মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ১২:৫৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
১১ বছরেরও শেষ হয়নি সুন্দরগঞ্জ চার পুলিশ হত্যার বিচারিক কার্যক্রম  মেহেদী শান্তা জুটির ৪ বই পাঠকপ্রিয় হয়েছে গাইবান্ধা-৩ আসনের সাবেক এমপি মোখলেছুর মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক গাইবান্ধায় সড়ক দূর্ঘটনায় দুই যুবক নিহত শমসেরনগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার চায় শিক্ষার্থীরা দিনাজপুর বৃদ্ধাশ্রমে কেক কেটে সময়ের আলোর ৫ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন আধিপত্য বিস্তারে মোটর মালিক সমিতির লিপনকে সরিয়ে দিতে গুলিবর্ষণ: গ্রেফতার ৪ রংপুরে জাতীয় বাজেট প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বাজেট প্রত্যাশা শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত উচ্ছেদে অভিযানের পর ধ্বংসাবশেষ অপসারণ করেছে পৌরসভা  চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন

পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের স্বপ্ন বাগান

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৫৫৭ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক।- পীরগঞ্জ উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার টিএমএ মমিন সাহেব (বর্তমানে এডিসি লালমনির হাট) কারেনা কালে এখানকার উপজেলা পরিষদ চত্বরের পরিত্যাক্ত জমিতে সবজি এবং ফল বাগান সৃষ্টি করেছিলেন। বৃক্ষপ্রেমি একজন মানুষ হিসেবে,তার নিজ হাতে এখানে অনেকগুলো গাছ লাগিয়েছেন এবং নিজ হাতে পরিচর্যা করেছেন গাছগুলোর। জানা মতে তিনি প্রায় ৫০০ সুপারি, ৩০০ মালটা গাছ, ৪৩০টি লেবু গাছ, ৫০টি পেয়ারা গাছ, আমড়া গাছ ৩টি, জাত নীম ৭টি, পেঁপে গাছ ১০০টি, সবরি কলার গাছ ৬০০ লাগিয়ে গেছেন। বর্ষায় সব গাছ মাথা তুলে দাড়িয়েছে। সতেজ হয়েছে। বড় হচ্ছে গাছ গুলো। আশা করা হচ্ছে,তার লাগনো গাছ গুলো নিকট ভবিষ্যতে ফল দিতে শুরু করবে। জনাব টিএমএ মমিন সাহেব পীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্বরের ভেষজ বাগান সংলগ্ন এই বাগনের নাম দিয়ে ছিলেন “ স্বপ্ন বাগান”।তিনি পীরগঞ্জ উপজেলা থেকে তার নতুন কর্মস্থল লালমনিরহাট জেলায় যাবার সময় বজ্রকথাকে বলেছিলেন,তিনি চেষ্টা করেছেন,পীরগঞ্জ উপজেলাকে সাজাবার। করোনাকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিত্যাক্ত জমিকে কাজে লাগাবার যে নির্দেশ দিয়েছিলেন,সেই নির্দেশকে কাজে লাগিয়ে তিনি “স্বপ্ন বাগান” গড়েছেন। ফলদ এবং অর্থকারী বৃক্ষ আগামীতে ফল দেবে ,পুষ্টি দেবে, ও অর্থ দেবে। এই বাগানের ফল এলাকার লোকজন খাবে এবং বিক্রী করে উপজেলার রাজস্ব খাতে কিছু জমাও পড়বে। আমরা লক্ষ্য করছি গাছ গুলো বড় হচ্ছে, এই গাছ গুলোর কারনে উপজেলার পরিবেশ হচ্ছে মনোরম, দৃষ্টি নন্দন। স্বপ্ন বাগান রক্ষা করা গেলে পরিষদের বানিন্দারা উপজেলা চত্বরে প্রাকৃতিক পরিবেশে বসবাসের সুযোগ পাবেন।
উল্লেখ্য টিএমএ মমিন একজন শিক্ষিত মার্জিত মেধাবী মানুষ হিসেবে খুব অল্প সময়েই তিনি এলাকার মানুষের মন জয় করতে সক্ষম হয়ে ছিলেন। তিনি যে শুধু ইউএনও ছিলেন তাই নয়, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে তার ছিল গভীর দেশপ্রেম। দেশের প্রতি ভালবাসা, অনুরাগ,দায়বোধ থেকে তিনি মানুষের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন এখানে। সব সময় সৃষ্টিশীল চিন্তা আনাগোনা করত এই গুণী কর্মকর্তার ভিতরে। একজন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা হলেও আমলাতান্ত্রিক মানসিকতার বাইরে ছিলেন জনাব টি এমএ মমিন। সে কারনেই সাধারণ মানুষের সাথে মিশতেন, কথা শুনতেন, সেবা দিতেন, সহযোগিতা করতেন। কাজ করেছেন সেবক হিসেবে। সাহেবিপনা তাকে প্রভাবিত করেনি। তিনি জ্ঞানি গুণীদের কদর করতেন। তাকে মনে রাখবে উপজেলার সাধারণ মানুষ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com