1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ২৩ জুলাই ২০২১, ০৪:০৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কোলাকুলি আর করমর্দন ছাড়াই রংপুরে পালিত হলো ঈদ উল আযহা পীরগঞ্জে ইউপি ভবনে তালা অত:পর সংবাদ সন্মেলন প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো উপহার কাহারোলে জয়বাংলা ভিলেজে অসহায়দের পৌছে দিলেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি রংপুরে ঈদুল আযহা কর্মসূচি গ্রহণ: প্রধান জামাত সকাল ৮টায় সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  রংপুরে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু আরও ১১ শনাক্ত ৪৭৪ বগুড়ায় পর্নোগ্রাফি আইনে দুই তরুণ গ্রেফতার দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির রংপুর মহানগর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদকের ঈদ শুভেচ্ছা

প্রতিটি মানুষের ন্যায় বিচার পাবার অধিকার আছে

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৫ আগস্ট, ২০২০
  • ৫৩ বার পঠিত

– সুলতান আহমেদ সোনা

কিছু কিছু ঘটনা দেখে বিস্মিত হই। কিছু কিছু বিষয় আমাদের ভাবায়। চিন্তা করি,আমরা কোথায় আছি আর দেশ কোথায় যাচ্ছে? ইদানিং কথা বলতেও ভয় পাই ! কারণ সমাজের কিছু মানুষের আচরণ হয়েছে বন্যপ্রাণিদের মত। ভয়ের কারণটা হলো কখন যে কে কার ঘাড়ে হামলে পড়বে বলা তো যায়না?
একটা সময় মুরুব্বীদের মুখে শুনে ছিলাম, তারা বলেছিলেন,সামনে এমন দিন আসবে “ঘাটে অঘাট হবে, রাস্তার মোড়ে মোড়ে হাট বসবে, মানি লোকে মান হারাবে, মেয়েরা মাথায় উঠবে, বতুয়ার নিচে (বতুয়া শাকের গাছের নিচে) দেওয়ান বসবে, চ্যাং মাছের ঠ্যাং হবে।বিদ্যা বুদ্ধি থাকার পরেও মানুষ বিবেকহীনের মত কাজ করবে।” কথাগুলো গ্রাম গঞ্জে এখনো প্রচলিত আছে । মুরুব্বীদের সেই কথাগুলোর মানে তখন বুঝি নাই , তবে এখন সেই কথার গুরুত্ব কিছুটা হলেও অনুমান করতে পারছি।
এই ফাঁকে বলে নেই,একটা সময় ছিল সমালোচনা করা যেত, সমালোচনার গুরুত্ব দিত মানুষ। অপকর্ম করলে লজ্জিত হত। এখন তো চক্ষুলজ্জাও আছে বলে মনে হয়না। আমি সত্যি লজ্জিত যে, আমাদের দেশের কিছু মানুষের ভুলের কারনে আমাদের মাথা সমাজে নিচু হচ্ছে ।
গত শুক্রবারের ঘটনা নিয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি আজ। নিশ্চয় অনুমান করতে পারছেন আমি কী বলতে চাই। আপনারা নিশ্চয় জেনে গেছেন কক্সবাজারের চকরিয়ায় মা, তরুণী দুই মেয়ে ও এক ছেলেসহ পাঁচজনকে ‘গরুচোর’ আখ্যা দিয়ে নির্মমভাবে পেটানো হয়েছে। তারপর তাদের কোমরে রশি লাগিয়ে বেঁধে প্রকাশ্যে রাস্তা দিয়ে টানতে টানতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, স্থানীয় চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে।
এই ছবিটি ফেসবুকের কল্যানে সারাদেশের মানুষ দেখেছে এবং নারীর প্রতি অমানবিক নির্যাতন সম্পর্কে জানতে পেরেছে।বিষয়টি দুঃখজনক! অমানবিক !!
সংবাদ মাধ্যমের কল্যানে জেনেছি,মারধরের শিকার ব্যক্তিরা হলেন চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার শান্তিরহাট কুসুমপুর ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আবুল কালামের স্ত্রী পারভীন আক্তার (৫৫), তার মেয়ে সেলিনা আক্তার (২৮) ও রোজিনা আক্তার (২৫), ছেলে মোঃ আরমান (৩০) ও পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের মো. ছুট্ট (৩৮)।এদিকে আলোচনায় আছে চোর অপবাদ দিয়ে তাদেরকে চেয়ারম্যানের পরিষদে আনা হলে ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম বেধড়ক পিটিয়েছেন।
শুক্রবার দুপুরে হারবাং ইউনিয়নের পহরচাঁদা এলাকায় এ ঘটনা ঘটলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঘটনার ছবি প্রকাশের পর তা ভাইরাল হয়ে ছিল। পরে নির্যাতিতদের বিরুদ্ধে পহরচাঁদা এলাকার মাহমুদুল হক নামে এক অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে চকরিয়া থানায় গরু চুরির মামলা দায়ের করেন।
এ বিষয়ে চকরিয়া থানার হারবাং পুলিশফাঁড়ির পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম এর ভাষ্যমতে প্রকাশ, ‘শুক্রবার স্থানীয় বাসিন্দারা ফাঁড়িতে খবর দিলে গুরুতর অবস্থায় মা-মেয়েসহ পাঁচজনকে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে উদ্ধার করে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে আসেন এবং পুলিশ তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন’।
আলোচনায় উঠে এসেছে , সেদিন নির্যাতনের পর, চেয়ারম্যানের লোকেরাই হারবাং পুলিশফাঁড়িতে ফোন করেন, পুলিশ এনে তাদের হাতে মা-মেয়েসহ পাঁচজনকে আহত অবস্থায় তুলে দেন।
অভিযোগ উঠেছে, একদফা মা-মেয়ের ওপর নির্যাতন চলার পর হারবাং ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম চৌকিদার (গ্রাম পুলিশ) পাঠিয়ে তাদেরকে রশিতে বেঁধে তার কার্যালয়ে এনে আবার নির্মমভাবে নির্যাতন করেন। চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম নাকি আবার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতা! অনেকের মত আমরাও মনে করি এ ভাবে গরুচুরির অপবাদ দিয়ে নারীদেরকে যে ভাবে অপমান,অপদস্ত, প্রহার, নির্যাতন করা হয়েছে, সেটা কোন মতেই মেনে নেয়া যায়না। সেখানকার উপজেলা প্রশাসন,পুলিশ যাই বোঝাতে চান না কেন, এঘটনার নিন্দা জানাবার ভাষা আমাদের জানা নেই।
টেলিভিশনের আলোচনা থেকে জেনেছি, অভিযুক্তরা নাকি একটা বছুর গরু সিএনজিতে তুলে নিয়ে যাবার চেষ্টা করছিল! অবাক কান্ড এই প্রথম শুনলাম মহিলা মানুষ গরুচোর (?) তার পর সিএনজিতে গরু তোলা যায় (?)
আচ্ছা মানলাম তারা গরু চুরি করেছে, তারা চোর । ঠিক আছে চোরে মালে ধরা পড়লে পুলিশের হাতে তুলেদিতে পারতেন।তাদেরকে পেটালেন কেন? কোমরে দড়ি লাগিয়ে ঘোরালেন কেন ? ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে গিয়ে চোয়ারম্যান তাদেরকে প্রহার করল কেন ? আইনের দৃষ্টি সকলে সমান কারনে অপরাধীদের ধরে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন ভালো; এর আগে আইন হাতে তুলে নিয়ে চেয়ারম্যান মিরানুল অভিযুক্তদের পেটালেন কেন ? তার কি মানুষ পেটানোর ক্ষমতা আছে? সেই চেয়াম্যান কি অপরাধী নয় ?
যারা দড়িতে বেঁধে ওই নারীদের গ্রাম ঘোরালেন তারাকি অমানবিক আচরণ করেননি ? তারা কী ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকবে। গরুচুরির অপবাদে অভিযুক্তরা মার পিটের শিকার হয়েছেন বলেই তো,পুলিশ সংবাদ পেয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে, এতে কি প্রমাণ হয়না যে, অভিযুক্তরা নির্যাতনের শিকার হয়েছে?
বলাই বাহুল্য স্থানীয় প্রশাসনের ভুমিকা মোটেই সন্তোষ জনক ছিল না। আমি আইন কানুন ভালো বুঝিনা,তাই সামন্য বোধ শক্তি থেকে বলছি, সব অভিযোগ কি সত্য হয় ? এদেশে কি ধান্দাবাজরা মিথ্যা অভিযোগ করে না? গরু চুরির বিষয়টি সত্য না বানোয়াট সেটা আগে তদন্ত করে দেখা উচিত ছিল না কি ? তদন্ত করেও তো মামলা নেয়া যেত, তারপরেও পুলিশ অভিযুক্তদের জেলাহাজতে পাঠনোর ব্যবস্থা করতে পারতেন বোধ হয়!
তাই বলছি,এটা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ।এখানে প্রতিটি মানুষের ন্যায় বিচার পাবার অধিকার আছে। মিরানুল চেয়ারম্যানও আইনের উর্ধ্বে নন। তাকেও ধরতে হবে। যারা আইন হাতে তুলে নিয়েছে এবং নির্যাতনের সাথে জড়িত ছিল যারা তাদেরও বিচার করতে হবে। এই ঘটনা বাংলাদেশের ভাবমুর্তিকে ধুলোর সাথে মিশেয়ে দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে একজন মানুষ হিসেবে বিব্রতবোধ করছি। আমরা মনে করি, সকল নাগরিকের মানবাধিকার রক্ষার বিষয়টি সরকার এড়িয়ে যেতে পারেন না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com