বীকারোক্তি

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ আগস্ট, ২০২০
  • ১৮৩ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস।- কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় নিখোঁজের তিনদিন পর স্কুল ছাত্র খলিলুর রহমান ফাহাদ (৯) এর ডোবা থেকে মরদেহ উদ্ধার হওয়ার মূল রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত ইমন মিয়া (১৭) নামের এক কিশোর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে। মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) বিকালে কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুহম্মদ আব্দুন নূর তাঁর খাস কামরায় ইমন মিয়ার ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে তাকে গাজীপুর কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাকুন্দিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া ১৬৪ ধারায় ইমন মিয়ার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গত সোমবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পাকুন্দিয়া থানা পুলিশ। গ্রেপ্তার হওয়া ইমন উপজেলার নারান্দী মধ্যপাড়া গ্রামের মোফাজ্জল করিম খসরুর ছেলে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দিতে ফাহাদ নিহতের ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছে ইমন মিয়া। গত ১০ আগস্ট বিকাল ৩টার দিকে বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় ফাহাদ নামের ওই স্কুল ছাত্র। এর তিনদিন পর গত ১৩ আগস্ট দুপুরে পুকুরের পাশের একটি ডোবার কচুরিপানার নিচ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে ১৬ আগস্ট অজ্ঞাতনামা আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ফাহাদ উপজেলার নারান্দী মধ্যপাড়া গ্রামের মো. আবদুল কদ্দুছের ছেলে ও নারান্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র ছিল। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাকুন্দিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শ্যামল মিয়া জানান, নিহত শিশু ফাহাদের বাবার দায়ের করা মামলায় কোনো আসামি বা স্বাক্ষী ছিলো না। মামলাটি ছিলো সম্পূর্ণ ক্লু-লেস। দুইদিন বিরামহীন পরিশ্রম শেষে ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের পরামর্শ ও সহযোগিতায় তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে মূল রহস্য উদঘাটন ও ঘটনায় জড়িত আসামি শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছি। ঘটনায় জড়িত আসামির নাম ইমন। সে উপজেলার নারান্দী মধ্যপাড়া গ্রামের মোফাজ্জল করিম খসরুর ছেলে। পরে ইমনকে প্রেপ্তার করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ফাহাদ হত্যায় জড়িত থাকার বিষয়টি প্রাথমিকভাবে পুলিশের নিকট স্বীকার করে সে। এ ঘটনায় ইমন একাই জড়িত ছিল মর্মে বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com