সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
দিনাজপুরে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী ধর্ষক আটক সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ প্রয়োজন-মনোরঞ্জন শীল দিনাজপুরে মৎস্যজীবী লীগ ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন কমিটি গঠন জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মিলনমেলা

পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের স্বপ্ন বাগান

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০
  • ২৫৮ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক।- পীরগঞ্জ উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার টিএমএ মমিন সাহেব (বর্তমানে এডিসি লালমনির হাট) কারেনা কালে এখানকার উপজেলা পরিষদ চত্বরের পরিত্যাক্ত জমিতে সবজি এবং ফল বাগান সৃষ্টি করেছিলেন। বৃক্ষপ্রেমি একজন মানুষ হিসেবে,তার নিজ হাতে এখানে অনেকগুলো গাছ লাগিয়েছেন এবং নিজ হাতে পরিচর্যা করেছেন গাছগুলোর। জানা মতে তিনি প্রায় ৫০০ সুপারি, ৩০০ মালটা গাছ, ৪৩০টি লেবু গাছ, ৫০টি পেয়ারা গাছ, আমড়া গাছ ৩টি, জাত নীম ৭টি, পেঁপে গাছ ১০০টি, সবরি কলার গাছ ৬০০ লাগিয়ে গেছেন। বর্ষায় সব গাছ মাথা তুলে দাড়িয়েছে। সতেজ হয়েছে। বড় হচ্ছে গাছ গুলো। আশা করা হচ্ছে,তার লাগনো গাছ গুলো নিকট ভবিষ্যতে ফল দিতে শুরু করবে। জনাব টিএমএ মমিন সাহেব পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্বরের ভেষজ বাগান সংলগ্ন এই বাগনের নাম দিয়ে ছিলেন “ স্বপ্ন বাগান”।তিনি পীরগঞ্জ উপজেলা থেকে তার নতুন কর্মস্থল লালমনিরহাট জেলায় যাবার সময় বজ্রকথাকে বলেছিলেন,তিনি চেষ্টা করেছেন,পীরগঞ্জ উপজেলাকে সাজাবার। করোনাকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিত্যাক্ত জমিকে কাজে লাগাবার যে নির্দেশ দিয়েছিলেন,সেই নির্দেশকে কাজে লাগিয়ে তিনি “স্বপ্ন বাগান” গড়েছেন। ফলদ এবং অর্থকারী বৃক্ষ আগামীতে ফল দেবে ,পুষ্টি দেবে, ও অর্থ দেবে। এই বাগানের ফল এলাকার লোকজন খাবে এবং বিক্রী করে উপজেলার রাজস্ব খাতে কিছু জমাও পড়বে। আমরা লক্ষ্য করছি গাছ গুলো বড় হচ্ছে, এই গাছ গুলোর কারনে উপজেলার পরিবেশ হচ্ছে মনোরম, দৃষ্টি নন্দন। স্বপ্ন বাগান রক্ষা করা গেলে পরিষদের বানিন্দারা উপজেলা চত্বরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বসবাসের সুযোগ পাবেন।
উল্লেখ্য টিএমএ মমিন একজন শিক্ষিত মার্জিত মেধাবী মানুষ হিসেবে খুব অল্প সময়েই তিনি এলাকার মানুষের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে ছিলেন। তিনি যে শুধু ইউএনও ছিলেন তাই নয়, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে তার ছিল গভীর দেশপ্রেম। দেশের প্রতি ভালবাসা, অনুরাগ,দায়বোধ থেকে তিনি মানুষের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন এখানে। সব সময় সৃষ্টিশীল চিন্তা আনাগোনা করত এই গুণী কর্মকর্তার ভিতরে। একজন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা হলেও আমলাতান্ত্রিক মানসিকতার বাইরে ছিলেন জনাব টি এমএ মমিন। সে কারনেই সাধারণ মানুষের সাথে মিশতেন, কথা শুনতেন, সেবা দিতেন, সহযোগিতা করতেন। কাজ করেছেন সেবক হিসেবে। সাহেবিপনা তাকে প্রভাবিত করেনি। তিনি জ্ঞানি গুণীদের কদর করতেন। তাকে মনে রাখবে উপজেলার সাধারণ মানুষ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com