বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

পুজো শেষ: আকাশে বাতাসে বিদায়ের সুর

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩৮১ বার পঠিত

মোঃ আসাদুজ্জামান রিপন, পাঁচবিবি (প্রতিনিধি) জয়পুরহাট।- শারদীয় দুর্গোৎসবের আজ শেষ দিন, শুভ বিজয়া দশমী। আজ বিসর্জনের মধ্য দিয়ে মর্ত্য ছেড়ে কৈলাসে স্বামীগৃহে ফিরে যাবেন দুর্গতিনাশিনী দুর্গা। প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ এই ধর্মীয় উৎসবের সমাপ্তি ঘটবে আজ সোমবার।

নানা ধর্মীয় আচারের মধ্য দিয়ে গতকাল রবিবার সারা দেশে মহানবমী উদ্‌যাপিত হয়েছে। শারদীয় দুর্গোৎসবের চতুর্থ দিন সকালে মণ্ডপে মণ্ডপে বিহিত পূজার মাধ্যমে শুরু হয় মহানবমীর আনুষ্ঠানিকতা। দুর্গতিনাশিনী দেবীর চরণে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করে মনোজগতের আসুরিক প্রবৃত্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রের অশুভ শক্তির বিনাশ এবং শুভ শক্তি জাগরণে প্রার্থনা জানানো হয়।

মণ্ডপ ঘুরে দেখা যায়, মহানবমী উপলক্ষে মন্দির-মণ্ডপে ছিল উৎসবমুখর পরিবেশ।পাঁচবিবি পৌরসভার মণ্ডপগুলোতে প্রিয়জন বা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে হাজির হয়েছিলেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। তাঁদের পরনে ছিল নতুন পোশাক। অন্য ধর্মের লোকজনের উপস্থিতিও দেখা গেছে। দেবীর আশীর্বাদ কামনা করে কায়মনে চলে প্রার্থনা। দেবীর সঙ্গে সেলফি তোলাও চলে সমানতালে। মণ্ডপ ছেড়ে যাওয়ার আগে ভক্তদের কেউ কেউ প্রণামীও দেন।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে মন্দরিগুলিতে জনসমাগম তুলনামূলক কম থাকলেও ঢাকের বাদ্য, শঙ্খ ও কাঁসরের ধ্বনিতে মুখরিত ছিল মণ্ডপ। সন্ধ্যায় মণ্ডপগুলোয় বাড়তি আয়োজন ছিল আরতি প্রতিযোগিতা, আলাদা মাত্রা দিয়েছে বর্ণিল আলোকসজ্জা।

এই উৎসব ঘিরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের হেঁশেলে রান্নার পদে পরিবর্তন আসে। সাধারণত দুর্গাপূজার দিনগুলোতে একেক দিন একেক খাবারের আয়োজন করা হয়। খাবারের তালিকায় কেউ আমিষ রাখেন, কেউ আবার নিরামিষ। রাতের খাবারে থাকে বন্ধুবান্ধবের সরব উপস্থিতি।

পরিশেষে সবাই মা দূর্গার কাছে প্রার্থনা করেন, যেন করোনা ভাইরাস পৃথিবী থেকে বিনাশ হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com