1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ১১:৫২ পূর্বাহ্ন

পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত ৩ হাজার মানুষ এ পর্যন্ত মৃত্যু ২৩০ জন

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৮ বার পঠিত

রনবীর সিংহ।- দেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যার পানি কমলেও চরম দুর্ভোগে হাজার হাজার মানুষ। কোন কোন স্থানে শুরু হয়েছে পানিবাহিত নানা রোগ। বন্যাকবলিত জেলা-উপজেলাগুলোতে সাপের উপদ্রব বাড়ছে। সাপের কামড়ে মানুষ মারা যাচ্ছে। বৃষ্টি ও বজ্রপাতেও মানুষ মারা গেছে। বন্যাজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বন্যা কবলিত জেলার বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছে ৫৩ হাজার ৫৭০ জন। এরমধ্যে মৃত্যুবরণ করছে ২৩০ জন। প্রতিদিন আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। আর বেড়ে চলেছে ডায়রিয়া, পেটের পিড়া, চর্মরোগ,চোখের প্রদাহসহ পানি বাহিত নানা রোগ। মানুষ ছাড়াও গৃহপালিত গবাদী পশু নিয়ে অসহায় মানুষ নানা কষ্টে দিন কাটছেন। জানা গেছে, গত ৩০ জুন থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশের ৩৩টি জেলার ১৬০টি উপজেলায় ১ হাজার ১৬টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। ওইসব ইউনিয়নে বসবাসকারী হাজার হাজার মানুষের ঘরবাড়ি ডুবে গেছে। অনেকেই উঁচু স্থানে বা রাস্তার পাশে আশ্রয় নিয়ে নানা কষ্টে দিন কাটছে। এ অবস্থায় চলাচল করতে গিয়ে শিশু ও বৃদ্ধরা নানা ভাবে দুর্ভোগে পড়ছে। অনেকেই দূষিত পানি ব্যবহার করে নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বন্যার দূষিত পানিতে গোসল করে, ময়লা পানি পান করে অনেকেই চর্মরোগসহ পানি বাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। সবমিলিয়ে বন্যা কবলিত জেলার মানুষ এখন চরম ভোগান্তিতে দিন কাটাচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্য মতে, লালমনিরহাট জেলার ৫টি উপজেলার ২২টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। ওই সব ইউনিয়নে বন্যাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে ৭৫১ জন। আর মৃত্যুবরণ করেছে ১৭ জন। কুড়িগ্রাম জেলার ৯টি উপজেলার ৫৬টি ইউনিয়নে নানা রোগে আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ২৭১ জন। তারমধ্যে মারা গেছেন ২৫ জন। গাইবান্ধা জেলার ৬টি উপজেলার ৪৫টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। ওই এলাকার ১ হাজার ১০৬ জন রোগে আক্রান্ত মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের। আর বেসরকারি হিসেবে এ সংখ্যা আরও অনেক বেশি হবে মনে করা হচ্ছে। নীলফামারী জেলার ২টি উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। রোড়ে আক্রান্ত হয়েছে ২২৭ জন। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩ জনের। রংপুর জেলার ৩টি উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে ১২৩ জন আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩ জন। সুনামগঞ্জ জেলার ১১টি উপজেলার বন্যা কবলিত ৮৮টি ইউনিয়নে রোগাক্রান্ত হয়েছে আক্রান্ত ৩৩৫ জন। তারমধ্যে মারা গেছেন ৮ জন। সিরাজগঞ্জ জেলার ৯টি উপজেলার মধ্যে ৭টি উপজেলার ৫৯টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। সেখানে নানা রোগে আক্রান্ত ২ হাজার ১১ জন, মারা গেছে ১৫ জন। বগুড়া জেলার ৩টি উপজেলার ২৪টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। সেখানে আক্রান্ত ১৩৬১ জন, মারা গেছেন ১জন। জামালপুর জেলার ৭টি উপজেলা ৫৯টি ইউনিয়নের বন্যার কবলে পড়েছে। ওইসব এলাকায় সরকারি হিসাবে রোগাক্রান্ত ১২২৪ জনের মধ্যে মারা গেছে ৩২ জন। এছাড়াও সিলেট জেলার কিছু কিছু এলাকা বন্যা কবলিত। ওই সব এলাকায় কেউ মারা না গেলেও আক্রান্ত ৫শ’র বেশি। টাঙ্গাইল জেলার ১১টি উপজেলাই বন্যাদুর্গত। এসব উপজেলার ৯৫টি ইউনিয়নে ডায়রিয়া সহ নানা রোগে আক্রান্ত ৬ হাজার ৩৬৬ জন। এরমধ্যে মারা গেছে ৩৭ জন। রাজবাড়িতে রোগে আক্রান্ত ১ হাজার ৩৭৮ জন। তার মারা গেছেন ৩ জন। মানিকগঞ্জের ৭টি উপজেলার ২৭টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। ওই এলাকায় ডায়রিয়া ও পেটের পিড়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত ১ হাজার ৫৬৮ জন। তার মধ্যে ২৩ জন মারা গেছে। মাদারীপুর জেলার ৪টি উপজেলার ৫১টি ইউনিয়নের মানুষ বন্যার কবলে পড়েছে। সেখানে নানা রোগে আক্রান্ত হয়েছে ২৪ হাজার ৩৫৬ জন। ফরিদপুর জেলার ৭টি উপজেলার ৩১টি ইউনিয়নের মানুষ বন্যার কবলে পড়েছে। তার মধ্যে নানা রোগে আক্রান্ত হয়েছে ১৭৫৩ জন, মারা গেছেন ১ জন। নেত্রকোনা জেলার ৭টি উপজেলার ৪১টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। সেখানে ডায়রিয়া, পেটের পিড়া, সাপের কামড়সহ নানা কারণে আক্রান্ত ২ হাজার ২১২ জন। মারা গেছে ৮ জন। নওগাঁ জেলার ৭টি উপজেলার ১৭টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। ওই সব এলাকায় রোগে আক্রান্ত ২১৮ জন, ২ জন মারা গেছেন। কিশোরগঞ্জের ৮ উপজেলার ৪৩টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। সেখানে রোগে আক্রান্ত ৯৫৩ জন, মারা গেছে ১১ জন। ঢাকা জেলার ৫টি উপজেলার ৩২টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। এসব এলাকায় রোগাক্রান্ত ২ হাজার ৩৫৯ জন, মারা গেছে ৯ জন। শরীয়তপুর জেলার ৩টি উপজেলার ২৫টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। রোগাক্রান্ত ৮০২ জন, মারা গেছে ৩ জন। মুন্সীগঞ্জ ৬টি উপজেলার ৪৪টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত। সেখানে রোগাক্রান্ত ১৯৪ জন, মারা গেছে ৬ জন। নাটোরের ৩টি উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে আক্রান্ত ১১৪ জন। ময়মনসিংহ জেলার ৮টি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের ২৩ জন আক্রান্ত গাজীপুরের ২টি উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের ১৪৮০ জন আক্রান্ত তার মধ্যে মারা গেছে ৬ জন। গোপালগঞ্জ জেলার ৪টি উপজেলার ৪৬টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। আক্রান্ত ২২ ও মৃত্যু ২ জন। পাবনার ৬ উপজেলার ২১টি ইউনিয়নে আক্রান্ত ৭৬৩ জন। এভাবে দেশের ৩৩টি জেলায় ১৬০টি উপজেলার ১ হাজার ১৬টি ইউনিয়ন বন্যায় কবলিত। এসব জেলায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ১৮ হাজার ৫৯ জন। বজ্রপাতে মারা গেছে ১৫ জন। সাপের কামড়ে মারা গেছে ২০ জন। পানিতে ডুবে মারা গেছে ১৯০ জন। চর্মরোগে আক্রান্ত ১১ হাজার ৭৭৫ জন। চোখের প্রদাহে আক্রান্ত ১ হাজার ২৮১ জন। এভাবে বন্যা কবলিত জেলাগুলোতে পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত ৫৩ হাজার ৫৭০জন। মারা গেছেন ২২৬ জন। মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে, বন্যাকবলিত জেলাগুলোয় ১ হাজার ৭০টি আশ্রয় কেন্দ্র ও ২ হাজার ৭৮৫টি মেডিকেল টিম কাজ করছেন। এছাড়াও জেলা ও উপজেলার হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে আক্রান্তদের চিকিৎসাসহ নানাভাবে সহযোগিতা করা হচ্ছে। মারাত্মকভাবে আক্রান্তদেরকে জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। আর মেডিকেল টিম এলাকায় অবস্থান ণিয়ে বানভাসি মানুষকে চিকিৎসাসহ অন্যান্য সহযোগিতা করছেন বলে জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com