সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
দিনাজপুরে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী ধর্ষক আটক সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ প্রয়োজন-মনোরঞ্জন শীল দিনাজপুরে মৎস্যজীবী লীগ ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন কমিটি গঠন জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মিলনমেলা

পীরগঞ্জের ব্যবসায়ী উত্তম সাহাকে মহিলাসহ ধরে নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দেয়া হলো কেন ?

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০
  • ২৫৯ বার পঠিত
প্রজাপাড়ায় উত্তম সাহার বাড়ি। জনতার ক্ষোভের আগুনে পুড়লো তোষক-বালিশ।

কনক আচার্য।- পীরগঞ্জ (রংপুর) উপজেলা সদরের চাউল ব্যবসায়ী উত্তম কুমার সাহাকে মহিলাসহ ধরে নিয়ে গিয়ে থানা থেকে ছেড়ে দেয়ার ঘটনায় জনমনে নানা প্রশ্নের উদ্রেক হয়েছে। স্থানীয়দের প্রশ্ন, উত্তম সাহাকে মহিলাসহ ধরে নিয়ে গিয়ে পুলিশ ছেড়ে দিল কেন?
এই বিষয়ে বজ্রকথা উত্তর খোঁজার চেষ্টা করছে। গত ৭ আগস্ট ২০২০ শুক্রবার এই ঘটনা ঘটেছে।  প্রকাশ, ঘটনার দিন পৌরসভার প্রজাপাড়া গ্রামের জনবসতিপূর্ণ এলাকার একটি বাসায় লীলা করার সময় গ্রামবাসী রাত ৮টার দিকে পাঁচ মুসলিম নারীসহ চাউল ব্যবসায়ী উত্তম কুমারকে আটক করে। এরপর হৈ চৈ শুরু হলে জনতার ভিড় বেড়ে যায়। মুসলমান নারীদের নিয়ে এসে রঙ্গলীলা করার কারণে উপস্থিত জনতা উত্তম সাহাকে গণধোলাই দিতে থাকে। উত্তম সাহার ঘরের বালিশ তোষক বের করে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। অবস্থা বেগতিক দেখে পুলিশকে খবর দেয়া হলে এস আই ইসমাইল হোসেন ও সঙ্গীয় ৩ কনষ্টবল দ্রুত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ৫ নারীসহ উত্তমকে থানায় ধরে নিয়ে যায়। তারপর রাত ১১টার দিকে ওই পাঁচ নারীসহ উত্তম কুমারকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে, উত্তম কুমার সাহাকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেল কেন ? আর ছেড়েইে বা দিল কেন? নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এই বলে, উত্তম সাহা মুসলিম নারীদের ব্যবহার করে অর্থ কামাইয়ের অনৈতিক মেশিন বানিয়েছেন। বিষয়টি আপত্তিকর।
এ বিষয়ে প্রজাপাড়ায় গিয়ে আশ-পাশের লোকজনদের সাথে কথা হলে তারা জানান , উত্তম কুমার সাহা তার ক্রয় করা ওই বাড়ীতে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন না। এখানে চাউলের ব্যবসাও নেই তার। তবে দু’চারদিন পর পর রাতের দিকে বোরকা পড়া ৩/৪জন করে নারী তার ঘরে আসতো। তার পর রাত ১১টার মধ্যেই তারা এক এক করে রিকসায় চড়ে চলে যেতেন। ওই মহিলারা কেন আসে, কোথায় যায় এ বিষয়ে স্থানীয়দের সন্দেহ ছিল। এরপর গত শুক্রবার ৭ আগস্ট রাতে গ্রামবাসী বোকার পড়া পাঁচ মহিলাকে ঘরে ঢুকতে দেখেন এবং একজোট হয়ে তাদেরকে আটক করেন। অভিযোগ উঠেছে,আসলে উত্তম কুমার একজন নারী সরবরাহকারী। তিনি জনৈকা রোজিফা নামের এক সহযোগীর মাধ্যমে নারী সংগ্রহ করে খদ্দেরদের কাছে সরবারাহ করতেন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com